বামেদের গান্ধীগিরি, লাঠিচার্জের উত্তরে পুলিশের হাতে লাল গোলাপ তুলে দিল ছাত্র-যুবরা

বামেদের গান্ধীগিরি, লাঠিচার্জের উত্তরে পুলিশের হাতে লাল গোলাপ তুলে দিল ছাত্র-যুবরা

বর্ধমানে পুলিশের হাতে গোলাপ দিচ্ছে বাম ছাত্ররা।

গোলাপ তুলে দেওয়াকে সৌজন্য বলছেন বামফ্রন্ট নেতৃত্ব।

  • Share this:

#বর্ধমান: গতকাল নবান্ন অভিযানে জুটেছিল পুলিশের লাঠির আঘাত। ধেয়ে এসেছিলো জলকামানের জলস্রোত। চোখ জ্বলেছিল কাঁদানে গ্যাসে। এমনটাই অভিযোগ বামেদের। প্রত্যুত্তরে বর্ধমানে পুলিশের হাতে গোলাপ ফুল তুলে দিল বাম কর্মী সমর্থকরা। শুক্রবার বর্ধমানের কার্জন গেটে এমনই ছবি ধরা পড়ল। বাম ছাত্র-যুবরা বলছেন, "গতকাল আমরা মিষ্টির প্যাকেট, লাল কার্ড নিয়ে নবান্নের দিকে গিয়েছিলাম। তার বদলে মিলেছে পুলিশের লাঠির আঘাত। ক্ষতবিক্ষত হতে হয়েছে অনেককেই। তারই প্রতিদানে আমরা পুলিশের হাতে গোলাপ তুলে দিলাম।" এই গোলাপ তুলে দেওয়াকে সৌজন্য বলছেন বামফ্রন্ট নেতৃত্ব। তবে সৌজন্যের রাজনীতির পাশাপাশি পথে নেমে লাগাতার আন্দোলন চলবে বলে জানিয়েছেন তারা।

শুক্রবার বন্ধের সমর্থনে মিছিল করে বামেরা। সিপিএম জেলা নেতাদের পাশাপাশি সেই মিছিলে ছিলেন বামফ্রন্টের অন্যান্য শরিক দলের নেতারাও। ছিলেন ছাত্র-যুবরাও। মিছিল বীরহাটা হয়ে জি টি রোড ধরে কার্জন গেট এসে পৌঁছালে হঠাৎই সেই মিছিল থেকে বাম ছাত্র যুবরা উপস্থিত পুলিশ কর্মীদের হাতে গোলাপ ফুল তুলে দেন। কয়েকজন পুলিশ কর্মী সেই গোলাপ নিতে ইতস্তত করলেও অনেকে আবার সেই গোলাপ হাতে নেন। বাম ছাত্র যুবরা গোলাপ দেওয়ার পাশাপাশি বলেন, আমরা চাকরি চাইতে গিয়েছিলাম। আপনারা আমাদের ওপর লাঠির আঘাত উপহার দিয়েছেন। তারই প্রতিদানে আমরা গোলাপ ফুল তুলে দিলাম।

এ রাজ্যে তৃণমূল সিপিএমের মধ্যে গোপন আঁতাত রয়েছে বলে বিভিন্ন সভায় অভিযোগ তুলছে বিজেপি নেতৃত্ব। পুলিশের হাতে লাল গোলাপ তুলে দেওয়াকে কি বলবেন? প্রশ্নের উত্তরে বামফ্রন্টের জেলা আহবায়ক অমল হালদার বলেন, গোলাপ দেওয়াটা হলো সৌজন্য। আমরা সেই সৌজন্য দেখাচ্ছি। কিন্তু তার বদলে রাজ্য সরকারের নির্দেশে পুলিশ আমাদের ওপর দমন-পীড়ন চালাচ্ছে। গতকালের ঘটনায় পূর্ব বর্ধমান জেলার বহু ছাত্র-যুব আহত হয়েছেন। অনেকে গ্রেপ্তার হয়েছেন। তারই প্রতিবাদে বামফ্রন্ট পথে নেমে বিক্ষোভ দেখাচ্ছে। আমরা সৌজন্য দেখাবো। পাশাপাশি মানুষের বিভিন্ন দাবি-দাওয়া আদায়ের লক্ষ্যে পথে নেমে আন্দোলনও চলবে।

Published by:Arka Deb
First published: