আস্তাকুঁড়ে ফেলে দেওয়া এই জিনিসগুলিই এখন বাড়াবে ঘরের শোভা– News18 Bengali

আস্তাকুঁড়ে ফেলে দেওয়া এই জিনিসগুলিই এখন বাড়াবে ঘরের শোভা

অব্যবহৃত এই জ্বালানি হয়ে উঠেছে ঘর সাজানোর মূল উপকরণ।

Elina Datta | News18 Bangla
Updated:Mar 21, 2017 12:13 PM IST
আস্তাকুঁড়ে ফেলে দেওয়া এই জিনিসগুলিই এখন বাড়াবে ঘরের শোভা
প্রতীকি ছবি
Elina Datta | News18 Bangla
Updated:Mar 21, 2017 12:13 PM IST

#পূর্ব মেদিনীপুর: কখনও নারকেল ছোবড়া , কখনো নারকেল মালা। কখনও আমড়া বা সুপারি। কখনও আবার ডাবের কাঁদির উপরের খোল। গ্রামেগঞ্জে এসবের অধিকাংশই জ্বালানি হিসেবে ব্যবহৃত হয়। অব্যবহৃত এই জ্বালানি হয়ে উঠেছে ঘর সাজানোর মূল উপকরণ। পূর্ব মেদিনীপুরের ভগবানপুরের চিরাকুঠী গ্রামের হস্তশিল্পী তুষারকান্তি মাইতির হাত ধরে এই শিল্পই এখন উপার্জনের নতুন দিশা দেখাচ্ছে ।

ছোটবেলা থেকেই হাতের কাজে উৎসাহ। তবে তা নেহাতই নিজের ঘর সাজাতে। এই শখ-ই যে একদিন পেশা হয়ে উঠবে তা তখন ভাবতেই পারেননি তুষারকান্তি মাইতি। আজ তাঁর সেই শখ-ই দিশা দেখাচ্ছে বিভিন্ন স্বনির্ভর গোষ্ঠীগুলিকে।

পূর্ব মেদিনীপুরের ভগবানপুর দু নম্বর ব্লকের বরোজ গ্রাম পঞ্চায়েতের চিরাকুঠি গ্রাম। শিল্প গ্রাম বলা যেতেই পারে। পর্যটকরা প্রায়েই এখান থেকে নকশা বড়ি, হাতপাখা, মাদুর, বেতের জিনিস কিনে নিয়ে যান। এটা দেখেই নিজের নেশাকে পেশা করার পরিকল্পনা মাথায় আসে তুষারকান্তি মাইতির। যেমন ভাবা। তেমন কাজ। প্রথমেই অব্যবহৃত জ্বালানি দিয়ে তৈরি করতে শুরু করলেন পাল তোলা নৌকা, নারকেলের মালার সিঁদুরকৌটো, পাখি, ফুলদানি, ময়ূর, একতারা। এছাড়াও আমড়া ও সুপারি দিয়ে তৈরি হতে শুরু করল পাখি, ফটোফ্রেম, গণেশ মূর্তি, গরুর গাড়ি। আরও অনেক কিছু।

vlcsnap-1810-04-24-18h19m33s724

তাঁর কাজ উৎসাহ যুগিয়েছে অনেককে। প্রশিক্ষণও দিচ্ছেন বিভিন্ন স্বনির্ভর গোষ্ঠীগুলিকে। বিক্রির ব্যবস্থা হয়েছে। ঘুরতে আসা পর্যটক ছাড়াও বিভিন্ন সরকারি মেলায় এখন তাঁর নিয়মিত হাজিরা।

Loading...

আয় বাড়ছে। সেই সঙ্গে বাড়ছে আশাও। জেলায় হস্তশিল্পীদের জন্য আলাদা বাজার তৈরি হলে সুবিধা আরও বাড়বে বলে আশা প্রবীণ শিল্পীর।

First published: 11:55:21 AM Mar 21, 2017
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर