হোম /খবর /দক্ষিণবঙ্গ /
লকডাউনে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে সুবিধাভোগের চেষ্টা, ঠিকাদার ধৃত বর্ধমানে

লকডাউনে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে সুবিধাভোগের চেষ্টা, ঠিকাদার ধৃত বর্ধমানে

বর্ধমান থানার পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ধৃত ব্যক্তি আসলে একজন ঠিকাদার। পুলিশি জেরায় সেই কথা সে স্বীকার করে। ঠিকাদারির কাজে চুঁচুড়ায় হুগলি জেলা পরিষদে যাচ্ছিলেন।

  • Last Updated :
  • Share this:

#বর্ধমান:  লকডাউনে গাড়িতে প্রেস স্টিকার লাগিয়ে চলছে নানা অপকর্ম ! অনেক অসামাজিক কাজে যুক্ত হয়ে পড়ছে সেই সব গাড়ি৷ এমনই অভিযোগ আসছে পুলিশের কাছে। বহু মূল্যের চারচাকা গাড়িতে প্রেস স্টিকার লাগিয়ে পরিচয় গোপন করে পুলিশকে ধোকা দেওয়ার চেষ্টাও চালাচ্ছে অনেকে। সাংবাদিকের মিথ্যে পরিচয় দিয়ে বর্ধমান থানার পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হলেন এমনই এক ব্যক্তি।

ধৃত ব্যক্তির নাম সুরজ সেখ। সে মুর্শিদাবাদের রঘুনাথগঞ্জের বাসিন্দা। করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে বর্ধমান শহর জুড়ে বুধবার থেকে একটানা লকডাউন চলছে। লকডাউন ভেঙে রাস্তায় বের হওয়া বিভিন্ন গাড়ি আটক করে তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ। নিষেধাজ্ঞা  ভেঙে কেন বাইরে বেরোনো তা জানতে চাওয়া হচ্ছে আরোহীদের কাছে।

সোমবার দুপুরে বর্ধমানের কার্জন গেট এলাকায় প্রেস স্টিকার লাগানো এমনই একটি দামি চারচাকা গাড়ি আটক করে পুলিশ। পুলিশ দেখেই গাড়ির আরোহী নিজেকে সাংবাদিক হিসেবে পরিচয় দেন। সংবাদ সংগ্রহের প্রয়োজনেই তিনি রাস্তায় বেরিয়েছেন বলে পুলিশের কাছে দাবি করেন।

সন্দেহ হওয়ায় পুলিশ তাঁর পরিচয় পত্র দেখতে চাইলে তিনি প্রথমে তা দেখাতে চাননি। তারপর একটি স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমের মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে যাওয়া একটি পরিচয় পত্র দেখান ওই ব্যক্তি। পুলিশি জেরায় ওই ব্যক্তি অসংলগ্ন কথাবার্তা বলায় এবং তাঁর দেখানো কাগজপত্রে অসঙ্গতি থাকায় ওই ব্যক্তিকে আটক করে বর্ধমান থানার পুলিশ। গাড়িটিতে তল্লাশি চালিয়ে একটি আগ্নেয়াস্ত্রও উদ্ধার করা হয়।

বর্ধমান থানার পুলিশ অবশ্য জানিয়েছে, আগ্নেয়াস্ত্রটির লাইসেন্স রয়েছে ওই ব্যক্তির নামে। সাংবাদিকের মিথ্যে পরিচয় দিয়ে লকডাউন ভাঙার অভিযোগে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়।

বর্ধমান থানার পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ধৃত ব্যক্তি আসলে একজন ঠিকাদার। পুলিশি জেরায় সেই কথা সে স্বীকার করে।  ঠিকাদারির কাজে চুঁচুড়ায় হুগলি জেলা পরিষদে যাচ্ছিলেন। পথে বর্ধমান শহরে আটক হয়। সাংবাদিকের মিথ্যে পরিচয় দেওয়ার অভিযোগে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাড়তি সুবিধা পাওয়ার জন্যই তিনি স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমের কার্ড সঙ্গে রেখেছিলেন অভিযুক্ত। ওই ব্যক্তি সে কথা স্বীকার করেছেন বলে দাবি পুলিশের।

জেলার পুলিশ অফিসাররা বলছেন, জেলাজুড়ে এখন প্রচুর প্রেস টিকার লাগানো দু চাকা, চারচাকার গাড়ির দেখা মিলছে। অনেক ক্ষেত্রেই আরোহীদের সঙ্গে সাংবাদিকতার কোনও সম্পর্কই নেই। আবার অনেকে বাড়তি সুবিধা পাওয়ার জন্য স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমের কাছ থেকে পরিচয় পত্র জোগাড় করে নিচ্ছেন।

SARADINDU GHOSH

Published by:Arindam Gupta
First published:

Tags: Burdwan, Fake Journalist, Lockdown