'যাঁরা লাইনে আছেন তাড়াতাড়ি যান', তৃণমূলে বিদ্রোহীদের স্পষ্ট বার্তা মমতার

'যাঁরা লাইনে আছেন তাড়াতাড়ি যান', তৃণমূলে বিদ্রোহীদের স্পষ্ট বার্তা মমতার
পুরশুড়ার সভায় মমতা৷ Photo-Facebook

  • Share this:

    #পুরশুড়া: যাঁরা দল ছেড়ে বিজেপি-তে যেতে চান, তাঁরা দ্রুত সেই সিদ্ধান্ত নিন৷ এ দিন পুরশুড়ার সভা থেকে সরাসরি দলের বিদ্রোহী নেতানেত্রীদের এই বার্তা দিলেন তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ একই সঙ্গে আত্মবিশ্বাসী মমতা বলেন, 'আমরাই ছিলাম, আমরাই থাকব৷'

    তৃণমূলনেত্রী এ দিন দাবি করেছেন, যাঁরা বিজেপি-তে যাচ্ছেন, তাঁদের কাউকেই আগামী নির্বাচনে তৃণমূল টিকিট দিত না৷ দলত্যাগীদের নিয়ে যে তিনি চিন্তিত নন, শুভেন্দু অধিকারী দল ছাড়ার পর থেকেই তৃণমূলের অন্দরে এবং বাইরেও সেই বার্তা দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ তবে যাঁরা দল ছাড়ছে তাঁদের কাউকে আর ফিরিয়ে নেওয়া হবে না বলেও জানিয়ে দিয়েছেন মমতা৷ যদিও দলত্যাগীর সংখ্যা যেমন তৃণমূলে বাড়ছে, সেরকমই দলের অন্দরে প্রায় প্রতিদিনই বাড়ছে বিদ্রোহের সুর৷ এ দিনও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভায় গরহাজির ছিলেন উত্তরপাড়ার বিধায়ক প্রবীর ঘোষাল৷

    এ দিন পুরশুড়ার সভা থেকে তৃণমূলনেত্রী বলেন, 'যাঁরা লাইন দিয়ে আছেন তাড়াতাড়ি চলে যান৷ ট্রেন ছেড়ে দেবে৷ বাংলা আপনাদের চায় না, তৃণমূল আপনাদের চায় না৷ এখন গিয়ে কী পাবে, নির্বাচনের তো একমাস বাকি৷ তৃণমূল তোমাদের টিকিট দিত না তাই ভয়ে পালিয়ে যাচ্ছ৷ যাঁরা মানুষের জন্য কাজ করেছে তাঁদের তৃণমূল টিকিট দেবে৷ যাঁদের করেনি তাঁদের দেবে না৷' বিজেপি-কে ফের ওয়াশিং মেশিন বলে কটাক্ষ করে মমতা বলেন, 'দু একজন পালিয়ে পালিয়ে যাচ্ছে৷ অনেক টাকা করেছে, ভাবছে টাকাগুলো কোথায় রাখব, বিজেপি-তেই রাখি৷ চোর গুলো যাচ্ছে, আর বিজেপি-র ওয়াশিং মেশিনে স্নান করে নিচ্ছে৷ তবে যাঁরা যাচ্ছে তাঁরা ফিরতে চাইলেও আমরা আর তৃণমূলে নেব না৷ কাকে কাকে নিতে হয় আমরা জানি৷ '


    এ দিন পুরশুড়ার সভা থেকে হুগলি জেলার ১৮টি আসনেই তৃণমূলকে জেতানোর জন্য আবেদন জানান তৃণমূলনেত্রী৷ মমতা বলেন, 'আমাদের কোনও ভুল হয়ে থাকলে আমি নিজে সেটা দেখে নেব৷' হুগলি জেলায় এবার কঠিন লড়াই তৃণমূলের৷ কারণ ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনে হুগলি লোকসভা কেন্দ্রে জয়ী হয়েছিলেন বিজেপি-র লকেট চট্টোপাধ্যায়৷ সিঙ্গুর বিধানসভা কেন্দ্রে পিছিয়ে পড়েছে শাসক দল৷ শুধু তাই নয়, যে পুরশুড়ায় এ দিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সভা করলেন, সেখানেও প্রায় ২৬ হাজার ভোটে পিছিয়ে ছিল তৃণমূল৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: