corona virus btn
corona virus btn
Loading

আমফানে ক্ষতিগ্রস্ত বহু নদী বাঁধ, ভরা কোটালের আগে পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে সুন্দরবনে শুভেন্দু অধিকারী   

আমফানে ক্ষতিগ্রস্ত বহু নদী বাঁধ, ভরা কোটালের আগে পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে সুন্দরবনে শুভেন্দু অধিকারী   

শুক্রবার থেকেই শুরু ভরা কোটাল । তার আগে সুন্দরবনের নদী বাঁধগুলির অবস্থা খতিয়ে দেখলেন রাজ্যের সেচ মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী ।

  • Share this:

#পাথরপ্রতিমা: শুক্রবার থেকেই শুরু ভরা কোটাল । তার আগে সুন্দরবনের নদী বাঁধগুলির অবস্থা খতিয়ে দেখলেন রাজ্যের সেচ মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী । এদিন পাথরপ্রতিমার একাধিক এলাকা লঞ্চে করে ঘুরে দেখেন তিনি ।

দুই সপ্তাহ আগেই আমফান ঘূর্ণিঝড়ের দাপটে সুন্দরবন এলাকার বিভিন্ন জায়গার নদী বাঁধ ভীষণ রকম ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে । বিশেষ করে পাথরপ্রতিমা এলাকায় নদী বাঁধের অবস্থা ভীষণ খারাপ । শুক্রবার ভরা কোটালের সময় ফের জোয়ারের জল ঢুকতে পারে গ্রামে । বিশেষ করে নদী তীরবর্তী এলাকার যে সমস্ত গ্রামগুলি রয়েছে সেখানে । এই পরিস্থিতিতে নদী বাঁধ জোড়ার কাজ কেমন হচ্ছে, কতটা অগ্রগতি হয়েছে তা খতিয়ে দেখার জন্যে পাথরপ্রতিমা পৌঁছন সেচমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী । তাঁর সঙ্গে ছিলেন সুন্দরবন জেলার পুলিশ সুপার বৈভব তিওয়ারি ও পাথরপ্রতিমার বিধায়ক সমীর কুমার জানা ।

এদিন গোবদিয়া, বিদ্যাধরী নদী এলাকার বিভিন্ন গ্রামের অবস্থা খতিয়ে দেখেন তিনি । বহু জায়গায় দেখা গিয়েছে, নদীর পাড় ভেঙে বেরিয়ে গিয়েছে । নদীর পাড়ের মাটি ভেঙে চলে এসেছে । বেশ কতকগুলি জায়গায় কংক্রিটের বাঁধ ভেঙে গিয়েছে । এদিন মন্ত্রী সেচ দফতরের আধিকারিকদের জানিয়ে দিয়েছেন অত্যন্ত দ্রুত বাঁধ মেরামতির কাজ করতে হবে । যে সমস্ত জায়গায় পাকাপাকি ভাবে এই কাজ করতে সময় লাগবে সেখানে অস্থায়ী ভাবেও যে কাজ করা হচ্ছে তা যেন মজবুত হয় ।

শুক্রবার থেকে ভরা কোটাল শুরু হচ্ছে । গ্রামবাসীরা ভয়ে রয়েছে যদি আবার নতুন করে জল ঢোকে তাহলে তাদের অবস্থা আরও খারাপ হবে । একাধিক জায়গায় নদীর পাড়ে বাঁধ মেরামতির কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে । জেসিবি , ড্রেজিং এনে মাটির ক্ষয় আটকানোর চেষ্টা, বাঁধ মেরামতির চেষ্টা চলছে । সেই কাজ কিছু দিনের মধ্যেই শেষ করা যাবে বলে জানিয়েছেন আধিকারিকরা । নদীর জল বাড়তে শুরু করায় উত্তর গোপালনগর, গোবিন্দপুরের মতো গ্রামের বাসিন্দারা রীতিমতো দুশ্চিন্তায় । গ্রামের বাসিন্দা দিলীপ মন্ডল জানালেন, " চাষের জমি নোনা জল ঢুকে নষ্ট হয়ে গিয়েছে । ভয়ে আছি আবার ক্ষতি না হয় ।" অপর বাসিন্দা ভীম চরণ দাস বলেন, "নদী বাঁধ হচ্ছে হবে শুনে আসছি।  মন্ত্রী নিজে এসে দেখে গেলেন । আশা করি এবার সমস্যা মিটবে ।"

ABIR GHOSHAL

Published by: Shubhagata Dey
First published: June 4, 2020, 5:29 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर