WB Lockdown: লকডাউনে বন্ধ ব্যবসা, আকণ্ঠ দেনার ডুবে স্ত্রী-ছেলেকে খুন, সোদপুরে আত্মঘাতী ব্যবসায়ী

সোদপুরে ছেলে এবং স্ত্রীকে খুন করে আত্মঘাতী ব্যবসায়ী। প্রতীকী ছবি।

করোনা পরিস্থিতিতে ব্যবসা বন্ধ। ব্যাপক ধারদেনায় ডুবেছিলেন। সোদপুরে ছেলে এবং স্ত্রীকে খুন করে আত্মঘাতী ব্যবসায়ী।

  • Share this:

    #সোদপুরঃ করোনা পরিস্থিতিতে ব্যবসা বন্ধ। ব্যাপক ধারদেনায় ডুবেছিলেন। দেনার দায়ে ছেলে এবং স্ত্রীকে ‘খুন' করে আত্মঘাতী ব্যবসায়ী। শুক্রবার মর্মান্তিক এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে সোদপুরের বসাক বাগান এলাকায়। ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার হয় ব্যবসায়ী সমীর গুহর দেহ। তাঁদের ঘর থেকে একটি সুইসাইড নোট উদ্ধার হয়েছে। সেখানে সম্পত্তি বিক্রি করে দেনা মেটানোর কথা উল্লেখ করেছেন তিনি। স্ত্রী ঝুমা গুহ (৪৮)ও ছেলে বাবাই গুহর (২৩) দেহও উদ্ধার হয় সেই ঘর থেকেই।

    প্রতিবেশীরা জানিয়েছেন, এ দিন সকাল থেকেই এলাকায় পচা গন্ধ পাওয়া যাচ্ছিল। অনেক খোঁজার পরে প্রতিবেশীরা বুঝতে পারেন গুহ বাড়ি থেকেই সেই গন্ধ আসছে। এরপরেই বাড়ি থেকে তাঁদের বেরোতে দেখতে না পাওয়ায় সন্দেহ হয়। খবর দেওয়া হয় পুলিশে। পুলিশ এসে অনেক ধাক্কাধাক্কির পরেও দরজা না খলায় দরজা ভেঙে ফেলে। ভিতরে ঢুকে দেখা যায় ছেলে এবং স্ত্রী মেঝেতে পড়ে রয়েছে রক্তাক্ত অবস্থায়। সেই ঘরের গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মঘাত্বী হয়েছেন সমীর গুহ।

    প্রতিবেশীদের দাবি, বেশ কয়েকদিন ধরে মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন পেশায় পোশাক ব্যবসায়ী সমীর কুমার গুহ। রাজ্যে লকডাউন চলায় ব্যবসা বন্ধ ছিল। ফলে প্রচুর দেনা হয়ে যায় সমীর গুহর। তার ফলে চুপচাপ হয়ে গিয়েছিলেন। বেশ কয়েক দিন ধরে বাইরেও খুব একটা বেরোচ্ছিলেন না। কিন্তু তিনি যে এমন একটা কাণ্ড ঘটিয়ে ফেলতে পারেন। তা কল্পনা করতে পারেননি কেউই।

    পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, এ দিন যে সুইসাইড নোটটি উদ্ধার হয়, তাতে লেখা ছিল, "প্রিয় পার্থ ঘোষ, এই পৃথিবী থেকে আমরা চলে গেলাম। তোকে কিছু দিয়ে গেলাম। আশা করি তুই নিশ্চয়ই করবি। আমার যা কিছু জিনিস আছে দায়িত্ব নিয়ে বিক্রি করে এবং আমি যেভাবে বলে দিচ্ছি সেভাবে টাকা দিয়ে দিবি। আমার যে টাকা বাইরে পড়ে আছে সেটাকা আর নাই বা দিলি।বিদায়"।

    তথ্য সহায়তাঃ অরুণ ঘোষ।

    Published by:Shubhagata Dey
    First published: