corona virus btn
corona virus btn
Loading

সুবিচার পেল নির্ভয়া, 'আমার বোনের খুনিদের ফাঁসি কবে হবে'?- প্রশ্ন কামদুনির নির্যাতিতার দাদার

সুবিচার পেল নির্ভয়া, 'আমার বোনের খুনিদের ফাঁসি কবে হবে'?- প্রশ্ন কামদুনির নির্যাতিতার দাদার
ফাইল ছবি

২০১৩ সালের ৭ জুন কলেজ থেকে বাড়ি ফেরার পথে ধর্ষণ করা হয় কামদুনির বাসিন্দা এক কলেজ ছাত্রীকে।

  • Share this:

#কামদুনিঃ নির্ভয়ার খুনিদের ফাঁসির 'সুখবর' দিয়েই দিনের শুরু করেছে এ রাজ্যের কামদুনি। নির্ভয়া-কাণ্ডের পর কামদুনিতে এক কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণ করে নৃশংসভাবে খুন করা হয়। প্রায় আট বছর পেরোতে চললেও কামদুনির ঘটনায় তিন অভিযুক্তের ফাঁসির আদেশ এখনও কার্যকর হয়নি। তাতেই আক্ষেপ বেড়েছে কামদুনির। যদিও আক্ষেপ বাড়লেও বিচার ব্যবস্থায় আস্থা রাখতে চায় কামদুনি গ্রাম। শুক্রবার ভোরে তিহার জেলে নির্ভয়াকাণ্ডের চার দোষীকে ফাঁসি দেওয়া হয়। কামদুনির নির্যাতিতার পরিবার ভোরবেলায় এই 'সুখবর' শুনে দিন শুরু করেছে। সেই সঙ্গে তাঁদের একতাই প্রশ্ন আট বছর পেরিয়ে গেলেও এখনও নিম্ন আদালতের নির্দেশ হল না কেন? কামদুনির নির্যাতিতার দাদার প্রশ্ন, "দিল্লির মতো কবে আমার বোনের খুনিদেরও ফাঁসির সাজা কবে হবে?"

২০১৩ সালের ৭ জুন কলেজ থেকে বাড়ি ফেরার পথে ধর্ষণ করা হয় কামদুনির বাসিন্দা এক কলেজছাত্রীকে। ধর্ষণ করার পর নৃশংসভাবে খুন করে দেহ লোপাটের চেষ্টা করা হয়। ঘটনার পর সিআইডি তদন্তভার নেয়। ৯ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে। দীর্ঘ বিচার প্রক্রিয়া শেষে ২০১৬-র জানুয়ারি মাসে তিন অভিযুক্তকে ফাঁসির সাজা শোনায় আদালত, তিনজনের যাবজ্জীবনের সাজা শোনানো হয়, একজন অবশ্য জেলে থাকাকালীন মারা যায় এবং বাকি দু'জনকে মুক্তি দেওয়া হয়। প্রায় চার বছর হতে চলল, তিন অভিযুক্তকে ফাঁসির সাজা শোনানো হলেও এখন অবধি তা কার্যকর না হওয়ায় ক্ষোভ পরিবারের।

নির্যাতিতার দাদার বক্তব্য, "আমাদের দাবি এই মামলায় একজন অভিজ্ঞ সরকারি আইনজীবী নিয়োগ করা হোক। মুখ্যমন্ত্রী বিষয়টা দেখুন। না হলে আমার বোন সুবিচার পাবে না"। কামদুনির ঘটনার পর সুবিচারের দাবিতে নেমে পড়েছিল গোটা গ্রাম। আন্দোলনের মুখ হিসেবে সামনে উঠে এসেছিল দুটি নাম। টুম্পা ও মৌসুমী কয়াল। তাঁরাও আজ দিন শুরু করেছে নির্ভয়ার খুনিদের ফাঁসির খবর দিয়েই। তাঁদের আক্ষেপ, যে উদ্দেশ্য নিয়ে তারা এত আন্দোলন করেছেন, তাই এত দিনে পূরণ হল না। অর্থাৎ হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবিতে তাদের সেই আন্দোলন চললেও মেলেনি সুবিচার।

প্রতিবাদী মৌসুমী কয়াল বলেন, "ঘটনায় দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রয়োজন ছিল। আমরা চাইছি যত দ্রুত সম্ভব একই শাস্তি হোক কামদুনির অভিযুক্তদের। মুখ্যমন্ত্রী অভিযুক্তদের ফাঁসির আশ্বাস দিয়েছিলেন, কিন্তু তা পূরণ হলো কই।" আরও এক প্রতিবাদী মুখ টুম্পা কয়ালের বক্তব্য, "সকালে যখন নির্ভয়ার খুনিদের ফাঁসির খবর দেখি তখন একদিকে যেমন খুশি হয়েছিলাম, অন্যদিকে আক্ষেপও বাড়তে থাকে। আমরা তো এখনও সুবিচার পেলাম না। প্রথম থেকেই বিচার ব্যবস্থার উপর আস্থা রেখেছিলাম। কিন্তু সাত বছরের বেশি সময় পেরিয়ে গিয়েছে, ধীরে ধীরে বিচার ব্যবস্থার উপর আস্থা হারাতে চলেছি। তবুও আমরা চাই আমার বান্ধবীকে যারা এভাবে খুন করেছে তাদেরও যেন ফাঁসি হয়।"

কামদুনিতে খুন হওয়া তরুণীর মা-বাবা দুজনেই বর্তমানে স্নায়ুর রোগে ভুগছেন। শয্যাশায়ী না হলেও চলাফেরার ক্ষমতা বেশ খানিকটা কমেছে। তাঁদেরও আক্ষেপ, "বেঁচে থাকতে মেয়ের খুনিদের ফাঁসি দেখতে পাবো তো"?

SUJOY PAL

First published: March 20, 2020, 10:16 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर