• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • MAMATA BANERJEE MAKES IT CLEAR THAT WEST BENGAL IS TARGETTING TO BECOME NUMBER ONE IN INDUSTRIAL INVESTMENT DMG

Mamata Banerjee: তৃতীয় বার ক্ষমতায় এসে লক্ষ্য শিল্পে এক নম্বর হওয়া, পানাগড়ে বোঝালেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

পানাগড়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

এ দিন পানাগড়ে পলিফিল্ম প্রকল্পের উদ্বোধন করার পাশাপাশি একাধিক পুরুলিয়ার রঘুনাথপুরে জঙ্গল সুন্দরী শিল্প পার্কেরও সূচনা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)৷

  • Share this:

#পানাগড়: রাজ্যে তৃতীয় বারের জন্য ক্ষমতায় আসার পর এবার লক্ষ্য শিল্পে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে রাজ্যকে এক নম্বরে নিয়ে যাওয়াই লক্ষ্য মমতা বন্দ্যাপাধ্যায় সরকারের৷ এ দিন পানাগড়ে পলি ফ্লিম কারখানার শিলন্যাস অনুষ্ঠানে গিয়ে নিজেই এ কথা জানালেন মুখ্যমন্ত্রী৷ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, 'রাজ্য ইতিমধ্যেই সামাজিক উন্নয়নমূলক প্রকল্পে এক নম্বরে পৌঁছেছে৷ এবার শিল্পে বিনিয়োগের ক্ষেত্রেও বাংলাকে এক নম্বর হবে৷ এটা আমি কথা দিচ্ছি৷'

এ দিন পানাগড়ে পলিফিল্ম প্রকল্পের উদ্বোধন করার পাশাপাশি একাধিক পুরুলিয়ার রঘুনাথপুরে জঙ্গল সুন্দরী শিল্প পার্কেরও সূচনা করেন মুখ্যমন্ত্রী৷ এর পাশাপাশি দুর্গাপুর, জামুড়িয়া, হাওড়া, জামালপুরের মতো বিভিন্ন জায়গায় বেশ কিছু শিল্প প্রকল্পেরও সূচনা করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, এ দিনই প্রায় ১৫ হাজার কোটি টাকার প্রকল্পের ঘোষণা করা হল যেখানে প্রায় ৫০ হাজার মানুষের কর্মসংস্থান হবে৷ এর পাশাপাশি রঘুনাথপুরে জঙ্গল সুন্দরী শিল্প পার্কেও প্রায় ৭২ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ হচ্ছে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷

ডেউচা পাচোমিতে কয়লা উত্তোলনের কাজ শুরু হলেও লক্ষ লক্ষ মানুষের কর্মসংস্থান হবে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ খুব শিগগিরই ডেউচা পাচোমির কাজ শুরু হবে বলে আশ্বস্ত করেন তিনি৷

এ দিনের বক্তব্যে আগাগোড়াই রাজ্যে শিল্প বান্ধব পরিবেশ গড়ে তোলার বিষয়ে জোর দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ তিনি জানিয়েছেন, নতুন শিল্প গড়ে তোলার ক্ষেত্রে সমস্ত রকমের সমস্যা সমাধানের জন্য একটি হাই পাওয়ার কমিটি গড়া হচ্ছে৷ সেই কমিটিতে মুখ্যমন্ত্রী নিজেও থাকছেন৷ মাসে অন্তত একবার এই কমিটির বৈঠকে তিনি অংশ নেবেন বলে জানিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ কোন প্রকল্পের অনুমোদনের আবেদন কী পর্যায়ে রয়েছে, অনুমোদন দেওয়ার ক্ষেত্রে কী কী বাধা রয়েছে, এসব কিছুই ওই বৈঠকে আলোচনা করা হবে৷ শিল্প দফতরকেও নতুন বিনিয়োগ প্রস্তাব রূপায়ণের ক্ষেত্রে আরও তৎপর হওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷

মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, রাজ্যে শিল্প বিনিয়োগের পরিমাণ আরও বাড়াতে দু'টি নীতি তৈরি করছে রাজ্য সরকার৷ প্রথমটি হল এথানল উৎপাদনে উৎসাহ দিতে নতুন নীতি৷ মুখ্যমন্ত্রী বলেন, 'জৈব জ্বালানি হিসেবে এথানলের ব্যবহার বাড়ছে৷ এথানল পরিবেশ বান্ধব জ্বালানি৷ পেট্রোল , ডিজেলের সঙ্গে মিশিয়ে এথানলকে ব্যবহার করা হচ্ছে৷ জৈব জ্বালানি হিসেবে এথানলের জনপ্রিয়তা বাড়ছে৷ ভাঙা চাল দিয়ে এথানল তৈরি হয়৷ চাষিদের আর কম দামে ভাঙা চাল বিক্রি করতে হবে না৷ রাজ্য ধান উৎপাদনে দেশের মধ্যে এক নম্বর৷ আমরা চাষিদের কাছ থেকে ভাঙা চাল কিনে নিলে তাঁদের আয়ও বাড়বে৷' মুখ্যমন্ত্রী জানান, এথানল উৎপাদন বাড়লে গ্রামগঞ্জেও প্রচুর মানুষের কর্মসংস্থান হবে৷

এর পাশাপাশি ডেটা সেন্টার ইন্ডাস্ট্রি গড়ে তোলা হবে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ রাজ্যে ডেটা হ্যান্ডলিং অ্যান্ড স্টোরেজ হাবও গড়ে তোলা হবে৷ যা বাংলাদেশ, নেপাল, ভুটানের প্রয়োজনও মেটাবে৷ মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, ডেটা সেন্টারগুলি থেকে শিল্প সংক্রান্ত সবরকম সাহায্য করবে রাজ্য সরকার৷ এর ফলে আগামী পাঁচ বছরে বাংলায় ২০ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ হবে৷ অন্তত ২৪ হাজার কর্মসংস্থানও হবে৷

গত দশ বছরে রাজ্যে ১ লক্ষ কোটি টাকারও বেশি বিনিয়োগ হয়েছে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ এর পাশাপাশি বিশ্ব বাংলা শিল্প সম্মেলন থেকে ১৩ লক্ষ কোটি টাকা বিনিয়োগের প্রস্তাব রয়েছে বলে জানিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ আগামী বছর ফের বিশ্ব বাংলা সম্মেলনের প্রস্তুতি শুরু করতেও নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ আগামী দেড় বছরের মধ্যে অন্ডাল বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পরিণত করা হবে বলেও জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, 'দেশে যখন কর্মসংস্থান সঙ্কুচিত হচ্ছে তখন করোনা অতিমারির মধ্যেও বাংলায় ৪০ শতাংশ বিনিয়োগ বেড়েছে৷'

Published by:Debamoy Ghosh
First published: