• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • বিধিনিষেধে আরও কড়াকড়ি, করোনা মোকাবিলায় মাইকে প্রচার শুরু বর্ধমানে

বিধিনিষেধে আরও কড়াকড়ি, করোনা মোকাবিলায় মাইকে প্রচার শুরু বর্ধমানে

করোনা সংক্রমণ রুখতে বর্ধমানে বিধি-নিষেধে আরও কড়াকড়ি করল প্রশাসন

করোনা সংক্রমণ রুখতে বর্ধমানে বিধি-নিষেধে আরও কড়াকড়ি করল প্রশাসন

করোনা সংক্রমণ রুখতে বর্ধমানে বিধি-নিষেধে আরও কড়াকড়ি করল প্রশাসন

  • Share this:

#বর্ধমান: করোনা সংক্রমণ রুখতে বর্ধমানে বিধি-নিষেধে আরও কড়াকড়ি করল প্রশাসন। এই বিষয়ে মঙ্গলবার একগুচ্ছ নির্দেশিকা জারি করেছে প্রশাসন। বর্ধমান পুলিশের উদ্যোগে শহরজুড়ে মাইকে প্রচার শুরু হয়েছে।এবার থেকে বৃহস্পতি ও রবিবার বর্ধমান শহরে সব দোকান বাজার বন্ধ থাকবে। তবে কিছু সময়ের জন্য মিষ্টির দোকান খোলা থাকবে।

করোনা সংক্রমণ রুখতেই বিধিনিষেধের এই কড়াকড়ি বলে জানিয়েছে প্রশাসন। সোমবার বিকেলে বৈঠকে বসে প্রশাসন। সেই বৈঠকে পুলিশ ও পুরসভার প্রতিনিধিরা ছাড়াও বিভিন্ন ব্যবসায়ী সংগঠনের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। সেখানেই বিধিনিষেধ আরও কড়াকড়ি করার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হয়। আগামিকাল বুধবার থেকে নয়া বিধি-নিষেধ কার্যকর করা হবে বলে জেলা প্রশাসন জানিয়েছে।

আরও পড়ুন: প্রেমে প্রত্যাখ্যাত, মহিলাকে জীবন্ত পুড়িয়ে খুন, অভিযুক্তকে সাজা শোনাল বীরভূম আদালত

করোনা মোকাবিলায় এর আগে রবিবার সব দোকানপাট বন্ধ রাখা ছাড়া সপ্তাহের বাকি ৬ দিনের মধ্যে ৩ দিন দোকান বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছিল জেলা প্রশাসন। সেই সঙ্গে মার্কেট কমপ্লেক্সগুলিতে জোড়-বিজোড় পদ্ধতিতে দোকান খোলা রাখার ব্যাপারে নির্দেশ জারি হয়েছিল। সেই নির্দেশ পরিবর্তন করে বৃহস্পতি ও রবিবার শহরের সব দোকান বন্ধ রাখার নতুন নির্দেশ জারি করতে চলেছে জেলা প্রশাসন। এর পাশাপাশি বুধবার থেকে আগামী সাতদিন শহরের সব চায়ের দোকান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে রাস্তার ধারের খাবারের দোকান, ফাস্ট ফুডের দোকান টানা সাতদিন বন্ধ রাখা হবে। নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছে বাজার খোলা বন্ধের সময়ও। পাইকারি সবজি ও মাছ বাজার ভোর পাঁচটা থেকে আটটা পর্যন্ত খোলা থাকবে। খুচরো সবজি বাজার খোলা থাকবে সকাল আটটা  থেকে বেলা বারোটা পর্যন্ত। সকাল আটটা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত সব দোকান খোলা রাখা যাবে।

আরও পড়ুন: কালনায় রাজ আমলের গোপাল মন্দিরে দুঃসাহসিক চুরি, ব্যাপক চাঞ্চল্য

বর্ধমান শহরে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। প্রতিদিনি দুশো জনের কাছাকাছি বা তার বেশি সংখ্যক বাসিন্দা করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন। করোনার গোষ্ঠী সংক্রমণ রুখতেই এইসব বিধি-নিষেধ বলে জানা গিয়েছে। জেলা প্রশাসনের এক আধিকারিক জানান, মহকুমা শাসকের উপস্থিতিতে ব্যবসায়ী সংগঠনের প্রতিনিধি, পুলিশ, পুরসভা-সহ সংশ্লিষ্ট বিভাগের আধিকারিকদের নিয়ে বৈঠকে বিধিনিষেধ আরও কড়াকড়ি করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার এই বিষয়ে নোটিফিকেশন জারি হল। মঙ্গলবার পুরসভা ও পুলিশের পক্ষ থেকে নয়া বিধি নিষেধের ব্যাপারে শহরজুড়ে মাইকে প্রচার চালানো হচ্ছে।

Published by:Rukmini Mazumder
First published: