corona virus btn
corona virus btn
Loading

দলবল নিয়ে কোথায় গেলেন হাসপাতালের সুপার! সেখানে কী করলেন তিনি?

দলবল নিয়ে কোথায় গেলেন হাসপাতালের সুপার! সেখানে কী করলেন তিনি?

হাসপাতাল সুপার জানালেন, বস্তি এলাকার বাসিন্দাদের মধ্যে সচেতনতা কম। অনেকেই মাস্ক ব্যবহার করছেন না। ছোটরা এক সঙ্গে খেলছে।

  • Share this:

#বর্ধমান: ডাক্তারদের সঙ্গে নিয়ে এলাকায় বেরিয়ে পড়লেন কালনা মহকুমা হাসপাতালের সুপার কৃষ্ণ চন্দ্র বরাই। এলাকার বাসিন্দাদের ধরে ধরে শরীরের তাপমাত্রা মাপলেন। বস্তিবাসীদের মধ্যে মাস্ক বিলোলেন। বোঝালেন কেন মুখ ঢাকতে হবে। সব সময় হাত পরিষ্কার রাখার পরামর্শ দিলেন। সঙ্গে আনা মাস্ক বেঁধে দিলেন বাসিন্দাদের মুখে।

হাসপাতাল সুপার জানালেন, বস্তি এলাকার বাসিন্দাদের মধ্যে সচেতনতা কম। অনেকেই মাস্ক ব্যবহার করছেন না। ছোটরা এক সঙ্গে খেলছে। সামাজিক দূরত্ব বজায় থাকছে না। সবাই সচেতন করছেন। আমরা ডাক্তাররা বোঝালে আরও ভালো। সেই কাজেই হাসপাতালে যাওয়ার পথে বস্তিতে ঘুরে যাওয়া। তিনি কালনা মহকুমা হাসপাতালের সুপার। ইচ্ছে করলে তিনি বাড়ি থেকে হাসপাতাল বা হাসপাতাল থেকে বাড়ি যাতায়াত করতেই পারতেন। তা না করে ডাক্তারদের নিয়ে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে রাস্তায় নেমে পড়েছেন হাসপাতাল সুপার। তাঁদের এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাচ্ছেন সকলেই। এদিন কালনা রেল স্টেশন এলাকা লাগোয়া বস্তিতে যান সুপার। এই এলাকায় সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা হচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠছিল। এই এলাকার বাসিন্দারা যে সচেতন নন তা প্রত্যক্ষ করেন সুপার নিজেও। এলাকার বাসিন্দাদের শরীর খারাপ হলে একমাত্র ভরসা কালনা মহকুমা হাসপাতাল। হাসপাতালের সুপার ও চিকিৎসকদের চেনেন সকলেই।

নোংরা বস্তিতে হাসপাতাল সুপার ও ডাক্তারদের দেখে অবাক হয়ে যান বাসিন্দারা। সুপারের নেতৃত্ব এলাকার সকলের থার্মাল স্ক্রিনিং হয়। এছাড়াও সকলকে মাস্ক তৈরি করে মুখ ঢাকা, বারে বারে সাবানে হাত ধোওয়া, শিশুদের সব সময় পরিচ্ছন্ন রাখার পরামর্শ দেন তাঁরা। সুপার কৃষ্ণচন্দ্র বরাই বলেন, গরিব মানুষরা অনেকেই পেটের তাগিদে রাস্তায় বেরিয়ে পড়ছেন। লক ডাউন মানা তাদের পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না। আমরাও দেখলাম সচেতনতারও বেশ অভাব রয়েছে। অনেকেই সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলছেন না। তাঁদের অনেকের মুখে মাস্কও নেই। তাঁদের বোঝালাম, জ্বর বা করোনার উপসর্গ দেখা দিলে চিকিৎসা করাতে হবে। বেশিরভাগই তো চিকিৎসায় সুস্থ হয়ে যাচ্ছেন। তাই আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। তবে এই ভাইরাস সম্পর্কে সচেতন থাকতে হবে। কিছু সাবধানতা মেনে চলার পরামর্শ দেওয়া হল।

Saradindu Ghosh

First published: April 17, 2020, 5:45 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर