Home /News /south-bengal /

East Bardhaman|| ৩ বছর আগে সন্তানের মৃত্যু! জিটি রোডে মৃত ছেলের ছবি লাগালেন বাবা! কারণ জানলে আঁতকে উঠবেন...

East Bardhaman|| ৩ বছর আগে সন্তানের মৃত্যু! জিটি রোডে মৃত ছেলের ছবি লাগালেন বাবা! কারণ জানলে আঁতকে উঠবেন...

জিটি রোডে মৃত ছেলের ছবি লাগালেন বাবা।

জিটি রোডে মৃত ছেলের ছবি লাগালেন বাবা।

Man posted a banner amid GT Road featuring dead sons photo: জিটি রোডের ওপর এক তরুনের ছবি-সহ বিশাল পোস্টার। ছবির পাশে লেখা 'দয়া করে আসতে গাড়ি চালান। এই জায়গাতে অ্যাক্সিডেন্টে আমি আমার ছেলেকে হারিয়েছি।'

  • Share this:

#মেমারি: দুর্ঘটনায় (Road Accident) আর কেউ সন্তান হারাক চান না আবুল সালাম মন্ডল। তিন বছর আগে পথ দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছিল ছেলের। সেই দুর্ঘটনাস্থলেই ছেলের ছবি দিয়ে পোস্টার লাগিলেন তিনি। একটাই চাহিদা, একটু সচেতন হোক সকলে। তাতেই বাঁচবে বহু প্রাণ। তাঁর এই উদ্যোগের পাশে দাঁড়িয়েছে মেমারি (Memari) থানার পুলিশ। এমন অভিনব প্রচেষ্টাকে সাধুবাদ জানাচ্ছেন সকলেই।

পূর্ব বর্ধমানের (East Bandhaman) মেমারির বিনয়পল্লী। এখানেই জিটি রোডের ওপর এক তরুনের ছবি-সহ বিশাল পোস্টার। ছবির পাশে লেখা 'দয়া করে আসতে গাড়ি চালান। এই জায়গাতে অ্যাক্সিডেন্টে আমি আমার ছেলেকে হারিয়েছি।' ছবিটি আমির সোহেল মণ্ডলের। মিষ্টি এই তরুণ এই জায়গাতেই মারা যান তিন বছর আগে। তখন তাঁর বয়স ছিল সাড়ে ২২ বছর।

আরও পড়ুন: সন্ধ্যা প্রদীপ থেকে আগুন লাগল বাড়িতে, ঝলসে গেল কারা! আউশগ্রামে আতঙ্ক

ছেলের সেই মৃত্যুর পর মোটরবাইক নিয়ে ছেলে-মেয়েদের বেপরোয়া চালচলন দেখে বারে বারে আঁতকে ওঠেন তিনি। আবার হয়তো তাঁর মতো কাউকে পুত্রশোক বুকে নিয়ে কাটাতে হবে সারাটা জীবন-এই আশঙ্কা তাড়িয়ে বেড়ায় মেমারির (Memari) তাতারপুরের বাসিন্দা পেশায় ব্যবসায়ী আমির সোহেলের বাবা আবুল সালাম মণ্ডলকে। সেই আশঙ্কা থেকেই মেমারি থানায় গিয়ে ছেলের ছবি ও তাঁর বক্তব্য দিয়ে পোস্টার লাগানোর প্রস্তাব দেন তিনি। সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয় মেমারি থানার পুলিশ। সোমবার সেই পথ সচেতনতার পোস্টার লাগানো হল বিনয়পল্লীতে। আবুল সালাম মণ্ডল বলেন, 'দিনটা ছিল ২০১৮ সালের ৬ অক্টোবর। আমার ছেলে বাইকে রসুলপুর থেকে মেমারিতে বাড়ি ফিরছিল। সে সময় স্থানীয় একজন পুকুরে স্নান সেরে হঠাৎই জিটিরোডে উঠে আসে। সামনে লোক দেখে মোটর বাইকের নিয়ন্ত্রণ হারায় সোহেল। ধাক্কা মারে রাস্তার পাশের লাইট পোস্টে। মৃত্যু হয় তাঁর।'

আরও পড়ুন: নিখোঁজ ব্যক্তিদের খুঁজে দিতেন, সেই পুলিশ কর্মীর দেহ এক মাস বেনামী লাশ হয়ে পড়ে থাকল মর্গে!

তিনি আরও বলেন, 'আমি চাই বেপরোয়া বাইক চালানো ছেলেমেয়েরা এই পোস্টার দেখুক। আমির সোহেলের পরিণতির কথা ভেবে তারা একটু সচেতন হোক।' জিটি রোডের পাশেই বাড়ি অনুকূল রায়ের। তিনি বলেন, 'ছেলেমেয়েরা দিনভর বেপরোয়াভাবে বাইক নিয়ে ছুটছে। বেপরোয়াভাবে ছুটছে লরি ও অন্যান্য যানবাহন। দুর্ঘটনাও ঘটছে হামেশাই। তাই আবুল সালাম মণ্ডল খুবই ভাল উদ্যোগ নিয়েছেন। এই পোস্টার দেখে গাড়ি মোটরসাইকেল চালকরা সচেতন হলে উপকৃত হবেন সকলেই।'

Saradindu Ghosh

Published by:Shubhagata Dey
First published:

Tags: Accident, East Bardhaman

পরবর্তী খবর