টাকা দিয়ে ভোট কেনার রুটম্যাপ তৈরি বিজেপির! গ্রামবাংলাকে সতর্ক করলেন মমতা

টাকা দিয়ে ভোট কেনার রুটম্যাপ তৈরি বিজেপির! গ্রামবাংলাকে সতর্ক করলেন মমতা

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

হুইলচেয়ারে বসেই বাঁকুড়ার মেজিয়ায় মঙ্গলবার ভোট প্রচার করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শালতোড়া বিধানসভা এলাকার মেজিয়া হাইস্কুলের মাঠ থেকে এদিন ফের একবার বিজেপিকে কড়া ভাষায় আক্রমণ করলেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা।

  • Share this:

    #মেজিয়া: হুইলচেয়ারে বসেই বাঁকুড়ার মেজিয়ায় মঙ্গলবার ভোট প্রচার করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শালতোড়া বিধানসভা এলাকার মেজিয়া হাইস্কুলের মাঠ থেকে এদিন ফের একবার বিজেপিকে কড়া ভাষায় আক্রমণ করলেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা। নন্দীগ্রামে দুর্ঘটনার পর সোমবার থেকেই প্রচার শুরু করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সোমবার পশ্চিম মেদিনীপুরে তিনটি সভাও করেছেন।

    প্রথমেই অমিত শাহের নাম করে বিজেপির ভোট স্ট্র্যাটেজি নিয়ে কটাক্ষ করেন মমতা। তাঁর কথায়, 'হোম মিনিস্টার কলকাতায় বসে পরিকল্পনা করা করছেন, কাকে গ্রেফতার করা হবে, কাদের পিছনে ইডি-সিবিআই লাগানো হবে। নন্দীগ্রামে যাঁরা আন্দোলন করেছিলেন, তাঁদের বিরুদ্ধে এখন মামলা করা হচ্ছে। সংবাদ মাধ্যম কে চালাচ্ছেন। নির্বাচন কমিশন অমিত শাহ চালাচ্ছেন না তো? আমরা চাই নিরপেক্ষ নির্বাচন হোক। কিন্তু অমিত শাহ নির্বাচন কমিশনের কাজে হস্তক্ষেপ করুক, এটা আমরা কিছুতেই মানব না।'

    মমতার অভিযোগ, ভোট এলেই বাংলার মানুষকে টাকা দিয়ে কেনার চেষ্টা করছে বিজেপি। ২০১৯-এর লোকসভা ভোটেও বাঁকুড়ায় একই কাজ করা হয়েছিল বলে দাবি করেছেন মমতা। এবারের বিধানসভা ভোটে সেই লোকসভা ভোটেরই বদলা নিতে চান তিনি। এদিন মেজিয়া হাইস্কুলের মাঠ থেকে তৃণমূল কর্মী-সমর্থকদের সেই বার্তাই দিয়েছেন মমতা। তাঁর কথায়, 'তুমি বিপদে পড়লে একটা মানুষকে খেতে দাও না, আর ভোটের সময় টাকা দিয়ে দেখবেন ভোট কেনার চেষ্টা করবে। সেই টাকা ওদের টাকা নয়, আপনার টাকা। সেই টাকা দিতে এলে কী করতে হবে, আমি বলব না।'

    এর পাশাপাশি, দেশে ক্রমাগত পেট্রোপণ্যের দাম বৃদ্ধি নিয়ে প্রশ্ন তোলেন মমতা। তৃণমূলনেত্রীর প্রশ্ন, 'আমরা বিনা পয়সায় খাবার দিই, বিনা পয়সায় গ্যাস দেবে না? কেরোসিন, পেট্রোল, ডিজেলের দাম কেন এত বেশি? বিজেপির আমলে হাজার হাজার কারখানা কেন বন্ধ হয়ে যাচ্ছে? বিজেপিকে উত্তর দিতে হবে।' মমতার দাবি, 'বহিরাগত গুন্ডা এনে এ রাজ্যে ভোট করতে দেব না। আমি তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মীদের বলি, আপনারা আগে ১২ ঘণ্টা কাজ করলে এখন ১৮ ঘণ্টা কাজ করুন।'

    Published by:Raima Chakraborty
    First published:

    লেটেস্ট খবর