জগদ্ধাত্রী পুজোর রীতি, ভদ্রেশ্বরে এগারোজন পুরুষ শাড়ি পরে ঠাকুর বরন করেন

জগদ্ধাত্রী পুজোর রীতি, ভদ্রেশ্বরে এগারোজন পুরুষ শাড়ি পরে ঠাকুর বরন করেন

কিছু রীতি তবু রয়ে যায় যুগ যুগ ধরে। সেই প্রথা আজও মেনে চলেছে তেঁতুলতলা বারোয়ারী।

  • Share this:

#ভদ্রেশ্বর: এগারো জন মহিলা ঘোমটা পরে জগদ্ধাত্রী প্রতিমা বরন করছেন,উলু আর শঙ্খধ্বনিতে মুখরিত হয়ে উঠছে ঠাকুর দালান। এতে নতুনত্বের কিছু নেই।এয়ো স্ত্রীরা ঠাকুর বরন করেন এটাই রীতি সব জায়গায়। তবে ভদ্রেশ্বর তেঁতুলতলায় জগদ্ধাত্রী পুজোয় অংশ নিলেও দশমীর বরনে মেয়েরা থাকে না। যুগযুগ ধরে এই রীতিই চলে আসছে তেঁতুলতলার পুজোয়।

রাজা কৃষ্ণচন্দ্রের দেওয়ান দাতারাম সুরের মেয়ের বাড়িতে গৌরহাটিতে একসময় হতো জগদ্ধাত্রীর আরাধনা। তাদের আর্থিক অবস্থা খারাপ হয়ে যাওয়ায় সেই পুজোই চলে আসে ভদ্রেশ্বর তেঁতুলতলায়। বাড়ির পুজো সার্বজনীন রূপ পায়। সেসময় বাড়ির মেয়েরা পর্দানসিন ছিলেন। বাইরে বেরিয়ে পুজোয় অংশ নিতেন না। কিন্তু প্রতিমা বরন করা মেয়েদের কাজ,সেই কাজ হবে কি করে? বিসর্জনের আগে তাই পুরুষরাই কাপড় পরে মহিলা সেজে বরন করা শুরু করেন।একবিংশ শতকে মহিলারা বিভিন্ন জায়গায় চালিকা শক্তি। মহিলারাই দশভূজা হয়ে সব সামলাচ্ছেন। কিছু রীতি তবু রয়ে যায় যুগ যুগ ধরে। সেই প্রথা আজও মেনে চলেছে তেঁতুলতলা বারোয়ারী।

আরও পড়ুনচন্দননগরে জগদ্ধাত্রী পুজোয় এসে সকলেই চেখে দেখছেন বিশেষ জলভরা সন্দেশ

চন্দননগরের পাশাপশি ভদ্রেশ্বরে ২২৭ বছর ধরে হয়ে আসছে জগদ্ধাত্রী পুজো। তেঁতুলতলার সভাপতি কল্যান মিত্র জানান,বারোয়ারীর সদস্য এগারোজন পুরুষ মহিলাদের কাপড় পরে বরন করেন। যেখানে হাজার হাজার মানুষ সকাল থেকে ভীর করেন মন্ডপে। তেঁতুলতলার পুজো এতটাই জাগ্রাত, মানুষের বিশ্বাস এখানে মানসিক করলে তা পূরন হয়। তাই পুজো দিতে ঢল নামে ভক্তদের। এবার পাঁচ হাজার শাড়ি পরে পুজোতে। তার মধ্যে ১৬০ টা বেনারসি। নবমীতে সাতশ ছাগ বলি হয়। পুজো যত প্রাচীন হচ্ছে মানুষের বিশ্বাসও তেমন বেরে চলেছে।

First published: 04:48:32 PM Nov 07, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर