#EgiyeBangla: প্রশাসনের উদ্যোগে কচুরিপানা পচিয়ে তৈরি হচ্ছে জৈব সার, কাজ করছেন স্বনির্ভর গোষ্ঠীর মহিলারা

কচুরিপানা পরিষ্কারের কাজ করছেন স্বনির্ভর গোষ্ঠীর মহিলারা। এই কচুরিপানা পচিয়ে তৈরি হচ্ছে জৈব সার।

Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Oct 16, 2019 10:15 AM IST
#EgiyeBangla: প্রশাসনের উদ্যোগে কচুরিপানা পচিয়ে তৈরি হচ্ছে জৈব সার, কাজ করছেন স্বনির্ভর গোষ্ঠীর মহিলারা
Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Oct 16, 2019 10:15 AM IST

#বনগাঁ: বনগাঁ মহকুমা প্রশাসনের উদ্যোগে কচুরিপানা পচিয়ে তৈরি হচ্ছে জৈব সার। ইছামতী নদী থেকে কচুরিপানা তুলছেন স্বনির্ভর গোষ্ঠীর মহিলারা। এতে তাঁরা যেমন আর্থিক লাভ করছেন, একইসঙ্গে মজে যাওয়া ইছামতী নদীও পরিষ্কার হচ্ছে।

বনগাঁ মহকুমার বাগদা থেকে গাইঘাটা পর্যন্ত ৮৫ কিলোমিটার বয়ে গিয়েছে ইছামতী নদী। বাগদা সিন্দ্রাণী থেকে গাইঘাটায় বেরি গোপালপুর পর্যন্ত সাধারণ মানুষের সহযোগিতায় নদীর কচুরিপানা পরিষ্কার করে প্রশাসন। কচুরিপানা পরিষ্কারের কাজ করছেন স্বনির্ভর গোষ্ঠীর মহিলারা। এই কচুরিপানা পচিয়ে তৈরি হচ্ছে জৈব সার।

- মহিলাদের জৈব সার তৈরির প্রশিক্ষণ দিয়েছে মহকুমা প্রশাসন

- কচুরিপানা পচিয়ে জৈব সার উৎপাদনের জন্য প্রথম ধাপে ২০টি স্বনির্ভর গোষ্ঠী কাজ করছে

- প্রাথমিক পর্যায়ে ৬৮ টন কচুরিপানা তোলা হয়েছে

Loading...

- অনুমান, ৬৮ টন কচুরিপানা থেকে ২২ টন জৈবসার উৎপাদন হবে

- ২২ টন জৈবসারের বাজারদর প্রায় সাড়ে ৪ লক্ষ টাকা

প্রশাসনের উদ্যোগে জৈব সার বিক্রিরও ব্যবস্থা করা হচ্ছে। কচুরিপানা পরিষ্কার করেছেন ১২০০ মৎস্যজীবীও। আঠেরো কিলোমিটার নদীপথ ইতিমধ্যেই কচুরিপানা মুক্ত হয়েছে বলে দাবি মহকুমা প্রশাসনের। ইছামতীর ধারে ন'টি গ্রাম পঞ্চায়েত এই প্রকল্পে অংশগ্রহণ করেছে।

First published: 10:15:05 AM Oct 16, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर