জলাশয় বাঁচাতে পূর্বস্থলীতে খাল বিল, চুনো মাছ উৎসব

জলাশয় বাঁচাতে পূর্বস্থলীতে খাল বিল, চুনো মাছ উৎসব

উৎসব, তবে তা খাল বিলের জন্য। উৎসব জলাশয়ের চুনো পুটি মাছের নামে। উৎসব পিঠে পায়েসের। সব মিলিয়ে খাল বিল চুনো মাছ পিঠে পুলি উৎসব।

  • Share this:

Saradindu Ghosh

#বর্ধমান: উৎসব, তবে তা খাল বিলের জন্য। উৎসব জলাশয়ের চুনো পুটি মাছের নামে। উৎসব পিঠে পায়েসের। সব মিলিয়ে খাল বিল চুনো মাছ পিঠে পুলি উৎসব। এমনই উৎসব চলছে পূর্ব বর্ধমানের পূর্বস্থলীর বিদ্যানগরে।

দিনে দিনে দুর্মূল্য হয়ে উঠছে মাটির তলার জল। অপরিকল্পিতভাবে জল তুলে নেওয়ার ফলে দিন দিন মাটির তলার জলস্তর নেমে যাচ্ছে। দেখা দিচ্ছে পানীয় জলের তীব্র হাহাকার। তার হাত ধরে আসছে আর্সেনিকের প্রকোপ। ধীরে ধীরে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ছেন আর্সেনিক আক্রান্তরা। পূর্ব বর্ধমান জেলার মধ্যে এই পূর্বস্থলীতেই আর্সেনিক আক্রান্তের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। এলাকার বাসিন্দাদের জল ও জলাশয় বাঁচানোর ব্যাপারে সচেতন করতেই বেশ কয়েক বছর আগে শুরু হয়েছিল এই খাল বিল চুনো মাছ পিঠে পুলি উত্সব। মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ এই অনুষ্ঠানের মূল উদ্যোক্তা।

এলাকার দুটি বিশাল জলাশয় বাঁশদহ ও চাঁদের বিলকে কেন্দ্র করে বড়দিনে উৎসবে মেতে উঠলেন বাসিন্দারা। জলাশয় গ্রাম বাংলার বিশেষ সম্পদ। তাকে রক্ষনাবেক্ষন ও সংস্কার করলে মাছ চাষ থেকে কৃষিতে জলসেচ সব সুবিধাই মিলতে পারে। প্রায় মজে যাওয়া সেই জলাশয় দুটিকে সংস্কার করে শুরু হয়েছিল উত্সব। এলাকার বাসিন্দা মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ বললেন, খাল বিল পুকুর ডোবা চুনো মাছের আঁতুড়ঘর। রাসায়নিকের প্রভাবে সেই চুনো মাছ, জিওল মাছ আজ হারিয়ে যাচ্ছে। জলাশয় সংস্কারের সঙ্গে সঙ্গে ফিরে এসেছে এইসব মাছ। সেই মাছ ধরে অনেকে জীবিকা নির্বাহ করছেন। এই উৎসবে মৎস্য দফতরের সহযোগিতায় মাছও ছাড়া হয়। এলাকার জলাশয় ও পরিবেশ বাঁচানোর লক্ষ্যকে সামনে রেখেই ১৯ বছর ধরে আয়োজিত হচ্ছে এই উৎসব।

1460_5e0314a37e683_KHAL BIL UTSAB 1

জলাশয়কে সুন্দর করে সাজালে তা অন্যতম আকর্ষনীয় গ্রামীণ পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে উঠতে পারে তার প্রমাণ আজকের এই বাঁশদহ বিল। এখানে গড়ে উঠেছে অতিথি নিবাস। শহুরে কোলাহল থেকে দূরে নির্জন নিরিবিলিতে রাত কাটাতে অনেকেই আসেন এখানে।

সুন্দর সাজানো জলাশয়ে নৌবিহারের ব্যবস্থা তো রয়েছেই, সেই সঙ্গে রয়েছে উৎসবে চুনো মাছ, পিঠে পুলি, খেঁজুর গুড়ে রসনা পরিতৃপ্ত করার সুযোগও। রয়েছে বাউল থেকে শুরু করে বিভিন্ন লোকগীতি, রনপা, রায়বেশে, ছৌ নাচ-সহ বাংলার চিরায়ত লোক সংস্কৃতির মাধ্যমে মনোরঞ্জনের ব্যবস্থাও।

First published: 02:01:27 PM Dec 25, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर