corona virus btn
corona virus btn
Loading

Cyclone Amphan| ঝড় কেড়েছে শিক্ষা, পড়ুয়াদের মুশকিল আসান 'কাকিমা'র পাঠশালা  

Cyclone Amphan| ঝড় কেড়েছে শিক্ষা, পড়ুয়াদের মুশকিল আসান 'কাকিমা'র পাঠশালা  

দক্ষিণ ২৪ পরগনার কুলতলির ভুবনেশ্বরী গ্রাম । ঘূর্ণিঝড়ের বেশ কয়েকটা দিন অতিক্রান্ত । তবে এখনও শুধু নেই, নেই আর নেই । তার মধ্যেই এলাকার শিশুদের পড়াচ্ছেন গৃহবধূ অসীমা ।

  • Share this:

#কুলতলি:  স্বপ্ন ছিল পড়াশোনা শিখে নিজের পায়ে দাঁড়িয়ে শিক্ষক হওয়ার । কিন্তু অভাবের তাড়নায় মাঝপথেই স্বপ্নভঙ্গ হয় । অষ্টম শ্রেণীর গন্ডিও পার  হতে পারেননি । তবে কঠিন সময়েও নিজের স্বপ্নভঙ্গ হওয়া স্বপ্নকে ফের নতুন প্রজন্মের মাধ্যমে এখন বাস্তবায়িত করার স্বপ্ন দেখছেন অসীমা ভান্ডারি ।

এ যেন আজব গাঁয়ের এক আমফান কথা । গ্রামের উপর দিয়ে বয়ে গিয়েছে প্রবল ঝড় । টানা বেশ কয়েকদিন কেটে গেলেও আজও বিদ্যুৎহীন গোটা গ্রাম । থমকে স্বাভাবিক জনজীবন । তবে থমকে নেই পড়াশোনা । সৌজন্যে অসীমা ভান্ডারি । ভুবনেশ্বরী গ্রামের একজন আটপৌরে গৃহবধূ । অন্ধকারময় জীবনের মধ্যেও ছড়িয়ে দিচ্ছেন শিক্ষার আলো । ঝড় কেড়েছে ঘর । ঝড় কেড়েছে ভবিষ্যৎ ।  ঝড় কেড়েছে শিক্ষা । বিধ্বস্ত গ্রামের একমাত্র স্কুল শিশু শিক্ষা কেন্দ্র । তা তাও আজ গুমড়ে গুমড়ে কাঁদছে ।

দক্ষিণ ২৪ পরগনার কুলতলির ভুবনেশ্বরী গ্রাম । ঘূর্ণিঝড়ের বেশ কয়েকটা দিন অতিক্রান্ত । তবে এখনও শুধু নেই, নেই আর নেই । মাথার ওপর ছাদ নেই । পেটে খিদের ঝড়ের তান্ডব থাকলেও দু'বেলা দু'মুঠোর যোগান নেই । গ্রামের যত্রতত্র বিদ্যুতের খুঁটি উপড়ে পড়ে রয়েছে । স্বভাবতই বিদ্যুৎ নেই । সন্ধ্যে নামতেই নিকষ অন্ধকার গ্রাস করছে । তাহলে কী আছে ? আছে শুধু শিক্ষার আলো । বলা ভাল 'আ' এ আমফান । 'অ' এ অসীমা । অসীমা ভান্ডারি ।

ভুবনেশ্বরী গ্রামের একজন বাসিন্দা সাদাসিধে একজন গৃহবধূ । গ্রামের কচিকাঁচাদের জন্য একমাত্র স্কুল রবীন্দ্র শিশুশিক্ষা কেন্দ্র । ঝড়ের ছোবলে সেই স্কুল আজ লন্ডভন্ড । কবে শুরু হবে স্কুল ? কবে আসবে বিদ্যুৎ ? প্রশ্ন থাকলেও উত্তর অজানা । তাহলে কী বন্ধ থাকবে পঠনপাঠনও ? জেদ ধরলেন অসীমা । চোয়াল শক্ত করে কিছুটা অক্ষত নিজের মাটির বাড়ির একাংশেই  নিজের সন্তানদের পাশাপাশি গ্রামের ছোট ছোট পড়ুয়াদের নিয়ে শুরু করেছেন পাঠশালা । অসীমা ভান্ডারি পড়ুয়াদের কাছে গ্রামের কাকিমা । সকাল সন্ধ্যে দু-বেলা কাকিমার কাছে পড়াশোনা করে বেজায় খুশি পড়ুয়ারা । খুশি অভিভাবকরাও । বললেন, 'বর্তমানে আমরা এক অনিশ্চিত ভবিষ্যতের সম্মুখীন । অন্ধকারের ভবিষ্যতের পথে এই পাঠশালা কিছুটা হলেও সন্তানদের আশার আলো দেখাচ্ছে' ।

'কাকিমার পাঠশালা'র প্রধান কারিগর অসীমা ভান্ডারির কথায়, 'ওদের তো ভবিষ্যৎ আছে । তাই ওরা যেন আমাদের মত আগামিদিনে কষ্ট না পায় সে কারণেই পড়াচ্ছি' । সমস্ত প্রতিকূলতাকে দূরে সরিয়ে রেখে সকাল সন্ধ্যে চলছে অসীমার পাঠশালা । দিনের বেলায় প্রকৃতির আলো থাকলেও সন্ধ্যের পর অন্ধকারে ডুবে যায় গোটা গ্রাম । তবুও থেমে থাকে না পড়াশোনা । তখন ভরসা লম্ফের আলো । পেট ভরুক বা না ভরুক নিয়ম করে লম্ফ জ্বালাতে তেল জোগাড় করে চলছে অসীমার শিক্ষাদান ।  শহরের স্কুল বন্ধ থাকলেও মুশকিল আসান অনলাইন ক্লাস । তবে আমফান বিধ্বস্ত কুলতলির প্রত্যন্ত গ্রামে সেসব ভাবাও বিলাসিতা । বাঙালিকে বর্ণপরিচয় শিখিয়েছিলেন যিনি তিনিও তো পথবাতির আলোর ভরসাতেই পড়াশোনা করেছিলেন । আর আজ ভুবনেশ্বরী গ্রামের পড়ুয়াদের ভরসার সঙ্গী লম্ফের আলো । যে আলোয় খিদের জ্বালা ভুলেছে সোমনাথ, সাগর, লক্ষ্মী কিম্বা পায়েলের মতো  অনেকেই ।

VENKATESWAR  LAHIRI

Published by: Shubhagata Dey
First published: June 11, 2020, 5:00 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर