• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • পূর্ণ সিঙ্গুর-বৃত্ত, সিঙ্গুর উৎসবের মঞ্চে তৃপ্ত মমতা

পূর্ণ সিঙ্গুর-বৃত্ত, সিঙ্গুর উৎসবের মঞ্চে তৃপ্ত মমতা

দশ বছর আগে জমি অধিগ্রহণকে কেন্দ্র করে এক আন্দোলনের জন্ম হয়েছিল। জমি ফেরতের আনুষ্ঠানিক প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে, শেষ হল সেই আন্দোলনের বৃত্ত।

দশ বছর আগে জমি অধিগ্রহণকে কেন্দ্র করে এক আন্দোলনের জন্ম হয়েছিল। জমি ফেরতের আনুষ্ঠানিক প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে, শেষ হল সেই আন্দোলনের বৃত্ত।

দশ বছর আগে জমি অধিগ্রহণকে কেন্দ্র করে এক আন্দোলনের জন্ম হয়েছিল। জমি ফেরতের আনুষ্ঠানিক প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে, শেষ হল সেই আন্দোলনের বৃত্ত।

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #সিঙ্গুর: দশ বছর আগে জমি অধিগ্রহণকে কেন্দ্র করে এক আন্দোলনের জন্ম হয়েছিল। জমি ফেরতের আনুষ্ঠানিক প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে, শেষ হল সেই আন্দোলনের বৃত্ত। সিঙ্গুর উৎসবের মঞ্চে তাই স্বভাবতই তৃপ্ত মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেদিনের সহযোদ্ধাদের পাশে পেয়ে কিছুটা যেন আবেগতাড়িত মুখ্যমন্ত্রী। বৃত্তপূরণের মঞ্চে তাই বুকে টেনে নিলেন সহযোদ্ধাদের। যুদ্ধ-জয়ের জন্য কুর্নিশ জানালেন সিঙ্গুরকে।

    আট বছর আগে ছিল লড়াইয়ের মঞ্চ। মাটির অধিকার-মানুষের অধিকার ফিরে পাওয়ার মঞ্চ। লড়াইয়ের মঞ্চে আজ উৎসবের চেহারায়। কারণ যে জমি অধিগ্রহণকে কেন্দ্র করে এক আন্দোলনের জন্ম হয়েছিল, জমি ফেরতের প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে, বৃত্ত সম্পূর্ণ হল সেই আন্দোলনের।

    সিঙ্গুর-উৎসবের মঞ্চে তাই তৃপ্ত মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মেধা পাটেকর, বেচারাম মান্না, রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য থেকে পার্থ চট্টোপাধ্যায়-মুকুল রায়। মঞ্চে মুখ্যমন্ত্রীর পাশেই ছিলেন সেদিনের সহযোদ্ধারা। তাঁদের পাশে পেয়ে আবেগতাড়িত হয়ে পড়েন মমতা। বলেন, আজ বেঁচে থাকতে খুশি হতেন হাজার চুরাশির মা।

    সিঙ্গুর উৎসবের মঞ্চে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আজকের খুশির দিনে মহাশ্বেতা দেবীর কথা মনে পড়ছে ৷ গতকাল থেকে আমি লেখা শুরু করেছি ৷ মহাশ্বেতাদিকে নিয়েই শুরু করেছি ৷ আমার বই খুব তাড়াতাড়ি বেরোবে ৷ আজ মহাশ্বেতাদি বেঁচে থাকলে সবচেয়ে বেশি খুশি হতেন ৷ ’

    আরও পড়ুন

    সিঙ্গুর থেকেই টাটাকে শিল্প গড়ার আহবান মুখ্যমন্ত্রীর, আলিমুদ্দিনে উদাসীন বুদ্ধ

    দশ বছর আগের আন্দোলনকে ফিরে দেখতে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর মুখে বারবার ফিরে এল তাপসী মালিকের কথা। ফিরে এল ছোট্ট পায়েলের কথা। আন্দোলনের সময়ে মায়ের কোলে থাকা বছর দু’য়েকের পায়েলকেও তুলে নিয়ে গিয়েছিল পুলিশ।

    ক্ষতিপূরণের চেক দেওয়ার সময়েই বুকে টেনে নিলেন সরস্বতী পালকে। যিনি সিঙ্গুরের মাতঙ্গিনী নামে পরিচিত। মনে করলেন অনিচ্ছুক কৃষক অখিল দাসের কথাও। যাকে জুটোপেটা করেছিল সিপিআইএমের লোকেরা।

    জমি লক্ষ্মীর প্রতীক। জমি ফিরে পাওয়ায় লক্ষ্মীও ফিরবে বলে আশাবাদী সিঙ্গুরবাসী। সেই আশাকে সম্মান জানিয়েই তাপসী মালিকের মায়ের হাতে লক্ষ্মী ঠাকুর তুলে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী।

    অনুষ্ঠানের মাঝে বৃষ্টি শুরু হওয়ার ঘটনাকে টেনে বক্তব্য শেষে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, আজ কেন বৃষ্টি হল জানেন!  কারণ আজ চেখের জলে আনন্দ উৎসব ৷

     সিঙ্গুর জয়ের প্রধান কারিগর তিনি। তার আন্দোলনেই জমির অধিকার ফিরে পাচ্ছেন সিঙ্গুরবাসী। তবে বৃত্তপূরণের মঞ্চে সিঙ্গুরবাসীকেই সব কৃতিত্বই দিয়ে গেলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

    First published: