Home /News /south-bengal /
Katwa Hospital: তিন লক্ষ টাকার বিরিয়ানি, ওষুধের দোকান থেকে কেনা হয়েছে সোফা, কাটোয়ার সরকারি হাসপাতালে আজব বিল

Katwa Hospital: তিন লক্ষ টাকার বিরিয়ানি, ওষুধের দোকান থেকে কেনা হয়েছে সোফা, কাটোয়ার সরকারি হাসপাতালে আজব বিল

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

২৮০ শয্যার কাটোয়া মহকুমা হাসপাতালের উপরে পূর্ব বর্ধমান জেলার কাটোয়া মহকুমা ছাড়াও পার্শ্ববর্তী নদিয়া, বীরভূম ও মুর্শিদাবাদ জেলার বাসিন্দারা নির্ভরশীল।

  • Share this:

    #কাটোয়া: তিন সপ্তাহে হাসপাতালে এসেছে তিন লক্ষ টাকার বিরিয়ানি৷ ওষুধের দোকান থেকে কেনা হয়েছে হাসপাতালের আসবাবপত্র৷ এমনই সব ভুতুড়ে বিলকে কেন্দ্র করে হঠাৎই চর্চায় কাটোয়া মহকুমা হাসপাতাল৷ শনিবার হাসপাতােলর রোগী কল্যাণ সমিতি ভুয়ো বিল পেশের জন্য কয়েকজন ঠিকাদারের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷

    ২৮০ শয্যার কাটোয়া মহকুমা হাসপাতালের উপরে পূর্ব বর্ধমান জেলার কাটোয়া মহকুমা ছাড়াও পার্শ্ববর্তী নদিয়া, বীরভূম ও মুর্শিদাবাদ জেলার বাসিন্দারা নির্ভরশীল। স্বাভাবিক কারণে অন্তর্বিভাগ ও বহির্বভাগে রোগীর চাপ সর্বক্ষণ লেগেই থাকে। হাসপাতালের বিভিন্ন কাজে সরকারি নিয়মে ঠিকাদার নিয়োগ করে দরপত্র ডেকে তাদের কাছ থেকে প্রয়োজন অনুসারে কখনও গাড়ি ভাড়া , খাবার, ওষুধ, আসবাব পত্র, ইলেক্ট্রনিক্স সরঞ্জাম ইত্যাদি কেনা হয়। ঠিকাদাররা দরপত্র অনুসারে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে নিজেদের বিল জমা করে প্রাপ্য টাকা তুলে নেন।

    আরও পড়ুন: মাটির নীচে চার বালকের তৈরি ‘পাতালঘর’ তাক লাগিয়ে দেয়

    ২০১৯ -২০২০ আর্থিক বছরের শেষ দিক থেকে ঠিকাদারদের প্রাপ্য বিল পেতে সমস্যা শুরু হয়। ঠিকাদারদের জমা করা বিলে গরমিল পাওয়ায় স্বাস্থ্য দপ্তরের কর্তারা সেগুলি আটকে দেন। প্রায় দু' বছর বিলগুলির পেমেন্ট আটকে রাখা হয়। ২০২১ সালের নভেম্বর মাসে রোগী কল্যাC সমিতির বৈঠকে তৎকালীন সুপারের নেতৃত্ব যাচাই কমিটি গঠন করে বিল গুলি পরীক্ষার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

    এর পরেই ধরা পড়ে ভুরি ভুরি অসঙ্গতি৷ দেখা যায় প্রায় ৮১টি ভুয়ো বিল পেশ করে এক কোটি টাকার কাছাকাছি আদায় করার চেষ্টা করেছেন কয়েকজন ঠিকাদার৷ যেমন ২০২০ সালের ১৭ অগাস্ট থেকে ০৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বিরিয়ানির বিল হয়েছে ৩ লক্ষ ২০ হাজার ৬৮০ টাকা। আবার কাটোয়ার নিগমানন্দ ফার্মেসি নামে একটি ওষুধের দোকান থেকে থেকে লক্ষাধিক টাকা মূল্যের তিনটে সোফা সেট সহ টেবিল হাসপাতালে সরবরাহ করা হয়েছে বলে দাবি করে বিল জমা পড়েছে। একই নম্বরের গাড়ি একই দিনে একই সময়ে দু' বার যাতায়াত করেছে বলে দাবি করে প্রায় ১১ হাজার টাকার বিল জমা করা হয়েছে৷

    মূলত তিনজন ঠিকাদারের বিরুদ্ধেই এই অভিযোগ৷ রোগী কল্যাণ সমিতির অন্যতম সদস্য কাটোয়ার বিধায়ক রবীন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায় বলেন, 'ভুয়ো নথি দিয়ে কোটি টাকার বিল তুলে নেওয়ার চেষ্টা চলছিল। আমরা যাচাই কমিটির রিপোর্টে সব জানতে পেরেছি।দোষীদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ জানানো হবে। হাসপাতালের কোনও কর্মী জড়িত থাকলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।'

    Ranadeb Mukherjee

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published:

    Tags: Purba bardhaman

    পরবর্তী খবর