সরকারি নিষেধাজ্ঞা থোড়াই কেয়ার! মাস্ক ছাড়াই পথে নামছেন অনেকেই

রাজ্য সরকার সোমবার থেকে মুখে মাস্ক বাঁধা বাধ্যতামূলক করেছে। রাস্তায় জরুরি প্রয়োজনে বের হলে মুখ ঢাকতেই হবে- নির্দেশ দিয়েছে প্রশাসন।

রাজ্য সরকার সোমবার থেকে মুখে মাস্ক বাঁধা বাধ্যতামূলক করেছে। রাস্তায় জরুরি প্রয়োজনে বের হলে মুখ ঢাকতেই হবে- নির্দেশ দিয়েছে প্রশাসন।

  • Share this:

#বর্ধমান: মাস্ক বা ফেস কভারে মুখ ঢাকা বাধ্যতামূলক করেছে রাজ্য সরকার। সেই নির্দেশ মানার ব্যাপারে এখনও হেলদোল নেই অনেকেরই। জেলা শাসকের দফতরের আধিকারিক থেকে পুলিশ কর্মী মাস্ক পরার ব্যাপারে সচেতন নন অনেকেই। কেউ মাস্ক সযত্নে রেখেছেন ব্যাগে, কারও আবার তা রয়েছে পকেটে। কেউ আবার মাস্ক নিয়ে বের হওয়ার প্রয়োজন বোধ করছেন না এখনও।

ভ্যান চালক থেকে সবজি বিক্রেতা, ফুল বিক্রেতা - মুখ ঢাকছেন অনেকেই। করোনা সংক্রমণের ভয় উপেক্ষা করে রুজিরুটির তাগিদে পথে নামছেন তাঁরা। রাজ্য সরকার সোমবার থেকে মুখে মাস্ক বাঁধা বাধ্যতামূলক করেছে। রাস্তায় জরুরি প্রয়োজনে বের হলে মুখ ঢাকতেই হবে- নির্দেশ দিয়েছে প্রশাসন। সে সব খবর জানা নেই দিন আনি দিন খাই বাসিন্দাদের। তবু করোনা ঠেকাতে যে যার মতো করে মুখে বেঁধেছেন সস্তার ফেস কভার। অথচ যাঁরা সব সময় দেশ তথা বিশ্বের খবর রাখছেন নিয়মিত তাঁরাই মুখ ঢাকার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করছেন না সেভাবে।

বর্ধমানে জেলা শাসকের অফিসের এক আধিকারিক। গাড়িতে চেপে অফিস যাচ্ছিলেন। জানালা খোলা। মুখ ঢাকেননি কেন? উত্তরে পরিচয় পত্র দেখালেন? কিন্তু তা দেখে কি করোনা দূরে সরবে! জানতে চাইতেই ব্যাগের জরুরি কাগজ পত্রের ভেতর থেকে বেরিয়ে এলো ফেস কভার। তাঁর পাশেই বসে আর এক সরকারি কর্মী। তিনিও মাস্ক ছাড়াই রাস্তায় বেরিয়েছেন। মন্তেশ্বর থেকে মোটর সাইকেলে আসছিলেন এক যুবক। মুখে মাস্ক নেই। জানালেন তিনি পুলিশ কর্মী। করোনা কি পুলিশের নাগালের বাইরে? প্রশ্ন শুনেই পকেট থেকে রুমাল বের করে মুখে বাঁধলেন। সব মিলিয়ে অনেকে জেনেবুঝেও মাস্ক বা ফেস কভার ব্যবহার করছেন না। অনেকে পাতলা কাপড়ের ফেস কভার লাগাচ্ছেন। কিছু ফেস কভার রয়েছে যেগুলি একবার ব্যবহারের পর ফেলে দেওয়ার কথা। কেউ কেউ সেগুলিই দিনের পর দিন ব্যবহার করছেন। সব মিলিয়ে অনেকে সঙ্গে রাখলেও মাস্কে মুখ ঢাকছেন না। কেউ কেউ আবার ফেস কভার লাগালেও তা যথাযথভাবে ব্যবহার করছেন না। তাতে যে আবার ঝুঁকি থেকে যাচ্ছে সে সবের পরোয়া করছেন না অনেকেই।

Published by:Dolon Chattopadhyay
First published: