মাটির গানকে সঙ্গী করে বর্ধমানের শুরু হল মাঘ উৎসব

মাটির গানকে সঙ্গী করে বর্ধমানের শুরু হল মাঘ উৎসব
অন্যান্য বারের মতো এবারের মাঘ উৎসবে রবীন্দ্র সঙ্গীত, নজরুল গীতি তো থাকছেই, থাকছে লোকগীতির জমজমাট আসর।

অন্যান্য বারের মতো এবারের মাঘ উৎসবে রবীন্দ্র সঙ্গীত, নজরুল গীতি তো থাকছেই, থাকছে লোকগীতির জমজমাট আসর।

  • Share this:

#বর্ধমান: শিকড়ের টানে মাটির গানে। এই স্লোগানকে সামনে রেখে শনিবার বর্ধমান শহরের টাউন হল ময়দানে শুরু হলো বর্ধমান মাঘ উৎসব। ২২ জানুয়ারি পর্যন্ত সাতদিনের এই উৎসব চলবে। নিউ নর্মালের এই উৎসবে প্রতিদিনই থাকছে নানান সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। কলকাতার নামি শিল্পীদের সঙ্গে মঞ্চ ভাগ করে নিচ্ছেন স্থানীয় শিল্পীরা। তবে টাউন হল ময়দানে ঢুকতে হচ্ছে মাস্ক বা ফেস কভারে মুখ ঢেকে স্যানিটাইজার টানেল পার হয়ে।

অন্যান্য বারের মতো এবারের মাঘ উৎসবে রবীন্দ্র সঙ্গীত, নজরুল গীতি তো থাকছেই, থাকছে লোকগীতির জমজমাট আসর। থাকছে নৃত্য, আবৃত্তি, শ্রুতি নাটকও। ১৭ জানুয়ারি রবিবার সন্ধ্যায় কীর্তন ও ভক্তিগীতি পরিবেশন করবেন অদিতি মুন্সি। ১৮ জানুয়ারি সোমবার লোকসঙ্গীত ও রবীন্দ্র সঙ্গীত পরিবেশন করবেন স্নিতা প্রামানিক। ১৯ জানুয়ারি মঙ্গলবার বিভিন্ন অঙ্গের লোকগান পরিবেশন করবেন পৌষালী বন্দ্যোপাধ্যায়। ২০ জানুয়ারি বুধবার সঙ্গীত পরিবেশন করবে বাংলা ব্যান্ড দোহার। ২১ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার বিভিন্ন ধারার লোকগান পরিবেশন করবেন তীর্থ ভট্টাচার্য। ২২ জানুয়ারি শুক্রবার উৎসবের শেষ দিনে লোকসঙ্গীত ও দেশাত্মবোধক গান পরিবেশন করবেন পারমিতা।


বর্ধমান মাঘ উৎসব কমিটির সভাপতি পরেশ চন্দ্র সরকার বলেন, করোনা মহামারি এখন কিছুটা কমলেও নিঃশেষ হয়নি। মনুষ্যত্বের প্রবল শক্তি দিয়ে জীবনের বিপর্যয়কে অতিক্রম করতে হয় এই শিক্ষা আমরা এই মহামারি থেকে পেয়েছি। অন্তরের মনুষ্যত্বের শক্তিকে আহ্বান করতে উৎসবের দিনে মানুষ একত্র হয়। এই বার্তাকেই সকলের মধ্যে ছড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা চালানো হচ্ছে এবারের বর্ধমান মাঘ উৎসবে। উৎসব থাকলেও করোনার সতর্কতাও থাকছে। সবাইকে মাস্কে মুখ ঢেকে শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখার ব্যাপারে সচেতন করছে উৎসব কমিটির সদস্যরা। প্রতি বছরই এই শীত মরশুমে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের নানান আসর বসে রাজবাড়ির শহর বর্ধমানে। করোনা পরিস্থিতির কারণে সেসব অনুষ্ঠান আয়োজন করা নিয়ে দ্বিধায় ছিলেন উদ্যোক্তারা। সংক্রমণ অনেকটাই কমে আসায় ধীরে ধীরে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানকে ঘিরে ক্রমশ ক্রমশঃ উৎসবমুখী হয়ে ওঠার পথে বর্ধমান শহর।

SARADINDU GHOSH 

Published by:Piya Banerjee
First published: