জেল বন্দিদের কার্নিভাল, নজর কাড়তে তৈরি মধুবনী শাড়ি 

জেল বন্দিদের কার্নিভাল, নজর কাড়তে তৈরি মধুবনী শাড়ি 

২৫ ও ২৬ জানুয়ারি বর্ধমান কেন্দ্রীয় সংশোধনাগারে শীতকালীন মেলা বসছে৷ সেখানেই থাকছে সংশোধনাগারের আবাসিকদের হাতে তৈরি বিভিন্ন সামগ্রীর প্রদর্শনী ও বিক্রিবাটা৷

  • Share this:

#বর্ধমান: মধুবনী শাড়ির ভাঁজে  খেলা করে শিল্পের সূক্ষ্মতা ৷  শাড়ির প্রতিটা সুতো জানে রং-তুলির গল্প ৷ মধুবনী শিল্পের আঁচড়ে শাড়ি যেন আরও বাহারি৷ বিহারের মধুবনী শিল্পে ঠাসা শাড়ি তৈরি করছেন সংশোধনাগারের বন্দিরা৷ আর সেই শাড়িই বাজার মাতাচ্ছে৷ তাঁতশিল্পীদের তৈরি মধুবনী শাড়ি তো আছেই৷ কিন্তু বন্দিদের তৈরি শাড়ি কোথায় পাওয়া যায়? রাজ্য়জুড়ে চলছে সংশোধনাগারের বন্দিদের কার্নিভাল ৷ সেখান থেকেই শাড়ি নিয়ে আলমারিতে তোলার সুযোগ৷

বন্দিদের হাত থেকে পছন্দের শাড়ি কিনে নিতে পারবেন৷ সঙ্গে দু’কথাও হবে৷ ২৫ ও ২৬ জানুয়ারি বর্ধমান কেন্দ্রীয় সংশোধনাগারে শীতকালীন মেলা বসছে৷ সেখানেই থাকছে সংশোধনাগারের আবাসিকদের হাতে তৈরি বিভিন্ন সামগ্রীর প্রদর্শনী ও বিক্রিবাটা৷

শীত মানেই উৎসবের মরশুম। কার্নিভাল। আর উৎসব থেকে বন্দিরাও বাদ নয়৷ তাই তাঁদের জন্য় রাজ্য়জুড়ে শীতকালীন কার্নিভালের আয়োজন করেছে কারা দফতর৷  প্রদর্শনীর জন্যই বর্ধমান কেন্দ্রীয় সংশোধনাগারে মধুবনী শাড়ি তৈরির ব্যস্ততা তুঙ্গে। বাজারে জেলবন্দিদের হাতে তৈরি এই মধুবনী শাড়ির চাহিদা ব্যাপক। তাই এই প্রদর্শনীতেও তা ভাল বিক্রি হবে ধরে নিয়েই কাজ চলছে।  কলকাতা, মেদিনীপুর, বহরমপুর, বারুইপুর সহ বিভিন্ন জেলার বন্দি আবাসিকরা তৈরি করছেন মধুবনী শাড়ি। তাঁদের তৈরি টেরাকোটার গয়না, কেতাদুরস্ত ব্যাগ, বাটিক, বাঁধনি, কুর্তি, কামিজ, পাঞ্জাবি, টি-শার্ট, কুকিজ, সরষের তেল, মুড়ি, গামছা, বিছানার চাদর, পাটের বিভিন্ন সামগ্রী থাকছে প্রদর্শনীতে।

কারা দফতরের বর্ধমান রেঞ্জের ডিআইজি নবীন কুমার সাহা বলেন, প্রদর্শনীতে রাজ্যের প্রায় সব সংশোধনাগারের বন্দি আবাসিকদেরই শিল্প সামগ্রী থাকছে। ইতিমধ্যেই প্রেসিডেন্সি জেলে এই ধরনের প্রদর্শনী হয়েছে। বর্ধমানের পর তা হবে উত্তরবঙ্গে। জলপাইগুড়ি সংশোধনাগারেও এই প্রদর্শনী হবে।

কার্নিভালে গিয়ে পেটপুজোও হবে৷ থাকছে রকমারি খাবারের বিপুল আয়োজন। সবই বন্দি আবাসিক পুরুষ ও মহিলাদের হাতে তৈরি। পাওয়া যাবে অরগানিক শাক সবজিও।  এখানেই শেষ নয়, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও মন ভরাবে৷ বন্দিদের পরিবেশিত নাচ, গান, আবৃত্তি, নাটক দেখার সুযোগ থাকছে। বন্দিদের সমাজের মূল স্রোতে ফিরিয়ে আনতেই এই উদ্যোগ বলে জানিয়েছে সংশোধনাগার কর্তৃপক্ষ।

Saradindu Ghosh

First published: January 24, 2020, 2:49 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर