Home /News /south-bengal /
Dhulian Hostel: রাত বাড়তেই শোনা যাচ্ছে নূপুরের শব্দ! কারা হাঁটে? ধুলিয়ানের 'ভূতুড়ে হস্টেল' ঘিরে রহস্য়

Dhulian Hostel: রাত বাড়তেই শোনা যাচ্ছে নূপুরের শব্দ! কারা হাঁটে? ধুলিয়ানের 'ভূতুড়ে হস্টেল' ঘিরে রহস্য়

নিজস্ব চিত্র

নিজস্ব চিত্র

Dhulian Hostel: ধুলিয়ান বানিচাঁদ আগরওয়াল কস্তুররা গান্ধী বালিকা বিদ্যালয়ের হস্টেলে ১০০ জন ছাত্রী রয়েছে। তারা সকলেই ধুলিয়ান ১০নং ওয়ার্ডের ধুলিয়ানের বানিচাল আগরওয়াল বালিকা বিদ্যালয়ের পঞ্চম থেকে অষ্টম শ্রেনীর ছাত্রী।

  • Share this:

#ধৃুলিয়ান: রাত বাড়তেই শোনা যাচ্ছে নূপুরের ছমছম শব্দ। মনে হচ্ছে পাশ দিয়ে হেঁটে চলে গেল কেউ। বিভিন্ন ধরনের আওয়াজে কেঁপে উঠছে চারিদিক। এমনই নানান ভৌতিক কান্ডে আতঙ্কিত ধুলিয়ানের বানিচাঁদ আগরওয়াল বালিকা বিদ্যালয়ের হস্টেলের ছাত্রীরা। ভূত আতঙ্কে ঘুম উড়েছে তাদের। তবে স্কুল কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানাতেই হস্টেলে পুরোহিত ও মৌলনাদের আনা হয়। ভূত তাড়াতে মন্ত্র পড়ে দোয়া ও প্রার্থনা করেন তাঁরা।

আরও পড়ুন: বিপুল ঋণের বোঝা, চরম খাদ্যসংকট, নেই জ্বালানিও! কীভাবে বাঁচবে এই প্রতিবেশী দেশ?

ধুলিয়ান বানিচাঁদ আগরওয়াল কস্তুররা গান্ধী বালিকা বিদ্যালয়ের হস্টেলে ১০০ জন ছাত্রী রয়েছে। তারা সকলেই ধুলিয়ান ১০নং ওয়ার্ডের ধুলিয়ানের বানিচাল আগরওয়াল বালিকা বিদ্যালয়ের পঞ্চম থেকে অষ্টম শ্রেনীর ছাত্রী। স্কুলের পাশেই হস্টেল। করোনায় স্কুল বন্ধ থাকায় বন্ধ ছিল হস্টেলও। তবে স্কুল খুলে যাওয়ায় দেড় মাস আগে খুলছে হোস্টেল। একে একে ছাত্রীরা হোস্টেলে আসা শুরু করেছে। সবকিছু স্বাভাবিক থাকলেও সমস্যার সূত্রপাত দিন পাঁচেক আগে থেকে। হস্টেলে থাকা ছাত্রীদের দাবি সন্ধ্যা থেকে রাত বাড়তেই নানা ভৌতিক ঘটনা ঘটছে হস্টেলে। শোনা যাচ্ছে নূপুরের ছমছম শব্দ, আবার মনে হচ্ছে পাশ দিয়ে হেঁটে চলে যাচ্ছে কেউ। অথচ চোখে দেখা যাচ্ছে না কাউকেই। এমনই নানান ভৌতিক কাণ্ডে ও ভূত আতঙ্কে ঘুম উড়েছে হস্টেলের আবাসিক ছাত্রীদের।

আরও পড়ুন: পুতিনের পরিণতি কী? সেই বাবা ভাঙ্গার ভবিষ্যদ্বাণী শুনেই চমকে যাচ্ছে বিশ্ব! এবারও মিলবে?

তবে স্কুল কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানাতেই হস্টেলে পুরোহিত ও মৌলনাদের আনা হয়। হোস্টেলের ছাত্রী ও শিক্ষিকাদের নিয়ে মন্ত্র পড়ে দোয়া ও প্রার্থনা করেন। তবে ভয়ের ও আতঙ্কের কোনও কারন নেই বলেই জানালেন তাঁরা। স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা ডা. কাকলি ঘোষ বলেন, উন্নত বৈজ্ঞানিক যুগে এই সমস্ত ভৌতিক কাণ্ডকে প্রথমে গুরুত্ব দিতে না চাইলেও ছাত্রীদের মনের আতঙ্ক দূর করতে হোস্টেলে ধর্মগুরুদের নিয়ে আসা হয়। ছাত্রীদের মনের ভয় দূর করতে পুরোহিত ও মৌলানা এসে হস্টেলে মন্ত্রপাঠ করেন। ভয়ের কোনও কারন নেই, হোস্টেলের ছাত্রীরা এখন আতঙ্ক মুক্ত। তবে কোনও বিজ্ঞান মঞ্চের সহযোগীতা না নিয়ে এই ভাবে ধর্মগুরুদের সহযোগীতা নেওয়ার ব্যাপারে তার সাফাই, প্রত্যেকেই খুব দুঃস্থ পরিবারের। প্রতিটা ছাত্রীদের মনে সাহস যোগানোর জন্য এই ব্যবস্থা করেছি।

Pranab Kumar Banerjee

Published by:Uddalak B
First published:

Tags: Murshidabad

পরবর্তী খবর