মেমারিতে চটের বস্তার গোডাউনে অগ্নিকাণ্ড, পুড়ে ছাই লক্ষাধিক টাকার সামগ্রী

মেমারিতে চটের বস্তার গোডাউনে অগ্নিকাণ্ড, পুড়ে ছাই লক্ষাধিক টাকার সামগ্রী

গোডাউন মালিকের সঙ্গে কারও কোনও শত্রুতা ছিল কিনা, প্রতিহিংসা থেকেই কেউ আগুন লাগিয়েছিল কিনা তা জানার চেষ্টা চলছে।

গোডাউন মালিকের সঙ্গে কারও কোনও শত্রুতা ছিল কিনা, প্রতিহিংসা থেকেই কেউ আগুন লাগিয়েছিল কিনা তা জানার চেষ্টা চলছে।

  • Share this:

Saradindu Ghosh

#বর্ধমান: বিধ্বংসী আগুনে পুড়ে গেল চটের বস্তার গোডাউন।পূর্ব বর্ধমান জেলার মেমারিতে বুধবার গভীর রাতে এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। স্থানীয় এক ব্যক্তি আগুন দেখে পুলিশে খবর দেন। মেমারি থানার পুলিশ, দমকল ও স্থানীয় বাসিন্দাদের ঘন্টাখানেকের চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। তবে তার মধ্যেই ওই গোডাউনের বেশিরভাগ সামগ্রী পুড়ে যায়। কেউ বা কারা এই আগুন লাগিয়ে থাকতে পারে বলে সন্দেহ চটের বস্তার গোডাউনের মালিকের। পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।

বুধবার গভীর রাতে পূর্ব বর্ধমানের মেমারি থানার নুদিপুর মোড় এলাকায় ওই পুরনো চটের বস্তা সেলাইয়ের গোডাউনে আগুন লাগে। ওই সময় ওই গোডাউনে কর্মীদের কেউ ছিল না। তাই কোনও প্রাণহানির ঘটনা ঘটেনি। তবে লক্ষাধিক টাকার চটের বস্তা পুড়ে ছাই হয়ে গিয়েছে বলে দাবি করেছেন গোডাউন মালিক উজ্জ্বল সাহানি।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে,রাত পৌনে এগারোটা নাগাদ এক ব্যক্তি কর্মস্থল থেকে বাড়ি ফেরার সময় গোডাউনের ভেতর আগুন দেখতে পান। তিনি আশপাশের বাসিন্দাদের বিষয়টি জানান। স্থানীয় বাসিন্দারা আগুন নেভাতে উদ্যোগী হওয়ার পাশাপাশি তড়িঘড়ি মেমারি থানায় খবর দেন। মেমারি থানার পুলিশ স্থানীয় বাসিন্দাদের সহায়তায় ও দমকল বাহিনীর চেষ্টায় এক ঘন্টা পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।

ওই চটের বস্তার গোডাউনের মালিক জানান, গোডাউনে আগুন লেগেছে বলে স্থানীয়রা ফোন করে খবর দেয়। এসে দেখি দাউ দাউ করে গোডাউন জ্বলছে। তাঁর সন্দেহ, বিদ্যুতের শর্ট সার্কিট থেকে নয়, কেউ ইচ্ছাকৃতভাবে দোকানের পিছনের দিক থেকে আগুন লাগিয়ে দিয়েছে। পাশেই ছিল একটি মিষ্টির দোকান। দোকানের কর্মী ছোটু সেখ রাতে দোকানের ভিতর শুয়ে ছিলেন। স্থানীয়রা তাঁকে ডেকে তোলেন। মেমারি থানার পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, কিভাবে আগুন লাগলো তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ওই গোডাউন মালিকের সঙ্গে কারও কোনও শত্রুতা ছিল কিনা, প্রতিহিংসা থেকেই কেউ আগুন লাগিয়েছিল কিনা তা জানার চেষ্টা চলছে। গোডাউন মালিকের সঙ্গে এ ব্যাপারে বিস্তারিতভাবে কথা বলা হবে। পাশাপাশি গোডাউনের আশপাশে কোনও সিসিটিভি থেকে থাকলে তার ফুটেজ সংগ্রহ করে আগুন লাগার কারণ জানার চেষ্টা চালানো হবে।

Published by:Simli Raha
First published: