• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • West Bengal News: জলই জীবন, এক সিদ্ধান্তেই বাবা মা'কে অমর করলেন হাওড়ার সন্তান!

West Bengal News: জলই জীবন, এক সিদ্ধান্তেই বাবা মা'কে অমর করলেন হাওড়ার সন্তান!

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

West Bengal News: প্রায় ২ লক্ষ টাকা ব্যয় করে নিজের গাঁটের পয়সায় পানীয় জলের ট্যাংক নির্মাণ করে নজির দাসপুর ২ ব্লকের গোপীগঞ্জের বছর ৫২-এর রাকেশ ভগতের।

  • Share this:

    #হাওড়া: বাবা মায়ের স্মৃতির উদ্দেশ্যে মন্দির স্থাপন না করে জনসাধারণের জন্য পানীয় জলের ট্যাঙ্কের ব্যবস্থা করলেন ছেলে। আর এই অভিনব উদ্যোগে রোজ উপকৃত হবেন পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার পাশাপাশি হাওড়া জেলার প্রতিনিয়ত পথ চলতি হাজারো মানুষ।

    প্রায় ২ লক্ষ টাকা ব্যয় করে নিজের গাঁটের পয়সায় পানীয় জলের ট্যাংক নির্মাণ করে নজির দাসপুর ২ ব্লকের গোপীগঞ্জের বছর ৫২-এর রাকেশ ভগতের। রাকেশবাবু পেশায় একজন মেডিক্যাল রিপ্রেজেনটেটিভ। দীর্ঘদিন ধরে গোপীগঞ্জ এলাকায় পানীয় জলের সমস্যা লক্ষ্য করেছিলেন তিনি। বহু দূর দূরান্ত থেকে ক্রেতা-বিক্রেতারা গোপীগঞ্জে আসেন,তাছাড়াও হাওড়া জেলার ভাটরা গ্রামের হাজার হাজার মানুষ নদী পেরিয়ে গোপীগঞ্জের উপর দিয়ে বিভিন্ন জায়গায় যান। সেই সমস্ত পথ চলতি মানুষদের কথা ভেবে রাকেশ বাবুর এই উদ্যোগ।

    আরও পড়ুন: ২৮ ডিসেম্বর ৩৮২, ১ জানুয়ারি ২৩৯৮! ৫ দিনে ৬ গুণ বৃদ্ধি কলকাতার কোভিড-গ্রাফে! কেন?

    ১ জানুয়ারি শনিবার বিকেলে অভিনব স্মৃতি মন্দিরের উদ্বোধন করেন এলাকাবাসীরা। রাকেশ বাবু জানান,মা মারা গিয়েছেন প্রায় ২৪ বছর আগে, বাবা মারা গিয়েছেন প্রায় ১২ বছর আগে। বাবা-মায়ের স্মৃতির উদ্দেশ্যে স্মৃতি মন্দির বানানোর কথা ছিল। রাকেশবাবু বলেন, ''জলই জীবন আমরা জানি। এই জলকে বাবা মায়ের সঙ্গে কোনোভাবে যোগ করতে পারলে বাবা অমরত্ব পাবেন। সেই ভাবনাই এলাকায় পথ চলতি মানুষদের পানীয় জলের সমস্যা মেটানোর পথ সুগম করল।''

    আরও পড়ুন: একেবারে ছকভাঙা সফরে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়! বিজেপি বলছে, 'আমাদের নকল'

    রাকেশবাবু বাবা মায়ের স্মৃতি মন্দির না বানিয়ে বানিয়ে ফেললেন একটি হাজার লিটার এর জলের ট্যাঙ্ক। আজ সেই জল জেলা ও জেলার বাইরে হাজার হাজার মানুষের তৃষ্ণা নিবারন করে চলেছেন। রাকেশ বাবুর বাবা দুলাল চন্দ্র ভকত ও মা রাম রতি ভকতের নাম এখন লোকের মুখে মুখে। এই মহৎ কাজকে সমর্থন জানিয়েছেন পথচলতি মানুষ থেকে শুরু করে গ্রামবাসীরা। স্থানীয় গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্য ইকবাল কাদের বলেন, ''ওই কাজটি যেখানে প্রশাসনের করার কথা সেখানে রাকেশবাবু নিজ উদ্যোগে কাজটি করে নজির গড়েছেন এলাকাবাসীর কাছে।''

    ------ সুকান্ত চক্রবর্তী

    Published by:Suman Biswas
    First published: