গতবছরের ভুল আর নয় ! ঝাড়গ্রামে বাঘ ধরতে প্রথম থেকেই বিশেষ ব্যবস্থা বন দফতরের

গতবছরের ভুল আর নয় ! ঝাড়গ্রামে বাঘ ধরতে প্রথম থেকেই বিশেষ ব্যবস্থা বন দফতরের

গতবারের থেকে শিক্ষা নিয়ে জঙ্গল মহলে এবারের বাঘটিকে বাঁচাতে প্রথম থেকেই তৎপর রাজ্য বন দফতর

  • Share this:

Soujan Mondal

#ঝাড়গ্রাম: গতবারের থেকে শিক্ষা নিয়ে জঙ্গল মহলে এবারের বাঘটিকে বাঁচাতে প্রথম থেকেই তৎপর রাজ্য বন দফতর। কাজেই, শুরু থেকেই সব রকম ব্যবস্থা করেই বাঘ ধরতে নেমেছেন দফতরের কর্তারা। ২০১৮ সালে শীতের শেষে হঠাৎ করে জঙ্গল মহলে বাঘের দেখা মেলে। বন দফতরের পাতা ট্র্যাপ ক্যামেরায় ধরা পড়ে একটি প্রাপ্ত বয়স্ক বাঘের ছবি। বসন্তে ঝড়েপড়া শুকনো পাতার ওপর বাঘের সেই ছবি দেখে পশু প্রেমীদের মন ভরে যায়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত বাঘটিকে রক্ষা করা সম্ভব হয় নি। প্রায় দেড় মাস পড় গ্রামবাসীদের আক্রমণে মৃত্যু হয় বাঘটির। এই নিয়ে বিস্তর জল ঘোলাও হয়েছিল ।

কেন্দ্রীয় বন মন্ত্রকের তরফ থেকে ন্যাশনাল টাইগার কনজারভেশন অথোরিটি (এনটিসিএ)-র আইজি- কে পূর্বাঞ্চলে তদন্ত করতে পাঠানো হয়েছিল। একইসঙ্গে আদালতেও এর জন্য জবাবদিহি করতে হয়েছিল রাজ্য বন দফতরের কর্তাদের। কাজেই, এবার শুরু থেকেই সতর্ক রাজ্য বন দফতর। বাঘ ধরতে এবার বেশ কয়েকটি পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। সবার আগে জোর দেওয়া হয়েছে জনসংযোগে। তার জন্য পঞ্চায়েত প্রতিনিধি থেকে শুরু করে বিধায়ক... সকলকেই এবার যুক্ত করা হয়েছে। তাঁদের মাধ্যমে যে এলাকাগুলোয় বাঘের পায়ের ছাপ দেখা গিয়েছে সেখানকার গ্রামবাসীদের মধ্যে সচেতনা বৃদ্ধির চেষ্টা চালাচ্ছে বনদফতর। বিশেষ করে আদিবাসী গ্রামগুলিতে এই কাজের জন্য বেশি জোর দেওয়া হয়েছে। বনদফতরের কর্তারা মনে করছেন, ২০১৮ সালে স্থানীয় মানুষদের মধ্যে যোগাযোগ গড়ে তুলতে না পারাটা বড় খামতি ছিল। তাই এবার কোনও ফাঁকি রাখতে চান না তাঁরা।

পাশাপাশি এবার শুরুতেই সুন্দরবন থেকে ট্র্যাঙ্কুলাইজার বিশেষজ্ঞ নিয়ে যাওয়া হয়েছে জঙ্গল মহলে। তাঁদেরকে তিনটি দলে ভাগ করে আলাদা আলাদা জায়গায় মোতায়েন করা হয়েছে। একইসঙ্গে সুন্দরবন থেকেই গতবারের থেকে সংখ্যায় বেশি খাঁচা এবং জাল নিয়ে যাওয়া হয়েছে। স্থানীয় ভাবেও কিছু খাঁচার ব্যবস্থা করা হয়েছে। বনদফতরের কর্তারা জানাচ্ছেন, এবার বাঘটিকে ট্র্যাক করার জন্য লোকসংখ্যা গতবারের থেকে বাড়ানো হয়েছে। কিন্তু এত করেও শেষ রক্ষা হবে কি? এই প্রশ্নের কোনও সদুত্তর দিতে পারছেন না বনদফতরের কর্তারা।

First published: 09:04:40 PM Jan 07, 2020
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर