• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • ‘দুয়ারে সরকার’ কর্মসূচিতে ব্যাপক ভিড়ে হুড়োহুড়ি, বর্ধমানে পদপিষ্ঠ অন্তত ৩০

‘দুয়ারে সরকার’ কর্মসূচিতে ব্যাপক ভিড়ে হুড়োহুড়ি, বর্ধমানে পদপিষ্ঠ অন্তত ৩০

অনেকেরই পায়ে, বুকে, কোমরে, মাথায় আঘাত লেগেছে। ঘটনার পর এলাকার বাসিন্দারাই উদ্যোগী হয়ে আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠান।

অনেকেরই পায়ে, বুকে, কোমরে, মাথায় আঘাত লেগেছে। ঘটনার পর এলাকার বাসিন্দারাই উদ্যোগী হয়ে আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠান।

অনেকেরই পায়ে, বুকে, কোমরে, মাথায় আঘাত লেগেছে। ঘটনার পর এলাকার বাসিন্দারাই উদ্যোগী হয়ে আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠান।

  • Share this:

Saradindu Ghosh

#বর্ধমান: সরকারি প্রকল্পে নাম তোলার আবেদনপত্র সংগ্রহের হুড়োহুড়ি। একসঙ্গে অনেক পুরুষ মহিলার এই হুড়োহুড়িকে কেন্দ্র করে ঘটে গেল পদপিষ্ট হওয়ার ঘটনা। পড়ে গেলেন কেউ কেউ। তাঁদেরই উপর দিয়ে চলে গেলেন অনেকে। পূর্ব বর্ধমান জেলার পূর্বস্থলীর নশরতপুরের পারুলডাঙ্গা হাই স্কুলে এই ঘটনা ঘটেছে। আহত হন প্রায় ৩০ জন। চারজনের আঘাত গুরুতর। তাঁদের স্থানীয় চাঁদপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সেখানে তাঁদের চিকিৎসা চলছে। বাকিরা প্রাথমিক চিকিৎসা করিয়ে বাড়ি ফিরে গিয়েছেন। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিজেপি এবং তৃণমূলের মধ্যে রাজনৈতিক চাপানউতোর শুরু হয়েছে। ঠিক কীভাবে ঘটল এই ঘটনা?

রাজ্যের অন্যান্য অংশের সঙ্গে পূর্ব বর্ধমান জেলাতেও চলছে দুয়ারে সরকার কর্মসূচি। এই উপলক্ষে এ দিন পূর্বস্থলীর নশরতপুর পারুলডাঙ্গা হাই স্কুলে দুয়ারে সরকারের শিবির খোলে প্রশাসন। সেই শিবির থেকে স্বাস্থ্যসাথী, একশো দিনের কাজ সহ বিভিন্ন সরকারি প্রকল্পের আবেদনপত্র সংগ্রহ করার জন্য ভোর থেকেই লাইনে দাঁড়িয়েছিলেন বাসিন্দারা। লাইনে অনেক বৃদ্ধ পুরুষ মহিলাকেও দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। স্কুলের গেট ছাড়িয়ে দীর্ঘ লাইন চোখে পড়ছিল সকাল থেকেই। ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়েছিলেন অনেকেই।

বেলা দশটা নাগাদ স্কুলের গেট খোলা হতেই হুড়মুড়িয়ে সকলে ঢুকে পড়ার চেষ্টা করেন। আগে গিয়ে আগে আবেদনপত্র সংগ্রহের উদ্দেশ্য ছিল সকলের। সেই হুড়োহুড়ির মাঝেই পড়ে যান বেশ কয়েকজন। তাঁদের ওপর দিয়ে চলে যান অনেকে। তারই জের এই ঘটনা ঘটে।

অনেকেরই পায়ে, বুকে, কোমরে, মাথায় আঘাত লেগেছে। ঘটনার পর এলাকার বাসিন্দারাই উদ্যোগী হয়ে আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠান। বেশিরভাগই প্রাথমিক চিকিৎসার পর বাড়ি ফিরে যান। তবে চারজনের আঘাত গুরুতর হওয়ায় তাদের স্থানীয় চাঁদপুর হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা চালানো হচ্ছে। এই ঘটনার পর ওই শিবিরের শৃঙ্খলা বজায় রাখতে বাড়তি পুলিশ কর্মী ও সিভিক ভলেন্টিয়ার মোতায়েন করা হয়।

ঘটনার খবর পেয়ে হাসপাতালে যান স্থানীয় বিজেপি নেতা কর্মীরা। তাঁরা আহতদের চিকিৎসার খোঁজখবর নেওয়ার পাশাপাশি এই ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ করেন। স্থানীয় বিজেপি নেতা বিপ্লব বসাক বলেন, সরকার এতদিন ঠিকমতো পরিষেবা দিতে পারেনি। তাই বাসিন্দারা ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছিলেন।এখন ভোটের মুখে পরিষেবা দেওয়ার ভাঁওতাবাজির ফন্দি এঁটেছে। সরকার বয়ষ্ক পুরুষ মহিলাদের দীর্ঘক্ষণ লাইনে দাঁড় করাতে বাধ্য করছে। দুয়ারে সরকার নামে আসলে রাজ্যের শাসক দল বাসিন্দাদের যমের দুয়ারে পাঠাতে চাইছে।

অন্যদিকে, তৃণমূল কংগ্রেসের পূর্ব বর্ধমান জেলার মুখপাত্র প্রসেনজিৎ দাস বলেন, দুয়ারে সরকার কর্মসূচিকে ঘিরে বাসিন্দাদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ লক্ষ্য করা যাচ্ছে। নশরতপুরে প্রচুর সংখ্যক বাসিন্দা সরকারের বিভিন্ন পরিষেবা নিতে উপস্থিত হয়েছিলেন। তাতেই হুড়োহুড়িতে কয়েকজন আহত হন। এই কর্মসূচির সাফল্য দেখে ভয় পেয়ে বিজেপি এখন তাতে রাজনৈতিক রং লাগানোর চেষ্টা চালাচ্ছে।

Published by:Simli Raha
First published: