আনন্দ করতে গিয়ে প্রাণ গেল যুবকের! পিকনিক করতে গিয়ে দামোদরে তলিয়ে গেল যুবক

আনন্দ করতে গিয়ে প্রাণ গেল যুবকের! পিকনিক করতে গিয়ে দামোদরে তলিয়ে গেল যুবক

সকলে স্নান সেড়ে উঠে গেলেও ওই যুবক যে ওঠেনি তা জানা যায় বেশ কিছুক্ষণ পর। এরপর দীর্ঘ খোঁজাখুঁজির পর সন্ধ্যায় মৃতদেহ উদ্ধার হয়।

সকলে স্নান সেড়ে উঠে গেলেও ওই যুবক যে ওঠেনি তা জানা যায় বেশ কিছুক্ষণ পর। এরপর দীর্ঘ খোঁজাখুঁজির পর সন্ধ্যায় মৃতদেহ উদ্ধার হয়।

  • Share this:

#পূর্ব বর্ধমান: পূর্ব বর্ধমানের মেমারির পাল্লা রোডে পিকনিক করতে এসে দামোদরে স্নান করতে নেমে জলে তলিয়ে মৃত্যু হল এক যুবকের। মৃত যুবকের নাম রঞ্জন বর্মন, তার বয়স ২২ বছর। বাড়ি হুগলি জেলার রিষড়া এলাকায়। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। অন্যান্যদের সঙ্গে পিকনিকের ফাঁকে দামোদরের স্নান করতে নেমেছিল ওই যুবক। সকলে স্নান সেড়ে উঠে গেলেও ওই যুবক যে ওঠেনি তা জানা যায় বেশ কিছুক্ষণ পর। এরপর দীর্ঘ খোঁজাখুঁজির পর সন্ধ্যায় মৃতদেহ উদ্ধার হয়।

বছরের শুরুতে এখন পিকনিকের মরশুম চলছে। প্রতিদিনই দল বেঁধে অনেকেই দামোদরের তীরে পিকনিক করতে আসছেন। অনেকে অতি উৎসাহে দামোদরের গভীরে গিয়ে বিপদ ডেকে আনছেন। রবিবার তেমনই ঘটনা ঘটল। হুগলির রিষড়া থেকে ২৪ জনের একটি দল পিকনিক করতে এসেছিল পূর্ব বর্ধমানের মেমারির পাল্লা রোড ক্যাম্প এলাকায়। বেলা এগারোটা নাগাদ পৌঁছয় তারা। সকালের খাওয়াদাওয়ার পর কয়েকজন দামোদরে স্নান করতে যায়। সেই দলেই ছিলেন রঞ্জন। বন্ধুদের সঙ্গে জলে নামেন তিনি। দেড়টা নাগাদ বাকিরা সবাই উঠে আসে। খেতে বসার সময় খোঁজ পড়ে রঞ্জনের। তিনি যে স্নান করতে নেমে আর উঠে আসেনি বোঝা যায় তখন।

তাকে দেখতে না পেয়ে সবাই খোঁজাখুজি শুরু করেন। তখনই খেয়াল হয় রঞ্জন স্নান সেড়ে নদী থেকে উঠে আসেননি। অভিযোগ, বাকি বন্ধুরা পুলিশের কাছে বা স্থানীয় কাউকে কিছু না জানিয়ে সবাই মিলেই খোঁজাখুজি করতে থাকেন। বিকেল পাঁচটা অবধি রঞ্জনের খোঁজ না পেয়ে পুলিশে খবর দেন তারা।

মেমারি থানার পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায়। জাল আনানো হয়। গোটা এলাকা জাল দিয়ে ঘিরে তল্লাশি শুরু হয়। দীর্ঘক্ষণ খোঁজাখুঁজির পর রাত আটটা নাগাদ ওই যুবকের মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। দেহটি উদ্ধারের পরে বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পুলিশ মর্গে ময়না তদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে।একটি অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা দায়ের করে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। তদন্তকারী পুলিশ অফিসারদের সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃত যুবকের সঙ্গীদের সঙ্গে কথা বলে প্রাথমিকভাবে জলে ডুবে মৃত্যু বলেই মনে করা হচ্ছে। ময়না তদন্তের রিপোর্টে সে ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া যাবে।

এলাকার বাসিন্দারা বলছেন,"এর আগেও পিকনিক করতে এসে দামোদর স্নান করতে নেমে একাধিক মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। তাই আমরা পিকনিক করতে আসা বাসিন্দাদের দামোদরের নামতে নিষেধ করি। কারণ অপরিচিতদের পক্ষে কোথায় কতটা গভীরতা বা কোথায় চোরাবালি রয়েছে তা জানার কথা নয়।কিন্তু সেই সব নিষেধাজ্ঞা অমান্য করেই অনেকে দামোদরে নেমে পড়েন। তার জেরেই একটি তরতাজা যুবকের এভাবে মৃত্যু হল।"

Published by:Pooja Basu
First published: