'দাদা দেখেছেন তাই শুভেন্দু অধিকারীর মঞ্চে এসেছি'

'দাদা দেখেছেন তাই শুভেন্দু অধিকারীর মঞ্চে এসেছি'
সভামঞ্চে শুভেন্দু অধিকারী।

যদিও কোনও শহিদ পরিবার উপস্থিত ছিল না বলেই মত তৃণমূল কংগ্রেসের।

  • Share this:

    #নন্দীগ্রাম: খেজুরিতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভার জবাবী সভা করলেন শুভেন্দু অধিকারী। সভায় দেখা মিলল শহিদ পরিবারে সদস্যদেরও। সভাস্থলে শহিদ পরিবারের উপস্থিতিকে রাজনৈতিক চমক বলে উল্লেখ করছে রাজনৈতিক মহল। যদিও কোনও শহিদ পরিবার উপস্থিত ছিল না বলেই মত তৃণমূল কংগ্রেসের।

    মঙ্গলবার খেজুরিতে সভা ছিল বিজেপির। নিজের গড় খেজুরিতে সভা করেছেন শুভেন্দু অধিকারী। যেখানে একই মঞ্চে হাজির ছিলেন বাবুল সুপ্রিয়, লকেট চ্যাটার্জি। আর সেই মঞ্চেই হাজির থাকলেন শহীদ পরিবারের সদস্যরা। যারা বলছেন তাদের খোঁজ খবর রাখত একমাত্র শুভেন্দু অধিকারী। এদিন শহিদ পরিবারের তরফে হাজির ছিলেন রবীন্দ্রনাথ পাল। তিনি তার পরিবারের সদস্যদের নিয়েই বিজেপির সভায় এসেছিলেন। তার ছেলে উত্তম পাল আন্দোলনের সময় ১৪ মার্চ মারা যায়। রবীন্দ্রনাথ বাবু জানাচ্ছিলেন, "আমার ছেলের গুলি লাগার পরে ওই দিন সকাল সাড়ে ১১টা নাগাদ মারা যায়। তারপর যোগাযোগ রাখা থেকে শুরু করে সব সাহায্য এতদিন ধরে শুভেন্দু বাবু করে আসছেন। দিদি যা প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন সেই কথা রাখেননি। ১৪ বছর ধরে কোনও সম্পর্ক নেই। কোনও কথা রাখেননি। তাই আমরা উনি যেদিকে আমরাও সেদিকে।"

    তার স্ত্রী একই কথা বলছিলেন। তাদের দাবি সকলের খরচ বা দেখভাল শুভেন্দু অধিকারী করে আসছেন।মঞ্চে এসেছিলেন কবিতা মন্ডল। তার স্বামী বাদল মন্ডল মারা যায় নন্দীগ্রাম আন্দোলনে। তিনিও বলছিলেন, "আমরা এই একজন মানুষকেই চিনি। যিনি ২০০৭ সাল থেকে আমাদের পাশে ছিলেন। এত বছর ধরে সব যোগাযোগ দাদা রাখেন। দাদা যা বলবে তাই করব।" এদের বক্তব্যের সাথে সহমত শ্যামলী বেরা। তার শ্বশুর আদিত্য বেরা মারা যান। এদিন মঞ্চে এসে বসেছিলেন শ্যামলী দেবী। তিনি বলছেন, "যা সাহায্য করার দাদাই সব করে। আগে দাদার জন্যই টি এম সি করতাম। এখন দাদা বেরিয়ে গেছে আমিও দাদার ডাকে চলে এসেছি।"


    হাজির ছিলেন তাপস কর। তাঁর মা বাসন্তী কর মারা যান। এদিন তিনি বলেন, "গতকাল আমন্ত্রণ জানিয়েছিল। আমরা যাইনি। দাদা আমাদের সাথে ছিলেন। তাই আমরাও দাদার সাথে থাকি।"  শুভেন্দু অধিকারী এদিন জানিয়েছেন, প্রায় ২০ টি শহীদ পরিবার হাজির হয়েছিলেন তার সভায়। যদিও শহিদ পরিবারের সদস্যদের উপস্থিতি মানতে রাজি নয় তৃণমূল কংগ্রেস। এদিন নন্দীগ্রামের তৃণমূল নেতা শেখ সুফিয়ান বলেন, "শুভেন্দু বাবু মিথ্যা কথা বলছেন। কোনও শহিদ পরিবারের সদস্যরা হাজির হয়নি।ওনারা আমাদের সাথেই আছেন।" মনে করা হচ্ছে, ৪২ শহীদ পরিবারের মধ্যে ২০ শহীদ পরিবার আজ উপস্থিত ছিল শুভেন্দুর সভায়।

    Published by:Arka Deb
    First published:

    লেটেস্ট খবর