corona virus btn
corona virus btn
Loading

মহিষাদলে ইঞ্জিনিয়রের মৃত্যুর ঘটনায় খুনের অভিযোগ দায়ের করল পুলিশ

মহিষাদলে ইঞ্জিনিয়রের মৃত্যুর ঘটনায় খুনের অভিযোগ দায়ের করল পুলিশ
অবশেষে পরিচয় মিলল গেঁওখালি নদীর তীরে উদ্ধার হওয়া ব্যক্তির

অবশেষে পরিচয় মিলল গেঁওখালি নদীর তীরে উদ্ধার হওয়া ব্যক্তির

  • Share this:

#মহিষাদল: মহিষাদলের ইঞ্জিনিয়রের মৃত্যুর ঘটনায় খুনের অভিযোগ দায়ের করল পুলিশ৷ ব্যবসা সংক্রান্ত কারনেই খুন বলে প্রাথমিক সন্দেহ পুলিশের ৷ হলদিয়ার এক ব্যবসায়ী প্রাইম টার্গেট পুলিশের৷ অবশেষে পরিচয় মিলল গেঁওখালি নদীর তীরে উদ্ধার হওয়া ব্যক্তির ৷ পেশায় ইঞ্জিনিয়ার ওই  ব্যক্তির নাম মৃগাঙ্ক মন্ডল ৷ ৪৬ বছরের মৃগাঙ্কর বাড়ি পূর্ব মেদিনীপুরের তমলুক থানার ডুমরা গ্রামে৷ পুলিশ সূত্রে খবর, হলদিয়া যাওয়ার জন্য বাড়ি থেকে বেরিয়ে গত ১১ জানুয়ারি শনিবার নিখোঁজ হয়ে যান মৃগাঙ্ক মন্ডল৷ খোঁজ না পেয়ে ওই দিনই তমলুক থানায় অভিযোগ জানিয়েছিলেন তাঁর পরিবার।

গত ১৩ জানুয়ারি  সোমবার মহিষাদলের গেঁওখালির কাছে রূপনারায়ন নদের তীর থেকে এক ব্যক্তির দেহ উদ্ধার করে মহিষাদল থানার পুলিশ। পায়ে নাইলনের দড়ি বাঁধা ও দগ্ধ অবস্থায় উদ্ধার হয় ওই মৃতদেহ ৷ তখনও মৃত  ব্যক্তির পরিচয় জানতে পারেনি পুলিশ৷ সোমবার অজ্রাতপরিচয় ওই ব্যক্তির মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য তমলুক জেলা হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়। তমলুক থানায় মৃগাঙ্কের নিখোঁজ হওয়ার অভিযোগের খবর পায় মহিষাদল থানার পুলিশ৷ গেঁওখালিতে উদ্ধার হওয়া মৃতদেহটি মৃগাঙ্কের কি না তা শনাক্ত করতে ডাকা হয় পরিবারকে৷ তমলুক হাসপাতালের মর্গে গিয়ে মৃতদেহ দেখে তা মৃগাঙ্কর বলে দাবি করেন ভাই পিন্টু মন্ডল৷ পিন্টুর অভিযোগ, তাঁর দাদাকে খুন করা হয়েছে। খুনের অভিযোগ তুলেছেন হলদিয়ার এক ঠিকাদারের বিরুদ্ধে। পাওনা টাকাপয়সা নিয়ে বিরোধের জেরেই দাদা মৃগাঙ্ককে পরিকল্পিত ভাবে খুন করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে মৃতের ভাই। মহিষাদল থানার পুলিশ ইঞ্জিনিয়রের মৃত্যুর তদন্ত শুরু করেছে৷ খুনের ঘটনার মামলা দায়েের করে এগোচ্ছে পুলিশ ৷

Sujit Bhowmik

Published by: Ananya Chakraborty
First published: January 22, 2020, 10:36 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर