Home /News /south-bengal /
Man cuts off wife's hand in Ketugram: স্ত্রী সরকারি চাকরি পাওয়ায় আপত্তি, ঘুমের মধ্যেই হাত কেটে নিল স্বামী!

Man cuts off wife's hand in Ketugram: স্ত্রী সরকারি চাকরি পাওয়ায় আপত্তি, ঘুমের মধ্যেই হাত কেটে নিল স্বামী!

অভিযুক্ত শের মহম্মদ এবং রেণু খাতুন৷

অভিযুক্ত শের মহম্মদ এবং রেণু খাতুন৷

কলকাতায় নার্সিং প্রশিক্ষণ নেওয়ার পর পরীক্ষা দিয়ে সরকারি চাকুরি প্রাপকদের তালিকায় রেণু খাতুনের নাম উঠেছিল।

  • Share this:

    #রণদেব মুখোপাধ্যায়, কেতুগ্রাম: স্ত্রী নার্সের চাকরি  পাওয়ায় হাত কেটে নিল স্বামী।ধারালো অস্ত্র দিয়ে স্ত্রীর ডান হাত কব্জির নীচ থেকে বিচ্ছিন্ন করে দেয় স্বামী। গুরুতর জখম স্ত্রী রেণু খাতুন পশ্চিম বর্ধমানের দুর্গাপুরের এক বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। চাঞ্চল্যকর এই ঘটনা ঘটেছে পূর্ব বর্ধমানের কেতুগ্রামে৷

    কেতুগ্রামের কখনওই চাইত না যে স্ত্রী চাকরি করুক। তাই স্ত্রী চাকরি পেতেই নৃশংস এই আক্রমণ করে স্বামী৷ অভিযুক্ত স্বামী শের মহম্মদ এলাকা ছাড়া। কেতুগ্রাম থানার পুলিশ অভিযুক্তদের খোঁজে তল্লাশি শুরু করেছে।

    আরও পড়ুন: চরম প্রেম! পরস্ত্রী-র সঙ্গে প্রেম, ডায়মন্ড হারবারে দেখা করতে আসার পর যা হল...

    ঘটনার জেরে সরকারি নার্সিং চাকরির প্যানেলভুক্ত হয়েও কেতুগ্রামের চিনিসপুর গ্রামের তরুণী রেণু খাতুনের নার্সের চাকরি করা এখন অনিশ্চিত। বর্তমানে রেণু খাতুন দুর্গাপুরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভরতি।

    কলকাতায় নার্সিং প্রশিক্ষণ নেওয়ার পর পরীক্ষা দিয়ে সরকারি চাকুরি প্রাপকদের তালিকায় রেণু খাতুনের নাম উঠেছিল। রেণুর স্বপ্ন ছিল সরকারি চাকরি করা। সেজন্যই কঠোর পরিশ্রম করেছিলেন তিনি। পাঁচ বছরের বিবাহিত জীবনেও লক্ষ্যে স্থির ছিলেন রেণু। ২৮ মে ছিল নথি যাচাইয়ের করিয়েছিল রেণু। সরকারি চাকরির প্যানেল লিস্টে স্ত্রীর নাম দেখেই স্ত্রীকে চাকরিতে যোগ দিতে না দেওয়ার পরিকল্পনা করে স্বামী শের মহম্মদ।

    আরও পড়ুন: অশোকনগরের বুকে দুই সতীনের লড়াই, তারপর?

    ৪ জুন রাতে কোজলসা গ্রামে নিজের বাড়িতেই দুই সঙ্গীকে নিয়ে শের মহম্মদ ঘুমন্ত অবস্থায় রেনুর মুখে বালিশ চাপা দিয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে ডান হাতের কব্জির নীচ থেকে কেটে দেয় বলে অভিযোগ । কাটা হাত বাড়িতে রেখেই কাটোয়া মহকুমা হাসপাতালে রেণুকে নিয়ে যাওয়া হয় যাতে চিকিৎকরা হাত জোড়া না লাগাতে পারেন। আরও অভিযোগ চিকিৎসায় ব্যাঘাতের জন্য শের মহম্মদ রেণু খাতুনের প্রয়োজনীয় সমস্ত নথি নিয়ে গা ঢাকা দেয় ।

    রেণু খাতুনের বাবা আজিজুল হক বলেন, 'আমার মেয়ের স্বপ্ন ভেঙে গেল। আমি চাই অভিযুক্তের কঠোর শাস্তি হোক।' এদিকে রেণু খাতুনের দাদা রিপন শেখ বলেন, 'শের মহম্মদ কখনওই চাইত না বোন চাকরি করুক। বোন চাকরি পেয়েছে এটা ভালোভাবে মেনে নিতে পারিনি শের মহম্মদ। সেজন্যই এই জঘন্য কাজ করেছে।'

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published:

    Tags: Government Job, Jobs, Purba bardhaman

    পরবর্তী খবর