কোথায় 'খেলা হবে'? জায়গা বেছে দিলেন বিজেপিতে যাওয়া 'প্রভাবশালী' সেই নেতা

কোথায় 'খেলা হবে'? জায়গা বেছে দিলেন বিজেপিতে যাওয়া 'প্রভাবশালী' সেই নেতা

খেলা শুরু হতে চলেছে পশ্চিম বর্ধমান জেলাতে। যদিও জিতেন্দ্রর ট্যুইটকে গুরুত্ব দিতে নারাজ তৃণমূল।

খেলা শুরু হতে চলেছে পশ্চিম বর্ধমান জেলাতে। যদিও জিতেন্দ্রর ট্যুইটকে গুরুত্ব দিতে নারাজ তৃণমূল।

  • Share this:

    #আসানসোল: বাংলা দখলের লড়াই শুরু হয়ে গিয়েছে। ঘোষণা হয়ে গিয়েছে দিনক্ষণ। কিন্তু দলবদলের খেলা অব্যাহত রয়েছে এখনও। আগেও বিজেপিতে যাওয়ার চেষ্টা করে ফের কিছুদিনের জন্য তৃণমূলে থেকে যাওয়ার পর শেষমেশ গেরুয়া শিবিরেই যোগ দিয়েছিলেন আসানসোলের প্রাক্তন মেয়র তথা পাণ্ডবেশ্বরের বিদায়ী বিধায়ক জিতেন্দ্র তিওয়ারি। আর এবার তৃণমূলের তোলা স্লোগান 'খেলা হবে' দিয়েই পাল্টা আক্রমণ শানালেন তিনি। টুইটে তিনি লেখেন, 'Wait and Watch @AITCofficial!! খেলা শুরু হতে চলেছে পশ্চিম বর্ধমান জেলাতে।' যদিও জিতেন্দ্রর ট্যুইটকে গুরুত্ব দিতে নারাজ তৃণমূল।

    সূত্রের খবর, পাণ্ডবেশ্বরেই বিজেপি প্রার্থী হতে পারেন সদ্য তৃণমূল ছাড়া জিতেন্দ্র তিওয়ারিকে। যদিও জিতেন্দ্র তিওয়ারি বিজেপিতে যাওয়ায় রীতিমতো উল্লাস করতে দেখা গিয়েছে স্থানীয় তৃণমূল নেতাকর্মীদের। কারণ দলত্যাগী নেতাকে নিয়ে বিজেপির অন্দরে যে পরিমাণ ক্ষোভ জমা হয়েছে, তাতে লাভের অঙ্কই দেখছে ঘাসফুল শিবির। কোথাও কোথাও মিষ্টি বিতরণও হয়েছে। জিতেন্দ্রর দলত্যাগকে 'আপদ বিদায়'ও বলছেন স্থানীয় নেতৃত্ব। জিতেন্দ্র নিজে অবশ্য় এ বিষয়ে মন্তব্য করতে চাননি। তবে তাঁর আগমনে বিক্ষুব্ধ দলীয় কর্মীদের একাংশ বিজেপি সমর্থিত নির্দল প্রার্থীদের ভোট দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে দেওয়াল লিখন শুরু করেছেন। তাতে বিড়ম্বনা বাড়ছে জিতেন্দ্রর। যদিও কর্মীদের মনোবল বাড়াতে 'খেলা হবে'র ভোকাল টনিক দিয়েছেন তিনি।

    মাসদুয়েকের আগে থেকেই জিতেন্দ্রকে নিয়ে জারি ছিল নাটক। শেষমেশ গত মঙ্গলবার দিলীপ ঘোষের হাত থেকে বিজেপির পতাকা নিয়ে গেরুয়া শিবিরে নাম লিখিয়েছেন তিনি। তাঁর বিরুদ্ধে বিজেপির কর্মী-সমর্থকদের প্রবল ক্ষোভও জমা হয়েছে। প্রথমবার জিতেন্দ্রর বিজেপিতে যোগদানের সম্ভাবনা তৈরি হওয়ার পরই ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছিলেন আসানসোলের বিজেপি সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়কে। শেষমেশ বাবুলকে বুঝিয়ে জিতেন্দ্রকে দলে টেনেছে বিজেপি। কিন্তু এলাকার বিজেপি কর্মীদের ক্ষোভ তাতে কমেনি। তাঁদের অভিযোগ, তৃণমূলে থাকাকালীন তিনি ও তাঁর দলবল ব্যাপক দাদাগিরি, নির্যাতন চালিয়েছেন। এখন সেই নেতাকে দলে মেনে নেওয়া অসম্ভব। এই অসন্তোষ ধামাচাপা দিতে চেষ্টার কসুর করছেন না নেতারা। কিন্তু তাতে আর ফাটল ঢাকা পড়ছে না।

    নিজের বিধানসভা কেন্দ্র পাণ্ডবেশ্বরেও বিক্ষোভ চলছে জিতেন্দ্র তিওয়ারিকে নিয়ে। এমনকী একাধিক জায়গায় বিজেপি কর্মীরা দলের সমর্থনে দেওয়াল লিখন মুছে দিয়েছেন। ক্ষোভ রয়েছে দুর্গাপুরের বহু বিজেপি কর্মীর মনেও। কিন্তু এঁদের অনেকেই প্রকাশ্যে সরাসরি ক্ষোভ জানাতে চাইছেন না। গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে মনোনয়ন পত্র জমা দিতে গিয়েই হামলার শিকার হয়েছিলেন বিজেপির জেলা সভাপতি লক্ষ্মণ ঘোড়ুই। তাঁর বাঁ হাতে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপানো হয়। বেশ ক'টি স্টিচ পড়েছিল। ওই ঘটনায় অভিযোগ উঠেছিল জিতেন্দ্র ও তাঁর অনুগামীদের বিরুদ্ধেই। সেই নেতাই এখন বিজেপিতে। ফলে নেতাস্তরেও ক্ষোভ কম কিছু নেই। যদিও নতুন দলের নেতাকর্মীদের মন জোগাতে চেষ্টার কসুর করছেন না জিতেন্দ্র। কিন্তু তাতে কি লাভ হবে, উত্তর দেবে সময়।

    Published by:Suman Biswas
    First published: