ফের রাতের অন্ধকারে দুঃসাহসিক চুরি, এবার লুট সোনার দোকানে

শীতের রাতে চুরির ঘটনা বেড়েই চলেছে পূর্ব বর্ধমান জেলা জুড়ে। কখনও একের পর এক মন্দিরে চুরির ঘটনা ঘটছে। সেই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই রাতের অন্ধকারে শাটার ভেঙে চুরি হচ্ছে দোকানে।

শীতের রাতে চুরির ঘটনা বেড়েই চলেছে পূর্ব বর্ধমান জেলা জুড়ে। কখনও একের পর এক মন্দিরে চুরির ঘটনা ঘটছে। সেই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই রাতের অন্ধকারে শাটার ভেঙে চুরি হচ্ছে দোকানে।

  • Share this:

#বর্ধমান: শীতের রাতে চুরির ঘটনা বেড়েই চলেছে পূর্ব বর্ধমান জেলা জুড়ে। কখনও একের পর এক মন্দিরে চুরির ঘটনা ঘটছে। সেই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই রাতের অন্ধকারে শাটার ভেঙে চুরি হচ্ছে দোকানে।সেসব ঘটনার কিনারা হওয়ার আগেই ফের বড় ধরনের চুরির ঘটনা ঘটলো পূর্ব বর্ধমানের ভাতারের কামারপাড়া একটু সোনার দোকানে। রাতের অন্ধকারে দোকানে ঢুকে চারটি লকার ভেঙে সর্বস্ব লুট করে নিয়ে গেছে দুষ্কৃতীরা।এমনই অভিযোগ দোকান মালিকের। এই ঘটনার পর আতঙ্কিত এলাকার ব্যবসায়ীরা। তাঁরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। ঘটনার জেরে অস্বস্তিতে পুলিশ। জেলা পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। দুষ্কৃতীদের হদিশ পেতে এলাকার সিসিটিভি ফুটেজ জোগাড় করার চেষ্টা হচ্ছে। এছাড়াও ওই রাস্তায় যাতায়াতের সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

পূর্ব বর্ধমান জেলার ভাতারের কামারপাড়ায় শনিবার রাতে একটি সোনার দোকানে এই দুঃসাহসিক চুরির ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দা ও পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ভাতারের কামারপাড়া বাজারে দ্বারকা নাথ দাসের সোনার দোকানে এই চুরির ঘটনা ঘটে।প্রতিদিনের মত তিনি দোকান বন্ধ করে বাড়ি চলে গিয়েছিলেন। দোকানের তালা ভেঙে সব সামগ্রী চুরি হয়ে গিয়েছে বলে সকালে খবর পান তিনি।দোকানে মোট চারটি লোহার সিন্দুক ছিল। সে সবের মধ্যে তিরিশ ভরি সোনার গয়না ছাড়াও পাঁচ ছ কেজি রুপো ছিল। এছাড়াও নগদ তিরিশ হাজার টাকা ছিল ক্যাশ বাক্সে। সেসব কিছু লুট করে নিরাপদে দুষ্কৃতীরা চম্পট দেয় বলে দোকানের মালিকের দাবি। এলাকার ব্যবসায়ীরা বলছেন, রাতে বেশিরভাগ দোকান বন্ধ হয়ে যায়। সেই সুযোগেই এই চুরির ঘটনা ঘটিয়েছে দুষ্কৃতীরা। তাই রাতে এই বাজারে পুলিশ মোতায়নের ব্যবস্থা করা হোক। এছাড়াও নিজেদের উদ্যোগে রাত পাহারা বসানোর ভাবনা-চিন্তাও করছেন তাঁরা। ঘটনার খবর পেয়ে ভাতার থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তদন্ত শুরু করে। দোকানের ভেতর ঢুকে সবকিছু খতিয়ে দেখেন তদন্তকারী পুলিশ আধিকারিকরা। দোকানের মালিকের সঙ্গে কথা বলেন তাঁরা। পুলিশ জানিয়েছে, রাতে বাজার এলাকাগুলিতে টহল বাড়ানোর পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।এই ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি রুখতে সবরকম ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

Published by:Akash Misra
First published: