দাবি মতো পণ না মেলায় গৃহবধূকে পুরিয়ে মারার চেষ্টা স্বামী, শ্বশুর, শাশুড়ির

representaive image

দাবি মতো পণ না মেলায় গৃহবধূকে পুরিয়ে মারার চেষ্টা করলেন স্বামী, শ্বশুর, শাশুড়ি

  • Share this:

    #দক্ষিণ ২৪পরগনা: দাবি মতো পণ না মেলায় গৃহবধূ সীমা মল্লিকের গায়ে কেরোসিন তেল ঢেলে পুরিয়ে মারার চেষ্টা করলেন স্বামী মৃতুঞ্জয় মল্লিক, শ্বশুর শিবু মল্লিক ও শাশুড়ি গীতা মল্লিক। ঘটনাটি ঘটেছে দেগঙ্গা থানার শ্বেতপুর এলাকায়। নির্মম এই ঘটনা ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকায়।

    বছর দুয়েক আগে শাসন থানার তেঘরিয়া এলাকার বাসিন্দা ১৮ বছরের সীমার সঙ্গে সম্বন্ধ করে বিয়ে হয় শ্বেতপুর গ্ৰামের মৃতুঞ্জয় মল্লিকের। সীমার পরিবারের সদস্যরা অভিযোগ করেছেন, বিয়েতে তাঁরা পাত্রপক্ষের দাবি অনুযায়ী টাকা, সোনার গয়না ও আসবাবপত্র দিয়েছিলেন। কিন্তু তারপরও, আরও টাকা দাবি করেন তাঁরা। আর এই নিয়েই শুরু হয় অশান্তি!

    সীমার ওপর প্রায়ই অকথ্য অত‍্যাচার চালানো হত! আর সেই অত্যাচারই চরম আকার নেয় রবিবার সকালে। স্বামী স্বশুর ও স্বাশুড়ির সঙ্গে বচসা বাঁধে সীমার। আর বচসা থেকেই, ঘরে থাকা কেরোসিন তেল সীমার গায়ে ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেন তাঁর শ্বশুরবাড়ির সদস্যরা। এই ঘটনার সময় সীমার দাদা সুমন মণ্ডল বোনের বাড়িতেই উপস্থিত ছিলেন। কিন্তু তখন তিনি বাথরুমে গিয়েছিলেন।

    বাথরুম থেকে বেরিয়ে দেখেন, দাউ দাউ করে জ্বলছে বোন। অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় সীমাকে উদ্ধার করে বারাসাত হাসপাতালে নিয়ে আসেন সুমনবাবু। সেখান থেকে তাঁকে স্থানান্তরিত করা হয় আর জি কর-এ। সুমন মণ্ডলের অভিযোগের ভিত্তিতে দেগঙ্গা থানার পুলিশ সীমার স্বশুর স্বাশুড়িকে আটক করেছেন। স্বামী মৃতুঞ্জয় মল্লিক অবশ্য পলাতক। সীমার আট মাসের ছেলে সায়ন মল্লিককে তাঁর পরিবারের হাতে তুলে দিয়েছে পুলিশ। সীমার পরিবারের এখন একটাই দাবি- দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই!

    আরও পড়ুন-নামের বিভ্রান্তির জেরে সদ্যজাত শিশু বদলের অভিযোগ রায়গঞ্জ জেলা হাসপাতালের বিরুদ্ধে

    First published: