corona virus btn
corona virus btn
Loading

এ যেন বাংলার ভেনিস। শহরে চলছে নৌকা ! জল-যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ জীবন !

এ যেন বাংলার ভেনিস। শহরে চলছে নৌকা ! জল-যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ জীবন !

প্রতি বছর জল যন্ত্রণা। জলবন্দি দশায় ওষ্ঠাগত জীবন। লেখাপড়ার সঙ্গেই শিশুরা শেখে নৌকা চালানো।

  • Share this:

#ঘাটাল: যে দিকে চোখ যায়, শুধু জল আর জল। ফি বছর এভাবেই জলে ডুবে থাকে পশ্চিম মেদিনীপুরের ঘাটাল মহকুমার বিস্তীর্ণ অঞ্চল। কেন ডুবে থাকে ঘাটাল?

আসলে ঘাটালের ভৌগোলিক অবস্থানটাই বড় বিচিত্র। অনেকটা কড়াই বা গামলার মত। আর নদী বহুল বাংলায় ঘাটালকে ঘিরে রয়েছে একাধিক নদী। শিলাবতী, কংসাবতী, দ্বারকেশ্বর, নতুন কাসাই, পুরাতন কাসাই, বুড়িগঙ্গার মত নদী বা শাখানদী গুলোর প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ যোগাযোগ রয়েছে ঘাটালের জলমগ্ন হওয়ার সঙ্গে। পশ্চিমের জেলা গুলোতে বেশি বৃষ্টি হলেই এই নদীগুলোয় জল বাড়ে। তারপর বাঁকুড়া, পুরুলিয়া হয়ে নদীর জল এসে জমা হয় গামলা আকৃতির ঘাটালে।

ফি বছর এই জল-যন্ত্রণা থেকে ঘাটালকে মুক্তি দিতে পারত ঘাটাল মাস্টার প্ল্যান। ১৯৮২ সালে সেই প্রকল্পের শিলান‍্যাস হওয়ার পর চার দশকেও দিনের আলো দেখেনি ঘাটাল মাস্টার প্ল্যান। সময় পেরিয়েছে, জমানা বদলেছে। ঘাটাল মাস্টার প্ল্যানের ফাইলে জমেছে ধুলোর পাহাড়। বন্দি দশা থেকে রেহাই মেলেনি ঘাটালের লক্ষাধিক লক্ষাধিক বাসিন্দার।

শুধু গ্রামীণ ঘাটাল নয়। ঘাটাল শহরেও ছবিটা এক। দুর্ভোগের শেষ নেই সেখানেও। ঘাটাল পুরসভার অন্তর্গত বারোটি ওয়ার্ড জলমগ্ন। ঘাটাল মেইন রোডে বুক সমান জল। এক ঝলকে মনে হতে পারে, এ যেন বাংলার ভেনিস। বছরের এই সময়টা নৌকায় করে যাতায়াত করতে হয় ঘাটাল বাসীদের। স্থানীয় বাসিন্দারা মজা করে বলেন, এখানকার ঘরে ঘরে সন্তানের জন্ম হলে লেখাপড়া সঙ্গে তাকে ডিঙি নৌকা চালানোর প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। একথা ঠিক, বছরের এই সময়টা দেশী নৌকাগুলি একমাত্র ভরসা ঘাটালবাসীর।

বিস্তীর্ণ জলমগ্ন এলাকায় কোথাও কোথাও মাথা তুলে বিচ্ছিন্ন দ্বীপের মত জেগে আছে এক-আধটা বসতবাটি। বাইরের দুনিয়ার সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন। কোন কোন বছর এই জলবন্দী দশা স্থায়ী হয় এক মাস থেকে দেড় মাস। অসহায়, অবলম্বনহীন মানুষ গুলোর জীবন অতিষ্ঠ হয়ে ওঠে জল-যন্ত্রণায়।

PARADIP GHOSH 

Published by: Piya Banerjee
First published: August 29, 2020, 4:36 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर