চোখ উপড়ে নৃশংস ভাবে খুন করা হল তৃণমূলের অঞ্চল সভাপতিকে, বিজেপির বিরুদ্ধে অভিযোগ বিক্ষোভ কর্মীদের– News18 Bengali

চোখ উপড়ে নৃশংস ভাবে খুন করা হল তৃণমূলের অঞ্চল সভাপতিকে, বিজেপির বিরুদ্ধে অভিযোগ বিক্ষোভ কর্মীদের

রাতে দলীয় বৈঠক সেরে ফেরার পথে নৃশংস ভাবে কুপিয়ে খুন করা হল তৃণমূলের এক অঞ্চল সভাপতিকে ৷

Akash Misra | News18 Bangla
Updated:Dec 13, 2017 08:08 PM IST
চোখ উপড়ে নৃশংস ভাবে খুন করা হল তৃণমূলের অঞ্চল সভাপতিকে, বিজেপির বিরুদ্ধে অভিযোগ বিক্ষোভ কর্মীদের
Akash Misra | News18 Bangla
Updated:Dec 13, 2017 08:08 PM IST

#কেশিয়াড়ীঃ রাতে দলীয় বৈঠক সেরে ফেরার পথে নৃশংস ভাবে কুপিয়ে খুন করা হল তৃণমূলের এক অঞ্চল সভাপতিকে ৷ চোখ উপড়ে ,কুপিয়ে খুন করে রাস্তার পাশে ফেলে পালিয়ে যায় দুষ্কৃতিরা ৷ বুধবার সকালে রাস্তার পাশে সেই রক্তাক্ত দেহ দেখে পুলিশে খবর দেন স্থানীয়রা ৷ এই ঘটনা জানাজানি হতেই বিজেপির বিরুদ্ধে অভিযোগ করে উত্তেজনা ছড়ায় এলাকায় ৷ একাধিক স্থানে বিজেপির পতাকা পুড়িয়ে,রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভও দেখায় স্থানীয়রা ৷ অবিলম্বে পদক্ষেপ নেওয়ার দাবিতে থানাতে পুলিশকে ঘিরেও বিক্ষোভ চলে বেশ কিছুক্ষন ৷

ঘটনা পশ্চিম মেদিনীপুরের কেশিয়াড়ী থানার ডাডরা এলাকার ৷ ডাডরা গ্রামের বাসিন্দা মৃত্যুঞ্জয় সাঁতরা ৪৮ (ঝাড়েশ্বর সাঁতরা ) তৃণমূলের স্থানীয় ৬ নং অঞ্চল সভাপতি ৷ মঙ্গলবার রাতে দলীয় বৈঠকে গিয়েছিলেন কেশিয়াড়ীর নচিপুরে ৷ সেখান থেকে মোটরবাইকে করে বাড়িতে ফিরছিলেন রাত সাড়ে আটটা নাগাদ ৷ বা়ড়িতে ফেরার সময় তিনি একাই ছিলেন ৷ স্থানীয়রা জানান -রাস্তায় ফেরার সময় ভসরাঘাট ঢোকার আগে তার ওপরে সশস্ত্র দুষ্কৃতিরা আক্রমনে করেছে ৷ মাথায় অনেক গুলি ধারালো অস্ত্রের কোপ বসানো হয়েছে ৷নৃশংস ভাবে তার চোখ তুলে নেওয়া হয়েছে ৷ এরপরে তাকে ফেলে দেওয়া হয়েছে রাস্তার পাশে জমিতে ৷ সকালে ওই রাস্তা দিয়ে যাওয়ার পথে গ্রামবাসীরা রক্তাক্ত ঝাড়েশ্বর বাবুর দেহটি পড়ে থাকতে দেখেন ৷ তাঁরাই পুলিশকে খবর দিয়ে দেহ উদ্ধার হয়েছে ৷

স্থানীয় বাসিন্দা সহ বেশ কয়েকশ তৃণমূলের কর্মীরা এরপরই কেশিয়াড়ী থানাতে গিয়ে ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন ৷ তাঁদের দাবি অবিলম্বে অভিযুক্ত দের গ্রেফতার করতে হবে ৷ পুলিশকে নিয়ে টাঁনা হেঁচড়াও হয় কিছুক্ষন ৷ তৃণমূলের কর্মীদের দাবি বিজেপির লোকজন এই পরিকল্পিত হামলা করেছে৷ এই অভিযোগ তুলে কেশিয়াড়ীতে বাসস্ট্যান্ডের সামনে বিজেপির পতাকা পুড়িয়ে বিক্ষোভ দেখান তাঁরা ৷ সকাল থেকে সেখানে রাস্তা অবরোধও হয় ৷ বাসস্ট্যান্ড ছাড়াও কেশিয়াড়ীর বিভিন্ন স্থানে একই রকমের অবরোধ চলে দফায় দফায় ৷ বিজেপি অবশ্য অভিযোগ অস্বীকার করেছে ৷ বিজেপি জেলা সভাপতি সমিত দাস বলেন, আমাদের কোনো কর্মী বা কেউই এই কান্ডে নেই ,তৃণমূলের দলীয় কোন্দলেই হয়তো ঘটে থাকতে পারে এমনটি ৷

এবিষয়ে তৃণমূলের জেলা সভাপতি অজিত মাইতি বলেন “ আমাদের ওখানে কোনো গেষ্ঠী নেই,গোষ্ঠী সংঘর্ষের কোনো গল্প নেই ৷ পুরো কান্ডের পেছনে বিজেপি রয়েছে বলেই স্থানীয় কর্মীরা জানিয়েছেন ৷ আমরা পুলিশকে তদন্ত করে দোষীদের গ্রেফতার করার অনুরোধ করেছি ৷”

First published: 08:08:22 PM Dec 13, 2017
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर