ভোটের দিন কর্মীদের চা-বিরিয়ানি খেতে নিষেধ মমতার, কেন?

ভোটের দিন কর্মীদের চা-বিরিয়ানি খেতে নিষেধ মমতার, কেন?

ইন্দাসে মমতা।

এদিন বিজেপিকে কেউটে বিষধর সাপের সঙ্গে তুলনা করে কটাক্ষ করেন মমতা। তাঁর কথায়, 'বিজেপি লাউ ডাটা, না হেলেঞ্চা ডাটা। বিজেপি কেউটে সাপ বিষধর। যেখানে ঢুকবে ছোবল মারবে।'

  • Share this:

    #ইন্দাস: সোমবারও ম্যারাথন ভোট প্রচারে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বাঁকুড়ার কোতলপুরে সভা করার পর ইন্দাসে এদিন প্রচার করেন তৃণমূল সুপ্রিমো। সভার শুরু থেকেই এদিন বিজেপিকে আক্রমণ শুরু করেন মমতা। তাঁর অভিযোগ, 'বিজেপি ভাবছে, মমতার পা ভেঙে দিলাম। ও কিছু করতে পারবে না। বাড়িতে বসে থাকবে। ওরা আমাকে চেনে না। আমি ভাঙি তা-ই মচকাই না। যতক্ষণ শ্বাস থাকবে মা-মাটি -মানুষের কাজ ছাড়া অন্য কোনও কাজ করতে দেব না। আর মানুষের সঙ্গে থেকে যাঁরা কাজ করছেন, তাঁদেরও কাজ করতে হবে না হলে আমার সঙ্গে সম্পর্ক থাকবে না।'

    এদিন বিজেপিকে কেউটে বিষধর সাপের সঙ্গে তুলনা করে কটাক্ষ করেন মমতা। তাঁর কথায়, 'বিজেপি লাউ ডাটা, না হেলেঞ্চা ডাটা। বিজেপি কেউটে সাপ বিষধর। যেখানে ঢুকবে ছোবল মারবে।' এদিন ভোটের সময় ফের কর্মীদের সতর্ক করেন মমতা। বিজেপির দিকে আঙুল তুলে মমতার আশঙ্কা, খাবারে ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে খাবার দেবে বিজেপি। হবে ভোটলুঠের চেষ্টা। মমতার দাবি, 'অনেক পুলিশ বিজেপির হয়ে কাজ করবে। অনেক দিল্লির পুলিশ আসবে। বিরিয়ানি, চা খাবেন না দিলে। ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে দেবে। কোনও লোভ করে এক মাস অন্য কিছু খাওয়া যাবে না।'

    মমতার আশ্বাস, 'বাংলা বাংলাই থাকবে। রবীন্দ্রনাথ নজরুল থেকে কেড়ে নেওয়া যাবে না। বহিরাগতদের গুন্ডাদের রাজনৈতিক বিদায় দিন। এবার জঙ্গলমহল শুধুই জোড়া ফুল।' ইন্দাসের কর্মী-সমর্থকদের উজ্জীবিত করতে মমতার কথা, 'আপনারা আগেও আমায় সমর্থন করেছেন। দু'বছর আগে মিথ্যা কথা বলে ওরা আমাদের হারিয়ে দিয়েছে। বাংলা বাংলাতে থাক এটা আপনাদের মনে রাখতে হবে। বহিরাগতদের ঢুকতে দেবেন না। তার পর বলবে মারাংবুরু পুজো করা যাবে না। পোশাক পড়া যাবে না। আদিবাসীদের নিয়ে কাজ করতে হবে। আদিবাসীদের নিয়ে একটা কমিশন হবে। সবাইকে নিয়ে একসাথে চলতে হবে। যতক্ষণ বাঁচব মা মাটি মানুষের কাজ ছাড়া কিছু করব না। নীচু তলার মানুষকেও সেই কাজ করতে হবে। না হলে আমার সাথে সম্পর্ক থাকবে না।'

    গত আট নয় বছরে অনেক রাস্তা ঘাট তৈরি হয়েছে। ইন্দাসে জলের প্রকল্পও চলেছ। বাঁকুড়ায় প্রায় ২০০০ কোটি টাকার জলের প্রকল্প তৈরি হয়েছে। মাটিসৃষ্টি প্রকল্পও হবে। যে জমিতে ভাল চাষ হয় না সেই জমিগুলিকে সেচের মাধ্যমে ঠিক করার চেষ্টা করা হচ্ছে। ২৫ হাজার হেক্টর জমিতে এই কাজ হচ্ছে। প্রচুর ছেলে মেয়ে কাজ পাবেন। অনেকের চাকরি হবে। জানালেন মমতা।

    Published by:Raima Chakraborty
    First published: