দক্ষিণবঙ্গ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

৯ জানুয়ারি গঙ্গাসাগর মেলার শুভারম্ভ, কোভিড প্রটোকল মেনে চলছে চূড়ান্ত প্রস্তুতি, রইল বিস্তারিত...

৯ জানুয়ারি গঙ্গাসাগর মেলার শুভারম্ভ, কোভিড প্রটোকল মেনে চলছে চূড়ান্ত প্রস্তুতি, রইল বিস্তারিত...
ফাইল ছবি

৯ জানুয়ারি থেকে শুরু হতে চলেছে গঙ্গাসাগর মেলা। চলবে ১৬ জানুয়ারি পর্যন্ত।

  • Share this:

#গঙ্গাসাগর: গঙ্গাসাগর মেলার প্রস্তুতি চূড়ান্ত পর্যায়ে। করোনা আবহের মধ্যে শুরু হতে চলেছে এবারের মেলা। আগামী ৯ জানুয়ারি থেকে শুরু হতে চলেছে গঙ্গাসাগর মেলা। চলবে ১৬ জানুয়ারি পর্যন্ত। কোভিড পরিস্থিতির কথা ভেবে অন্যান্য বারের মতো এ বারের গঙ্গাসাগর মেলায় ভিড় হবে ধরে নিয়ে স্বাস্থ্য সুরক্ষার পাশাপাশি পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখার ওপর বিশেষ জোর দিয়েছে রাজ্য ও জেলা প্রশাসন।

করোনা সংক্রমনের মোকাবিলার জন্য রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের পক্ষ থেকে ইতিমধ্যে বিস্তারিত নির্দেশিকা দিয়ে জানানো হয়েছে। সেই মতো জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মেলা শুরুর যাবতীয় পরিকল্পনা নিয়েছে। বাফার জোনে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। মেলায় ঢোকার দশটি পয়েন্টে দিন-রাত থাকবে করোনা র‍্যাপিড টেস্টের ব্যবস্থা। প্রত্যেক পয়েন্টে থাকবে কোভিড ম্যানেজমেন্ট টাস্কফোর্স। খোলা হয়েছে ১১টি কোয়ারেন্টাইন সেন্টার ও ৮টি সেফ হোম। কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে থাকছে ৬৪৫টি এবং সেফ হোমে থাকছে ৬১৫টি বেড। এ ছাড়া প্রাথমিক চিকিৎসার জন্য থাকছে ৩৮টি বুথ। সেখানে মোট বেড থাকছে ৬৫৮টি।

গত বছরের তুলনায় এবার চিকিৎসকের সংখ্যা দ্বিগুণ ও নার্সের সংখ্যা তিনগুণ বেশি করা হয়েছে। মেলার অস্থায়ী হাসপাতাল থেকে কোনও রোগীকে বদলি করার প্রয়োজন হলে, তাঁদের কাকদ্বীপ সুপার স্পেশ্যালিটি হাসপাতাল, ডায়মন্ডহারবার মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, এমআর বাঙ্গুর এবং বিদ্যাসাগর স্টেট জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হবে। তার জন্য যাবতীয় ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। মৃতদেহ সৎকারের জন্য ছ'টি কবরস্থান এবং ছ'টি চুল্লির ব্যবস্থা করা হয়েছে। এবারের সাগর মেলার মাঠ পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখার জন্য সাগর বকখালি উন্নয়ন পর্ষদ থেকে ২৫০  পুরুষ ও মহিলা ভলান্টিয়ার নিয়োগ করা হয়েছে। মেলা শুরুর আগে থেকেই কাজ শুরু করে দিয়েছেন সাফাই কর্মীরা। আবর্জনা সাফাইয়ের জন্য থাকছে ২৮টি ই-রিক্সা। আবর্জনা রাখার জন্য থাকবে ২ হাজারের বেশি ভ্যাট। মজুত আবর্জনার জন্য ২ টি অস্থায়ী কঠিন তরল বর্জ্য নিষ্কাশন ব্যবস্থাপনা গড়ে তোলা হয়েছে।

জেলাশাসক উলগা নাথন জানিয়েছেন, এবারের মেলায় স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও দূরত্ব বিধির দিকে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। অস্থায়ী হাসপাতাল, র‍্যাপিড টেস্টের ব্যবস্থা থাকছে। এবারের মেলায় বেশি সংখ্যক চিকিৎসক-নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী, স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার কর্মীদের নিয়োগ করা হয়েছে। শেষ মুহূর্তে সমস্ত বিষয়টি তদারকি করছেন সাগর বকখালি উন্নয়ন পর্ষদের চেয়ারম্যান বঙ্কিমচন্দ্র হাজরা। তিনি জানান, সাগর মেলার আজ যা কিছু উন্নয়ন হয়েছে তার সমস্ত কৃতিত্ব মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। তিনি এই মেলাকে আন্তর্জাতিক স্তরে পৌঁছে দিয়েছেন।

ABIR GHOSHAL

Published by: Shubhagata Dey
First published: January 4, 2021, 9:13 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर