বোলপুরে মুখ্যমন্ত্রী আসার আগে ক্ষোভ দানা বাঁধছে চাষীদের মধ্যে

অধিগ্রহণ করা জমিতে শিল্পই করতে হবে দাবি চাষীদের? ২৮ তারিখ বোলপুরে আসবেন মুখ্যমন্ত্রী৷

অধিগ্রহণ করা জমিতে শিল্পই করতে হবে দাবি চাষীদের? ২৮ তারিখ বোলপুরে আসবেন মুখ্যমন্ত্রী৷

  • Share this:

    #বোলপুর: ২০০১ সালের তৎকালীন বাম সরকার শিবপুর মৌজার ৩০০ একর জমি দখল করে শিল্প হওয়ার আশ্বাস দিয়ে চাষীদের কাছ থেকে। কিন্তু সেই জমি দীর্ঘদিন পড়েছিল চাষীদের জমি ফেরত দেওয়ার জন্য ২০১১ সালের আগে এই জমিতে বিক্ষোভ করতে দেখা গেছে তৃণমূল কংগ্রেস কেউ। ক্ষমতায় এসে তৃণমূল কংগ্রেস ৩০০ একর জমিতে শিল্পের পরিবর্তে বিশ্ববাংলা বিশ্ববিদ্যালয় ও গীতবিতান টাউন শিপের ঘোষণা করে। যা বলা হয়ে থাকে মুখ্যমন্ত্রীর স্বপ্নের প্রকল্প। সেই মতো কাজও শুরু হয়েছে এই জমির উপরে।

    এখানে রয়েছে বিক্ষুব্ধ চাষীরা বিক্ষুব্ধ জমিহারা কৃষকদের দাবি। তারা বহু আন্দোলন করেছে কিন্তু এই জমিতে কোনমতেই তারা কোন আবাসন বা কোন বিশ্ববিদ্যালয় নয় শিল্পের জন্য অধিগ্রহণ করা জমিতে শিল্পী করতে হবে। যদি তাই না হয় তাহলে সিঙ্গুরের মত জমি চাষীদেরকে ফেরত দেয়া হোক। এই মর্মে তারা কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছে বিক্ষুব্ধ চাষিরা। কিন্তু চাষীদের দাবি বোলপুরে যখন মুখ্যমন্ত্রীর প্রশাসনিক বৈঠক ও তার দলের হয়ে প্রচারে আসছেন। চাষীদের দাবি রয়েছে তাদের সঙ্গে বসে মুখ্যমন্ত্রী তাদের প্রস্তাব ও কথাবার্তা যেন শোনে।যদি মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা না হয় চাষিরা বৃহত্তর আন্দোলনে নামার হুঁশিয়ারি দিচ্ছে।পাশাপাশি তাদের দাবি আগামীকালই তারা মুখ্যমন্ত্রী সফরের সময়ে বিক্ষোভ সমাবেশ করতে পারে।

    প্রসঙ্গত ২৮ তারিখ বেলা একটায় বোলপুর গীতাঞ্জলি প্রেক্ষাগৃহে পেছনে অস্থায়ী হেলিপ্যাড গ্রাউন্ডে আসবেন মুখ্যমন্ত্রী। সেখান থেকে সরাসরি চলে আসবেন গীতাঞ্জলি প্রেক্ষাগৃহে সাংবাদিক সম্মেলনে যোগ দেবেন। বেলা তিনটায় রয়েছে তারপর বৈঠক। প্রশাসনিক বৈঠকের মূলত কি কি উন্নয়ন করা হয়েছে বোলপুর বীরভূম এর জন্য আর কি কি করা যেতে পারে। এই সমস্ত বিষয় খতিয়ান তুলে ধরা হবে। ২৯ তারিখ বেলা একটায় বোলপুর ডাকবাংলা ময়দান থেকে বোলপুর চৌরাস্তা পর্যন্ত তার পদযাত্রা করার কথা রয়েছে। রাজনৈতিক মহল এই পদযাত্রা কে পাল্টা পদযাত্রা বলতেই জানাচ্ছে। কারণ গত কুড়ি ডিসেম্বর বোলপুরের এই ডাকবাংলো ময়দান থেকে চৌরাস্তা পর্যন্ত রোড শো করেন ভারতবর্ষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তথা বিজেপি নেতা অমিত শাহ।তৃণমূলে যে জনবিচ্ছিন্ন হয়ে যায়নি সাধারণ মানুষকে তা দেখানোর জন্যেই এই পদযাত্রা বলে দাবি রাজনৈতিক মহলের একাংশের। স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব দাবি করেছে বিজেপির রোড শো এর বাইরে থেকে লোক নিয়ে আসা হয়েছিল কিন্তু মমতা ব্যানার্জির পদযাত্রায় বাইরে থেকে তো কোনো লোকই থাকবে না বরঞ্চ ১০০০ বাউল শিল্পী মতুয়া সম্প্রদায়ের লোকজন সর্বোপরি হিন্দুত্ব থাবা বসাতে পুরুষদেরকেও মিছিলে হারানোর কথা বলছে স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব। দেখার বিষয় অমিত শাহের রোডসের জনপ্রিয়তা কে হার মানাতে পারে নাকি মুখ্যমন্ত্রীর রোড শো। তবে প্রশাসনের কর্তারা চিন্তিত শিবপুর মৌজার জমি হারা কৃষক সংগঠন যদি মুখ্যমন্ত্রীর সামনে কোন বিক্ষোভ প্রদর্শন করে।

    Indrajit Ruj

    Published by:Debalina Datta
    First published: