দক্ষিণবঙ্গ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

লাগাতার ধর্ষণ করত দাদু! ধর্ষিতা সেই মেয়েকে বিয়ে করে ঘরে তুললেন ছোটবেলার প্রেমিক

লাগাতার ধর্ষণ করত দাদু! ধর্ষিতা সেই মেয়েকে বিয়ে করে ঘরে তুললেন ছোটবেলার প্রেমিক
প্রতীকী চিত্র ।

দাদুর কাছে টানা ছয়দিন ধরে ধর্ষণের শিকার হতে হয়েছিল তাঁকে ৷ ছোট্ট মেয়েটি তখন ষষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রী ৷ ধর্ষিতা সেই মেয়েকে বিয়ে করলেন ছোটবেলার প্রেমিক ।

  • Share this:

#কুলতলি: আজও ভালবাসারা বেঁচে আছে...আজও তাঁরা প্রকৃত প্রেমিক হৃদয়ে তিরতির করে ডানা মেলে । এমন ভালবাসা এই রক্তে-মাংসের পৃথিবীতেই ঘটে । আবার এই পৃথিবীতেই অমর হয়ে যায় । এমন ভালবাসারই নিদর্শন দিলেন দক্ষিণ ২৪ পরগণার কুলতলির বাসিন্দা শুভঙ্কর ও তাঁর প্রেমিকা । কুর্নিশ তাঁদের ।

কুলতলি ব্লকের পশ্চিম গোপালগঞ্জের বাসিন্দা শুভঙ্করের ভালবাসার মানুষটি ৷ কিন্তু গোটা জীবনটা তাঁর বড়ই যন্ত্রণার । ওই যুবতী মাতৃগর্ভে থাকার সময়ই তাঁর বাবা ভিনরাজ্যে বিয়ে করে চলে যায় ৷ জন্মানোর সঙ্গে সঙ্গেই মৃত্যু হয় মায়ের ৷ একমাত্র আশ্রয় ছিল মাসি, দিদা ও দাদু ৷ ছোটবেলা কোনওরকমে কাটলেও মাত্র ১৩ বছর বয়স থেকে লাগাতার যৌন নির্যাতনের শিকার হতে হয়েছিল তাঁকে ৷

২০১৩ সালের ঘটনা ৷ বাড়িতে কেউ না থাকায় দাদুর কাছে টানা ছয়দিন ধরে ধর্ষণের শিকার হতে হয়েছিল তাঁকে ৷ ছোট্ট মেয়েটি তখন ষষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রী ৷ তাঁর স্কুলেরই অষ্টম শ্রেণীর ছাত্র শুভঙ্কর মন্ডলের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে কিশোরী হৃদয় ৷ নিজের উপর অত্যাচারের কথা খুলে জানায় প্রেমিককে ৷ শুভঙ্কর বিষয়টি জানায় একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাকে ৷ তাদের পক্ষ থেকে কুলতলি থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয় ৷ ঘটনার তদন্তে নেমে অভিযুক্ত মানিক জানাকে গ্রেফতার করে পুলিশ ৷

কিন্তু এর পরিণতি হয় আরও মারাত্মক । অভিযোগ করার ‘অপরাধে’ বাড়ি ছাড়তে হয় অসহায় মেয়েটাকে ৷ তাঁকে যৌন পল্লীতে বিক্রি করে দেওয়ারও চেষ্টা করে তাঁর মাসিরা ৷ বিষয়টি জানতে পেরে পুলিশ তাঁকে উদ্ধার করে হোমে পাঠায় ৷ সেখানেই নতুন জীবন শুরু হয় নির্যাতিতা ওই সাহসী কিশোরীর ৷ নতুন করে পড়াশুনাও শুরু করে ৷ ২০১৯ সালে মাধ্যমিক পাশ করে সাহসিনী ৷

ততদিনে স্নাতক হয়ে গিয়েছেন শুভঙ্কর ৷ প্রথমে উপার্জনের জন্য গাড়ি চালানোর কাজ শুরু করলেও পরবর্তীকালে মাছের ব্যবসা শুরু করেন তিনি ৷ একইসঙ্গে ছোটবেলার প্রেমিকার সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখতেন শুভঙ্কর ৷ প্রাপ্তবয়স্ক হলে ওই যুবতী হোম কতৃপক্ষের কাছে বিয়ে করার ইচ্ছে প্রকাশ করেন ৷ পাত্র হিসেবে শুভঙ্করের কথা জানান তিনি ৷ যোগাযোগ করা হয় শুভঙ্কর ও তাঁর পরিবারের সঙ্গে ৷

গত সোমবার কুলতলির পুর্ব গোপালগঞ্জে শুভঙ্করের বাড়িতেই চারহাত এক করা হয় সকলের উপস্থিতিতে ৷ অনেক লড়াই করা, কষ্ট পাওয়া মেয়েটাকে নিজের মেয়ের মতো করেই বাড়িতে তুলেছেন শুভঙ্করের বাবা ও মা ৷ আগামী দিনগুলো একসঙ্গে কাটাতে চান তাঁরা ৷ সুখী হোক তাঁদের পথচলা ।

Published by: Simli Raha
First published: November 7, 2020, 3:29 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर