আদালতের মধ্যেই হল বিয়ে! বিয়ের পরেই জামিন মঞ্জুর যুবকের

আদালতের মধ্যেই হল বিয়ে! বিয়ের পরেই জামিন মঞ্জুর যুবকের

পক্সো আদালতের স্পেশাল সরকারি আইনজীবি রঞ্জিত গঙ্গোপাধ্যায় জানিয়েছেন, নাবালিকা ও মেয়ের পরিবার রাজি ছিল বলেই বিয়ে হল আদালতেই।

পক্সো আদালতের স্পেশাল সরকারি আইনজীবি রঞ্জিত গঙ্গোপাধ্যায় জানিয়েছেন, নাবালিকা ও মেয়ের পরিবার রাজি ছিল বলেই বিয়ে হল আদালতেই।

  • Share this:

#বীরভূম: আদালতের মধ্যেই চার হাত এক হল৷  বীরভূমের সিউড়ীতে পক্সো আদলতে হল এই বিয়ে। বীরভূমের সিউড়ী লাগোয়া একটি গ্রামের নাবালিকা ওই গ্রামেরই ২৮ বছরের এক যুবকের প্রেমে পড়ে৷  ভালবাসার সম্পর্কের মাঝেই ওই যুবক বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ওই নাবালিকার সঙ্গে সহবাস করে বলে অভি্যোগ ছিল মেয়ের বাড়ির আত্মীয়দের। এরপর 8 মাসের গর্ভবতী হয় ওই নাবালিকা। তবে সেই সময় বিয়ে করবে না বলে জানিয়ে দেয় ওই যুবক। হতাশ হয়ে পড়ে অন্তঃসত্ত্বা নাবালিকা৷ মেয়ের বাড়ির লোকেরা সিউড়ী থানায় সমস্ত ঘটনা জানিয়ে অভিযোগ দায়ের করে।

সিউড়ী থানার পুলিশ অভিযোগের ভিত্তিতে গ্রেফতার করে ওই যুবককে। যেহেতু অন্তঃসত্ত্বা নাবালিকা সেই কারণে এই মামলাটি সিউড়ীর পক্সো আদালতে ওঠে। সেখানেই ওই যুবক নাবালিকাকে বিয়ে করারা আর্জি জানায়। আদালত দুই পক্ষের মতামত জেনে বিয়েতে রাজি হয়। আদালতের মধ্যে ডেকে পাঠানো হয় কাজিকে। আদালতের মধ্যেই ইসলাম মতে হয় বিয়ে। বিয়ের পরেই জামিন মঞ্জুর হয় ওই যুবকের।

আরও পড়ুন ছোট্ট শিশুর গলার নলি কেটে খুন, পাশেই পড়ে মৃত এক যুবকও! ভয়ঙ্কর ছবি

পক্সো আদালতের স্পেশাল সরকারি আইনজীবি রঞ্জিত গঙ্গোপাধ্যায় জানিয়েছেন, নাবালিকা ও মেয়ের পরিবার রাজি ছিল বলেই বিয়ে হল আদালতেই। তবে আগামী দিনে এই নবদম্পতি যাতে সুখে সংসার করে সেটাই কামনা করেছে আদালত। অন্যদিকে আসামী পক্ষের আইনজীবি মানবেন্দ্র মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন যুবক গ্রেফতার হওয়ার পর প্রথমে ছেলে পক্ষই প্রস্তাব দিয়েছিল বিবাহের৷  সেই সমই দুই পক্ষের আলোচনার ভিত্তিতেই সমস্ত কথা আদালতকে জানানো হয়৷  আদালত সব দিক খতিয়ে দেখে বিয়ের প্রস্তাব দেয়৷ সেই মতোই আজ, বুধবার, আদালতের নির্দেশে কাজিকে ডেকে আনা হয় এবং আদালতের মধ্যেই বিয়ে হয়। বিয়ের প্রস্তাব দেওয়াতেই ওই যুবকের জামিন মঞ্জুর করেছে আদালত। এই ঘটনার খুশি মেয়ের বাড়ির পরিবার৷  কারণ অন্তঃসত্ত্বা মেয়ের যে এই ভাবে আদালতের মধ্যে বিয়ে হবে তা তারা ভাবতেও পারেনি।

Published by:Pooja Basu
First published: