Football World Cup 2018

গলসিতে সম্প্রীতির পুজো , প্রতি বছর একত্রে দুর্গাপুজোয় মাতেন দুই সম্প্রদায়ের মানুষ

Elina Datta | News18 Bangla
Updated:Sep 19, 2017 06:53 PM IST
গলসিতে সম্প্রীতির পুজো , প্রতি বছর একত্রে দুর্গাপুজোয় মাতেন দুই সম্প্রদায়ের মানুষ
Elina Datta | News18 Bangla
Updated:Sep 19, 2017 06:53 PM IST

#বর্ধমান: পুজো মণ্ডপেই মহরমের তাজিয়া। দুর্গার সামনে একসঙ্গেই লাঠি খেলা, তরোয়াল খেলা। একসঙ্গেই অষ্টমীর অঞ্জলি। ফজর থেকে ঈশার নমাজ। এখানে ধর্ম নয় প্রাধান্য পায় মানুষ। উপাসনা সকলকে ভালো রাখার প্রার্থনা জানিয়ে। আর একটা প্রতিরোধের দেওয়াল তৈরি করা। সেই দেওয়াল সম্পীতির। সম্প্রীতির পুজো বর্ধমানের গলসির স্টার ক্লাবে।

সেদিনটা আজও ভোলেননি বিদ্যুৎ ঘোষ, আমানুল্লা মণ্ডলরা। ৬ ডিসেম্বর, ১৯৯২- বাবরি মসজিদ ভাঙার খবরে তখন আগুন জ্বলছে দেশে। প্রমাদ গুনলেন এলাকার প্রবীণরা। দীর্ঘদিন পাশাপাশি বসবাস। একে অপরের বিপদে ঝাঁপিয়ে পরা এখানকার ঐতিহ্য।

জাতি দাঙ্গার আগুনে সেই ঐতিহ্য কিছুতেই ভাঙতে দেওয়া যাবে না। আলোচনায় বসলেন তাঁরা। ঠিক হল একে অপরের উৎসবের সামিল হবেন দুই সম্প্রদায়ের মানুষ। ঈদের মিলাতে যেমন তেমনি দুর্গা পুজোতেও। সেই শুরু হিন্দু-মুসলিম যৌথভাবে।

সেই শুরু, পুজোয় আয়োজনে বিদ্যুৎ-বিমলদের সঙ্গে ঘুম নেই নজরুল-আমানুল্লাদের। আমানুল্লা মণ্ডলই যে পুজোর সভাপতি। সহ সম্পাদক নজরুল মির্দা। পুজোর ভাল মন্দের সব দায় তাঁদেরই। মণ্ডপ তৈরি থেকে প্রতিমা বায়না। সন্ধিপুজো থেকে দশমী। সমস্ত খুঁটিনাটিতে তাঁদের কড়া নজর। পাশাপাশি দাঁড়িয়েই অঞ্জলি দেন আমিনা, আনসার, আলপনা, অনির্বাণরা।

বেলুড় মঠের আদলে মণ্ডপ। পুজোর মধ্যেই এবার মহরম। আনন্দ তাই দ্বিগুণ। এবারও মহরমের তাজিয়া আসবে দুর্গা মণ্ডপে। মন্ডপে প্রতিমার সামনেই হবে লাঠি খেলা। পুজোর মধ্যেই রাত জেগে ঈদের গেট তৈরি করবেন বিকাশ, সুমন, রজতরা।

মণ্ডপের কাঠামো বদলায়। থিম কিন্তু সেই এক। একই বৃন্তে দুটি কুসুম। উৎসবের এক অমোঘ বার্তা। জাতির নামে বজ্জাতি রুখে দেওয়ার শপথ। বিজয়ার আর মহরমের কোলাকুলি, নমস্কার আদাব মিলেমিশে একাকার। মিষ্টি-মুখের সঙ্গেই তাই আজও এক হয়ে যায় মহরমের লাচ্চা শিমুই। সম্প্রীতির পুজোয় এক অন্য অনুভূতি বর্ধমানের গলসিতে।

First published: 03:32:40 PM Aug 31, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर