শবদাহের কাজে সমস্যা মেটাতে পরিবেশ বান্ধব চুল্লি তৈরি হল কোথায় ?

পরিবেশ বান্ধব এই চুল্লিতে শব দাহ হয় কাঠ দিয়ে।

পরিবেশ বান্ধব এই চুল্লিতে শব দাহ হয় কাঠ দিয়ে।

  • Share this:

    #হাওড়া: প্রিয়জনকে হারানোর মুহূর্ত বেদনা দেয়। অন্ত্যেষ্টির সময়েও তাঁকে আঁকড়ে রাখেন মানুষ। সেই প্রিয়জনের অন্ত্যেষ্টিতে বিঘ্ন ঘটলে বেদনার পারদ যেন সীমা ছাড়ায়। বাবার শেষকৃত্য সম্পন্নের সময় প্রবল প্রাকৃতিক দুর্যোগে এরকমই অভিজ্ঞতা হয়েছিল হাওড়ার বাগনানের গণেশ সাউয়ের। এই সমস্যা সমাধানে নিজেই এক চুল্লি বানিয়েছেন তিনি। পরিবেশ বান্ধব এই চুল্লিতে শব দাহ হয় কাঠ দিয়ে।

    চারপাশে সবুজ ফাঁকা জায়গা। এক কোণায় শান্ত নিরালায় অন্তিম যাত্রার শেষ দুয়ার। ছায়া ঘেরা এক জায়গায় স্বর্গ সুখ। শব দাহ করার চুল্লি। আকারে বা চেহারায় চুল্লি বলে অবশ্য চেনার উপায় নেই। বাঁধানো চাতালের উপর ছিমছাম চেহারার এই চুল্লি যিনি বানিয়েছেন তিনি গণেশ সাউ। হাওড়ার বাগনানের খানপুরের বাসিন্দা গণেশবাবু পেশায় দমকলকর্মী। ১৩ বছরের প্রচেষ্টায় এই চুল্লি বানিয়েছেন তিনি। কিন্তু কেন হঠা‍ৎ এই উদ্ভাবন ? বাবার অন্ত্যেষ্টি বদলে দিয়েছিল অনেককিছুই। বাকিটা শুনতে হবে উদ্ভাবকের মুখ থেকেই।

    দেহ পুড়ে ছারখার হয়ে যাওয়ার দৃশ্য। সব শেষ হয়ে যাওয়ার দৃশ্য। সহ্য করতে পারেন না অনেকেই। এই চুল্লি সেই দৃশ্যদূষণ থেকেও মুক্তি দেবে। কাঠের এই চুল্লি পুরোপুরি পরিবেশবান্ধবও বটে।

    চুল্লির আধুনিকীকরণে চার লক্ষ টাকা দিয়েছেন বাগনানের বিধায়ক অরুণাভ সেন। গণেশবাবুর আশা, এই চুল্লি ক্রমেই জনপ্রিয়তা লাভ করবে। বাড়বে ব্যবহারও। চুল্লি তৈরি শিখিয়ে দিতে প্রস্তুত তিনি। স্বর্গীয় বাবাকে সঙ্গে নিয়েই।

    First published: