মন্দারমণিতে মৎস্যজীবির জালে উঠল বিরল প্রজাতির বিশালাকায় কচ্ছপ !

Photo: News18 Bangla

মন্দারমণিতে মৎস্যজীবির জালে উঠে এল এক বিশালাকায় কচ্ছপ।

  • Share this:

    #দিঘা, পূর্ব-মেদিনীপুর: মন্দারমণিতে মৎস্যজীবির জালে উঠে এল এক বিশালাকায় কচ্ছপ। বিরল প্রজাতির এই কচ্ছপটিকে দেখতে ভীড় জমান বহু মানুষ। বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, এই কচ্ছপটি আসলে বিরল প্রজাতির "লেদার ব্যাক টার্টল"। পৃথিবীর সব থেকে বড় প্রজাতির কচ্ছপ এই লেদার ব্যাক টার্টল। সাধারণত প্রশান্ত মহাসাগর, অ্যাটলান্টিক মহাসাগরের কিছু এলাকায় এদের বসবাস। জাপানের উপকূলে এই কচ্ছপ প্রচূর দেখা যায়।

    ডিম পাড়ার জন্য এরা জলের স্রোতের সঙ্গে ভেসে আসে নিকোবর দীপপুঞ্জ এলাকায়। এবছরই নিকোবর দীপপুঞ্জে প্রায় ১০ হাজার ডিম পেড়েছে এই কচ্ছপগুলি বলে জানা গিয়েছে। কিন্তু পশ্চিমবাংলার সমুদ্র উপকূলে এই কচ্ছপের পা রাখা সম্ভবত এই প্রথমবার।

    rare tortoise 4

    বিশেষজ্ঞদের মতে, এই প্রজাতির কচ্ছপ বাংলার উপকূলে দেখতে পাওয়ার ঘটনা অত্যন্ত বিস্ময়কর। এর আগে কখনও এমন ঘটনা সামনে আসেনি। সমূদ্রের স্রোতে ভেসে আসার সময় সম্ভবত কিছুটা দিক ভুলেই এই পথে চলে আসা।

    তবে মৎস্যজীবীরা কচ্ছপটিকে প্রাণে মেরে না ফেলে অত্যন্ত যত্ন সহকারে তাঁকে সমূদ্রে ছেড়ে দেওয়ায় গবেষকরা অত্যন্ত খুশি বলেই জানিয়েছেন। মৎস্যজীবিরা জানিয়েছেন, বুধবার রাতে শেখ মান্না নামে এক মৎস্যজীবির জালে উঠে আসে কচ্ছপটি। এরপর তাঁকে একটি চৌবাচ্চা বানিয়ে সমূদ্রের জলে রাতভর রাখা হয়। তবে ভাগ্য সহায়, কচ্ছপটি পুরো দস্তুর সুস্থ ছিল। পরে বৃহস্পতিবার মৎস্যজীবিরা কচ্ছপটিকে সমূদ্রে ছেড়ে দেন। সেই সময় কচ্ছপটির গায়ে সিঁদুর মাখিয়ে তাঁকে পূজোও করা হয়।

    এই কারনেই বৃহস্পতিবার কচ্ছপটিকে পুনরায় গভীর সমুদ্রে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলে মৎস্যজীবিরা জানিয়েছেন।

    First published: