মাঠ প্রায় ফাঁকা, চুঁচুড়ার সভাও বাতিল করে দিল্লি ফিরলেন নাড্ডা

মাঠ প্রায় ফাঁকা, চুঁচুড়ার সভাও বাতিল করে দিল্লি ফিরলেন নাড্ডা

জে পি নাড্ডার আসার কথা থাকলেও চুঁচুড়ার সভাস্থলে ভিড় ছিল এরকমই৷

এ দিন বেলা আড়ইটেতে চুঁচুড়ার বক্সিং গ্রাউন্ডে সভা করতে আসার কথা ছিল জে পি নাড্ডার৷

  • Share this:

    #চুঁচুড়া: সকালে শ্রীরামপুরের সভা শেষ মুহূর্তে বাতিল করে দিয়েছিলেন বিজেপি-র (BJP) সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডা (J P Nadda)৷ তৃণমূল কটাক্ষ করে বলেছিল, লোক না হওয়াতেই সভা বাতিল করতে হয়েছে জে পি নাড্ডাকে৷ সকালে শ্রীরামপুরের পর বিকেলে চুঁচুড়াতেও বাতিল হয়ে গেল জে পি নাড্ডার সভা৷ বিজেপি নেতাদের দাবি, দিল্লিতে জরুরি বৈঠকের জন্যই ফিরতে হয়েছে নাড্ডাকে৷ কিন্তু চুঁচুড়ার সভাস্থলে ছবি বলছে অন্য কথা৷ কারণ সকাল থেকে সব আয়োজন থাকলেও বক্সিং গ্রাউন্ডের মাঠে সভাস্থলে অর্ধেক আসনও ভরেনি বলেই দাবি প্রত্যক্ষদর্শীদের৷

    এ দিন বেলা আড়ইটেতে চুঁচুড়ার বক্সিং গ্রাউন্ডে সভা করতে আসার কথা ছিল জে পি নাড্ডার৷ কিন্তু সকাল থেকে বড় মঞ্চ বেঁধে মাইকে প্রচার করা হলেও সেভাবে ভিড় হয়নি সভাস্থলে৷ প্রায় ৮০ শতাংশ চেয়ারই ফাঁকা ছিল৷ এ দিন কলকাতার টালিগঞ্জ এবং বেহালা পূর্বের দুই বিজেপি প্রার্থী বাবুল সুপ্রিয় এবং পায়েল সরকারের সমর্থনে রোড শো করেন জে পি নাড্ডা৷ সেখান থেকেই চুঁচুড়ায় যাওয়ার কথা ছিল তাঁর৷ সেই মতো হেলিপ্যাড তৈরি হয়৷ প্রস্তুত ছিল দমকলের সহ যাবতীয় ব্যবস্থা৷ কিন্তু শেষ পর্যন্ত বিজেপি সভাপতিই আসেননি৷

    তবে বিজেপি সভাপতি যে আসছেন না তা প্রথমে ঘোষণা করা হয়নি৷ বিকেল সাড়ে চারটে নাগাদ মঞ্চে বক্তব্য রাখতে ওঠেন চুঁচুড়ার বিজেপি প্রার্থী লকেট চট্টোপাধ্যায়৷ তিনিই জানান যে জে পি নাড্ডা আসতে পারছেন না৷ লকেট অবশ্য দাবি করেন, জরুরি বৈঠকের কারণেই আসতে পারছেন না বিজেপি-র সর্বভারতীয় সভাপতি৷ ততক্ষণে অবশ্য মাঠ আরও ফাঁকা হয়ে গিয়েছে৷ য

    জে পি নাড্ডার সভা বাতিল হওয়ায় বিজেপি-কে কটাক্ষ করতে ছাড়েনি তৃণমূল কংগ্রেস৷ তৃণমূল প্রার্থী অসিত মজুমদার বলেন, 'মানুষ বিজেপি-র সঙ্গে নয়, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে রয়েছে৷ সেই কারণেই বিজেপি-র সভা লোক হচ্ছে না৷ ওরা শুধু দিল্লি থেকে এসে মানুষকে ধমকাচ্ছে, চমকাচ্ছে৷ বাংলার মানুষ চায় না বলেই ওদের প্রত্যাখ্যান করছেন৷ তাই বিজেপি-র নেতারা পালিয়ে যাচ্ছেন৷'

    Saikat Biswas

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: