দেবীকে তুষ্ট করতে নরবলিও দিতেন রঘু ডাকাত

দেবীকে তুষ্ট করতে নরবলিও দিতেন রঘু ডাকাত
নিজস্ব চিত্র

আজও ধুমধাম করে রঘু ডাকাতের আরাধ্যা দেবীর পুজো হয় কাটোয়ায়। কেতুগ্রামের অট্টহাস সতীপীঠে রটন্তী কালীর পুজো না করে না কি ডাকাতি করতে যেত না রঘু ডাকাত।

  • Share this:

#বর্ধমান: আজও ধুমধাম করে রঘু ডাকাতের আরাধ্যা দেবীর পুজো হয় কাটোয়ায়। কেতুগ্রামের অট্টহাস সতীপীঠে রটন্তী কালীর পুজো না করে না কি ডাকাতি করতে যেত না রঘু ডাকাত।  চারদিকে ঘন জঙ্গল। দিনের বেলাতেও গা ছমছমে পরিবেশ। নিজের আরাধ্যা দেবীকে তুষ্ট করতে নরবলিও দিত দোর্দণ্ডপ্রতাপ ডাকাত। আজও সেখানে ধুমধাম করে কালী পুজো হয় । বলি অবশ্য হয় না। আড়ম্বরহীন নিষ্ঠার জোয় ভিড় করেন দূরদূরান্ত থেকে আসা ভক্তরা।

কাটোয়ার কেতুগ্রামে অট্টহাস সতীপীঠ। রঘু ডাকাতের আরাধ্যা কালীর মন্দির। কালিকা তন্ত্রমতে তন্ত্র সাধকদের সাধনস্থল হিসেবে স্বীকৃত এই সতীপীঠ। প্রায় দুশো বছর আগের গল্প। নদিয়া থেকে ব্রিটিশ পুলিশের তাড়া খেয়ে কেতুগ্রামের অট্টহাসের জঙ্গলে এসে ডেরা বাধে রঘু ডাকাত। এখান থেকেই বীরভূম, মুর্শিদাবাদ, ও বর্ধমানে অবাধে লুটপাঠ চালাত রঘু। চিঠি দিয়ে ডাকাতি করতে যাওয়ার আগে অট্টহাসের কালীর পুজো দিত রঘু। ব্রিটিশ শাসনকালে ঈশানী নদীর তীরে এই জঙ্গলে বহুদিন আস্তানা গেড়েছিল এলাকার ত্রাস রঘু ডাকাত।

সতীপীঠে দেবীর পাষাণমূর্তির উপর মহিষাশুরমর্দিনীর প্রস্তর মূর্তি রেখে চলে নিত্যসেবা । প্রায় তিরিশ একর ঘন অট্টহাসের জঙ্গলের মধ্যে রটন্তী কালীর প্রস্তর মূর্তিকে ঘিরে বসে কালীপুজোর আয়োজন। মন্দিরের চারদিকে ঘন জঙ্গল। জঙ্গলের মধ্যে পঞ্চমুন্ডির আসন। জনশ্রুতি এই আসনে বসে তন্ত্রসাধনা করে গেছেন সাধক বামাক্ষ্যাপা, গিরীশ ঘোষ।

একটা সময়ে নাকি আরাধ্যা দেবীকে সন্তুষ্ট করতে নরবলি দিত রঘু ডাকাত। যদিও পরে তা বন্ধ হয়ে যায়। তবে সেই হাঁড়িকাঠ আজও আছে। ভক্তদের অনুরোধে মাঝে মাঝে ছাগ বলি হয় অট্টহাসে। রঘু ডাকাত আজ আর নেই। গল্পে, সিনেমায় ঘুরে ফিরে আসে তার নানা গল্প। কিন্তু অট্টহাসের রঘুর আরাধ্যা মা কালীর পুজোর জৌলুস কমেনি আজও।

First published: 11:29:51 AM Oct 18, 2017
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर