• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • #EgiyeBangla: বর্ষায় বাড়ছে জ্বরের প্রকোপ, মশা নিয়ন্ত্রণে মাছ ছাড়ছে পুরসভা ও পঞ্চায়েত

#EgiyeBangla: বর্ষায় বাড়ছে জ্বরের প্রকোপ, মশা নিয়ন্ত্রণে মাছ ছাড়ছে পুরসভা ও পঞ্চায়েত

মশা নিযন্ত্রণে এবার ভরসা মাছ ৷ নিজস্ব চিত্র ৷

মশা নিযন্ত্রণে এবার ভরসা মাছ ৷ নিজস্ব চিত্র ৷

  • Share this:

    #বর্ধমান: বর্ষার সঙ্গে তাল মিলিয়ে রাজ্যে বাড়ছে জ্বরের প্রকোপ। ডেঙ্গি, ম্যালেরিয়া, চিকুনগুনিয়ায় ঠেকাতে উদ্যোগী পূর্ব বর্ধমান জেলা প্রশাসন। পতঙ্গবাহিত রোগ ঠেকাতে মৎস্য দফতরের সহায়তায় প্রতি ব্লকে জলাশয়ে ছাড়া হয়েছে গাপ্পি-গাম্বুশিয়া-তেচোখার মত মাছ। মশার বংশবৃদ্ধি রোধের মাধ্যমে রোগ ঠেকানোর পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। বর্ষার জমা জল থেকে বিভিন্ন রোগ ছড়ানোর সম্ভাবনা তৈরি হয়। ডেঙ্গি-ম্যালেরিয়া-চিকুনগুনিয়ার মত মশাবাহিত রোগ ছড়ায় সবথেকে বেশি। এইসব রোগের বাড়াবাড়িতে মৃত্যুর সংখ্যাটাও নেহাত কম নয়। বিভিন্ন সময় পুরসভা ও পঞ্চায়েতের পক্ষ থেকে বাসিন্দাদের সচেতন করতে প্রচার চালানো হয়। প্রতি ওয়ার্ড পরিষ্কার রাখার জন্যও পদক্ষেপ করা হয়। পূর্ব বর্ধমান জেলাও তার ব্যতিক্রম নয়। পঞ্চায়েত ও পুরসভা এলাকায় লাগানো হয়েছে ফেস্টুন-ব্যানার। এছাড়াও মৎস্য দফতরের সহায়তায় আরও এক অভিনব উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। প্রতি ব্লকের জলাশয়গুলিতে ছাড়া হয়েছে গাপ্পি, গাম্বুশিয়া, তেচোখার মত মাছ। এই মাছগুলি মশার লার্ভা খেয়ে নেওয়ায় মশার বংশবৃদ্ধি হবে না। ফলে মশার বাড়বাড়ন্ত রোধ করা যাবে।

    আরও পড়ুন: #EgiyeBangla: পার্কের আধুনিকীকরণে উদ্যোগী রামপুরহাট পুরসভা, খুশি শিশুরা

    মশা নিয়ন্ত্রণে মাছ ------------------ -(পূঃ বর্ধমানে) এখনও পর্যন্ত ৭ লক্ষ গাপ্পি, গাম্বুশিয়া জাতীয় মাছ জলাশয়ে ছাড়া হয়েছে -প্রতি ব্লকে ২০ হাজার করে মাছ ছাড়া হয়েছে -প্রতি পুরসভায় ৪০ হাজার করে মাছ ছাড়া হয়েছে -এক একটি গাপ্পি মাছ দিনে ১৫০-২০০ লার্ভা খায়

    ফলে এই পদ্ধতি মশা নিয়ন্ত্রণে কার্যকরী হবে বলে মনে করছে বিশেষজ্ঞরা। প্রশাসনেরও আশা, নতুন এই পদ্ধতিতে এলাকায় মশাবাহিত রোগের প্রকোপ কমবে। ইতিমধ্যেই হায়দরাবাদে গাম্বুশিয়া জাতীয় মাছের মাধ্যমে মশা নিয়ন্ত্রণে বিশেষ সাফল্য মিলেছে। পূর্ব বর্ধমানেও এই পদ্ধতি কার্যকর হবে বলে মনে করছে প্রশাসন। মশা মারতে আর কামান দাগা নয়। মাছই যথেষ্ট। প্রশাসনের উদ্যোগী খুশি বাসিন্দারাও।

    First published: