করোনা আতঙ্কের মাঝেই হাতির হানা ! কোথায় দাপাচ্ছে জোড়া হাতি ? দেখে নিন

হাতির পায়ে নষ্ট হচ্ছে ধান চাষ।

হাতির পায়ে নষ্ট হচ্ছে ধান চাষ।

  • Share this:

#বর্ধমান: একে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের আশংকায় ঘর বন্দি বাসিন্দারা। তার ওপর আর এক বিপদ হাজির পূর্ব বর্ধমানের খন্ডঘোষে। সকাল থেকে এলাকা দাপিয়ে বেড়াচ্ছে দুটো হাতি। কখন যে কোন গ্রামে পৌঁছে যাচ্ছে তার হদিশ মেলাই ভার হয়ে দাঁড়িয়েছে। হাতির পায়ে নষ্ট  হচ্ছে ধান চাষ।

সব মিলিয়ে হাতির হানায় আতঙ্কিত বাসিন্দারা। তারা বলছেন, অবিলম্বে হাতি দুটিকে খন্ডঘোষ থেকে ফেরত পাঠানোর উদ্যোগ নিক বন দফতর। খন্ডঘোষ থানার পুলিশ ও ব্লক প্রশাসনের পক্ষ থেকে বন দফতরের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়েছে। বন বিভাগের আধিকারিকরা জানান, বাঁকুড়ার জঙ্গল থেকেই হাতি দুটি লোকালয়ে এসেছে। তাদের আবার বাঁকুড়া জেলায় পাঠানোর ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। প্রয়োজনে হুলা পার্টির সাহায্য নেওয়া হবে।

এদিন সকালে খন্ডঘোষে খেজুর হাটি গ্রামে প্রথম হাতি দুটিকে দেখা যায়। মাঠে কৃষি কাজ করতে গিয়ে হাতির দেখা পান তারা। ধীরে ধীরে কৌতূহলী মানুষের ভিড় বাড়তে থাকে। উৎসাহীরা ভিড় করায় হাতি দুটি বেশিরভাগ সময় ধান জমিতেই থাকছে। তাতে নষ্ট হচ্ছে ধান চাষ। বেলা দশটা নাগাদ কৈশর গ্রামে ছিল হাতি দুটি।  সাধারণত এই জেলায় বাঁকুড়া থেকে দামোদর পার হয়ে গলসিতে ঢোকে হাতিরা। সেই রুটেই বরাবর আসতে দেখা যায় হাতিদের। বাঁকুড়া থেকে খন্ডঘোষে হাতি ঢুকলো দীর্ঘ দিন পর। স্বাভাবিক ভাবেই হাতি দেখতে এলাকায় বাসিন্দাদের ভিড় বাড়ছে।

ব্লক প্রশাসনের পক্ষ থেকে হাতি দুটিকে লক্ষ্য করে ঢিল ছোঁড়া বা কোনও রকম উত্যক্ত করা থেকে বাসিন্দাদের বিরত থাকার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। তাতে ক্ষিপ্ত হয়ে বা ভয় পেয়ে হাতি দুটি ছোটাছুটি শুরু করলে ক্ষয়ক্ষতি বাড়বে বলে সাবধান করে দেওয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে বিপদ এড়াতে হাতির কাছে কাউকে কোনও ভাবেই না যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। প্রশাসন জানিয়েছে, হাতি দুটি যাতে খন্ডঘোষ থেকে রায়না বা বর্ধমানে ঢুকতে না পারে তা দেখা হচ্ছে। আপাতত তাদের ফের বাঁকুড়ার জঙ্গলে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে বন দফতর।

Saradindu Ghosh

Published by:Siddhartha Sarkar
First published: