corona virus btn
corona virus btn
Loading

বর্ধমান স্টেশনে প্রতিদিনই আসছে শ্রমিক স্পেশাল ট্রেন, হাজার হাজার যাত্রী নামছেন পূর্ব বর্ধমানে

বর্ধমান স্টেশনে প্রতিদিনই আসছে শ্রমিক স্পেশাল ট্রেন, হাজার হাজার যাত্রী নামছেন পূর্ব বর্ধমানে

বর্ধমান স্টেশনে প্রতিদিনই আসছে শ্রমিক স্পেশাল ট্রেন। ভিন রাজ্য থেকে আসা হাজার হাজার যাত্রী নামছেন পূর্ব বর্ধমান স্টেশনে। ভিন রাজ্য থেকে যাত্রী আসার সঙ্গে তাল মিলিয়ে এ রাজ্যে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা।

  • Share this:

#বর্ধমান:  বর্ধমান স্টেশনে প্রতিদিনই আসছে শ্রমিক স্পেশাল ট্রেন। ভিন রাজ্য থেকে আসা হাজার হাজার যাত্রী নামছেন পূর্ব বর্ধমান স্টেশনে। ভিন রাজ্য থেকে যাত্রী আসার সঙ্গে তাল মিলিয়ে এ রাজ্যে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। ফলে শ্রমিক স্পেশাল ট্রেনে আসা যাত্রীদের হিসেব রাখছেন সাধারণ বাসিন্দাদের অনেকেই।এখন পর্যন্ত বর্ধমান স্টেশনে কটি শ্রমিক স্পেশাল ট্রেন এসেছে জানেন কি? আজ পর্যন্ত ঠিক কত সংখ্যক যাত্রী নামল এই স্টেশনে? চলুন চোখ বুলিয়ে নেওয়া যাক সেই তথ্যে।

এখন সকাল সন্ধ্যা কিংবা মাঝরাত- যাত্রীদের ভিড়ে জমজমাট বর্ধমান স্টেশন। কিছু সময় অন্তর এসেই চলেছে শ্রমিক স্পেশাল ট্রেন। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সেই ট্রেনে আসছেন লকডাউনে কাজ হারানো ভিন রাজ্যে আটকে পড়া পরিযায়ী শ্রমিকরা। পূর্ব বর্ধমানের অতিরিক্ত জেলাশাসক রজত নন্দা জানান, সোমবার দুপুর পর্যন্ত বর্ধমান স্টেশনে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মোট ছিয়াত্তরটি শ্রমিক স্পেশাল ট্রেন এসেছে। সেইসব ট্রেন থেকে বর্ধমান স্টেশনে নেমেছেন ১২ হাজার ৮৬১ জন যাত্রী। তাদের মধ্যে পূর্ব বর্ধমান জেলার বাসিন্দা  রয়েছেন ৭ হাজার ১৯৮ জন। বাকিরা মূলত নদীয়া বাঁকুড়া পুরুলিয়া জেলার বাসিন্দা।

বর্ধমান স্টেশনে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে বসানো হচ্ছে যাত্রীদের। এরপর তাদের শারীরিক পরীক্ষা হচ্ছে। থার্মাল গানে তাদের দেহের তাপমাত্রা মাপা হচ্ছে। জ্বর সর্দি সহ করোনার উপসর্গ থাকলে সেইসব যাত্রীদের কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে পাঠানো হচ্ছে। অতিরিক্ত জেলাশাসক জানান, গুজরাট দিল্লি মহারাষ্ট্র মধ্যপ্রদেশ ও তামিলনাড়ুর যাত্রীদের প্রত্যেককেই চিহ্নিত করে কোয়ারান্টিন সেন্টারে পাঠানো হচ্ছে। এই পাঁচ রাজ্য ছাড়া অন্যান্য রাজ্য থেকে আসা যাত্রীদের উপসর্গ না থাকলে তাদের হোম কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে পাঠানো  হচ্ছে।

যাত্রীদের অপেক্ষার জন্য স্টেশন চত্বরের বাইরে বিশাল প্যান্ডেল তৈরি করা হয়েছে। দূরবর্তী এলাকার যাত্রীদের জন্য সরকারি বাসের ব্যবস্থা করেছে জেলা প্রশাসন। খাবার ও ওষুধের প্যাকেট নিয়ে সেইসব বাসে উঠে বাড়ি ফিরছেন বা কোয়ারান্টিন সেন্টারে যাচ্ছেন ভিন রাজ্য থেকে আসা যাত্রীরা। মহিলা ও শিশুদের জন্য আলাদা ওয়েটিং রুমের ব্যবস্থা করা হয়েছে। জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, যাত্রীরা স্টেশনে পৌঁছলে তাদের শুকনো খাবারের প্যাকেট দেওয়া হচ্ছে। বেশিক্ষণ অপেক্ষায় থাকা যাত্রীদের দুপুর ও রাতের আহারের ব্যবস্থা করার জন্য পুরসভাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

Published by: Akash Misra
First published: June 1, 2020, 10:06 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर