প্রাচীরে ফুটে উঠছে শিল্পকলা! কোথাও 'চণ্ডীমঙ্গল' তো কোথাও 'রামায়ণ'-এর গল্প তুলে ধরা হয়েছে, দেখুন

প্রাচীরে ফুটে উঠছে শিল্পকলা! কোথাও 'চণ্ডীমঙ্গল' তো কোথাও 'রামায়ণ'-এর গল্প তুলে ধরা হয়েছে, দেখুন

ব্লক প্রশাসনের কর্তাদের দাবি, পট শিল্প বাংলার একটি ক্ষয়িষ্ণু সংস্কৃতি। যা সময়ের সঙ্গে সঙ্গে আরও হারিয়ে যাচ্ছে। এখন আর সেই অর্থে গ্রামেগঞ্জে পটশিল্পীদের দেখাও মেলে না।

ব্লক প্রশাসনের কর্তাদের দাবি, পট শিল্প বাংলার একটি ক্ষয়িষ্ণু সংস্কৃতি। যা সময়ের সঙ্গে সঙ্গে আরও হারিয়ে যাচ্ছে। এখন আর সেই অর্থে গ্রামেগঞ্জে পটশিল্পীদের দেখাও মেলে না।

  • Share this:

#বীরভূম: কনক্রিটের প্রাচীর যেন হটাৎই হয়ে উঠেছে ক্যানভাস। শিল্পীর রঙিন হাতে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে পটচিত্রের নানান দৃশ্য। কোথাও 'মনসা মঙ্গল' তো কোথাও 'চণ্ডীমঙ্গল'। আবার কোথাও 'রামায়ণ' তো কোথাও 'আদিবাসী সংস্কৃতি'। পট চিত্রের মাধ্যমে  এমনই নানান ছবি ফুটিয়ে তোলা হয়েছে বীরভূমের সিউড়ি ১ ব্লক অফিসের নানান জায়গায়। অফিসের প্রবেশ পথ থেকে শুরু করে সীমান্ত প্রাচীর সব জায়গায়তেই দেখা যাবে এমনই নানান চিত্র।

আসলে ‘পট’ শব্দটি এসেছে সংস্কৃত ‘পট্ট’ কথাটি থেকে। যার অর্থ হল বস্ত্র। চলতি কথায় পট হল কাপড় বা কাগজের উপর বিশিষ্ট ঢঙে আঁকা চিত্র বা চিত্রাবলী। বাংলার বিশিষ্ট লোকসংস্কৃতির অংশ এই চিত্রকথা আজ বিলুপ্তির পথে। বর্তমানে লোকরঞ্জনের জন্য কিংবা লোকশিক্ষার জন্যও পটুয়ারা আর তেমন অপরিহার্য নন।

ব্লক প্রশাসনের কর্তাদের দাবি, পট শিল্প বাংলার একটি ক্ষয়িষ্ণু সংস্কৃতি। যা সময়ের সঙ্গে সঙ্গে আরও হারিয়ে যাচ্ছে। এখন আর সেই অর্থে গ্রামেগঞ্জে পটশিল্পীদের দেখাও মেলে না। আগে এক একটি গ্রামে গেলে প্রচুর খাতির পেতেন পট শিল্পীরা। সঙ্গে জুটত চাল, মূল, কলাও। সম্মান মিলত পটুয়া ঠাকুর হিসাবে। কিন্তু, বর্তমানে আয় ও সম্মান দুই-ই কমে যাওয়ায় অনেকেই পেশা পরিবর্তন করতে বাধ্য হয়েছেন। তাই পট সম্পর্কে মানুষকে আগ্রহী করে তুলতে ব্লক প্রশাসনের এই ভিন্ন পরিকল্পনা। ব্লক প্রশাসনের কর্তাদের দাবি, ব্লক অফিসে হল সংশ্লিষ্ট ব্লকের সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ জায়গা। যেখানে চাষী, দিনমজুর, চাকুরিজীবী থেকে শুরু করে পড়ুয়ারা বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন কাজে এসে থাকেন। সেক্ষেত্র অফিস প্রবেশ পথ থেকে শুরু করে অফিস চত্ত্বরের বিভিন্ন জায়গায় ওই চিত্র চোখে পড়বে সাধারণ মানুষের। স্বাভাবিকভাবেই পট সম্পর্কে মানুষের আগ্রহ বাড়বে। তবে এতে বেশ ভাল সময় কাটছে কাজ নিয়ে ব্লক অফিসে আসা লোক জনের,  কেউ খুঁজছেন আদিবাসী সংংস্কৃতি কেউ খুজছেন পৌরানিক কাহিনীর ছবি।

Published by:Pooja Basu
First published:

লেটেস্ট খবর