চালকের মুখে সেলোটেপ আটকে ফিল্মি কায়দায় গাড়ি ছিনতাই! কলকাতায় আটক সন্দেহভাজন

রবিবার যাত্রী সেজে চালককে মারধর করে একটি গাড়ি ছিনতাই করে পালায় তিন দুষ্কৃতী। হিন্দি ফিল্মি কায়দায় গাড়ি ছিনতাইয়ের এই ঘটনায় রাজ্যজুড়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়।

রবিবার যাত্রী সেজে চালককে মারধর করে একটি গাড়ি ছিনতাই করে পালায় তিন দুষ্কৃতী। হিন্দি ফিল্মি কায়দায় গাড়ি ছিনতাইয়ের এই ঘটনায় রাজ্যজুড়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়।

  • Share this:

#ভাতার: ছিনতাইয়ের পর গাড়ি নিয়ে কোথায় গেল তিন দুষ্কৃতী তা জানার চেষ্টা চালাচ্ছে পূর্ব বর্ধমান জেলা পুলিশ। সম্ভাব্য যেসব রাস্তা দিয়ে ওই গাড়ি যেতে পারে সেসব রাস্তায় লাগানো সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখছেন তদন্তকারী পুলিশ অফিসাররা। কলকাতা থেকে আসার পথে যাবতীয় সিসিটিভি ফুটেজ ইতিমধ্যেই সংগ্রহ করা হয়েছে। সেইসব সিসিটিভি ফুটেজ দেখে দুষ্কৃতীদের চিহ্নিত করার চেষ্টা চালানো হচ্ছে।

তদন্তের প্রয়োজনে আজ কলকাতার মেটিয়াবুরুজ এলাকায় থেকে একজনকে আটক করেছে পুলিশ। ধৃতের নাম সঞ্জয় সিংহ। এদিন ভোরে কলকাতা থেকেই তাকে আটক করে ভাতার থানার তদন্তকারী পুলিশ অফিসাররা। তার কাছ থেকে এই ঘটনায় গুরুত্বপূর্ণ সূত্র মিলতে পারে বলে মনে করছে পুলিশ। তদন্তকারী পুলিশ অফিসারদের সূত্রে জানা গেছে, ধৃতের বক্তব্যে বেশ কিছু অসঙ্গতি পাওয়া গিয়েছে। তাই তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

রবিবার যাত্রী সেজে চালককে মারধর করে একটি গাড়ি ছিনতাই করে পালায় তিন দুষ্কৃতী। হিন্দি ফিল্মি কায়দায় গাড়ি ছিনতাইয়ের এই ঘটনায় রাজ্যজুড়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। ওইদিন রাতে হিন্দিভাষী তিন যুবক কলকাতার রানী রাসমণি রোড থেকে একটি চারচাকা গাড়ি ভাড়া করে। পূর্ব বর্ধমান জেলার আউশগ্রামের গোবিন্দপুরে যাওয়ার কথা জানিয়েছিল তারা। বর্ধমান ঢোকার আগে শক্তিগড় ল্যাংচা হাবে তারা জলযোগ সারে। আউশগ্রাম পৌঁছে সেখানে ভালো হোটেল না থাকার কথা জানিয়ে ফের গাড়ি ঘুরিয়ে দুই নম্বর জাতীয় সড়কে যাবার কথা বলে চালককে। ভাতার থানা আমবোনা মোড়ের কাছে স্বমূর্তি ধারণ করে তারা। রিভলভার উঁচিয়ে চালককে খুন করার ভয় দেখিয়ে গাড়ি দাঁড় করাতে বাধ্য করে। এরপর তারা চালককে ব্যাপক মারধর করে। রাস্তার পাশে ধানক্ষেতে চালককে নিয়ে গিয়ে তার হাত বেঁধে দিয়ে মুখে সেলোটেপ আটকে গাড়ি নিয়ে ওই তিন দুষ্কৃতী চম্পট দেয় বলে অভিযোগ।

সেই ঘটনার কিনারা করতে জোরদার তদন্ত চালাচ্ছে পূর্ব বর্ধমান জেলা পুলিশ। ইতিমধ্যেই কলকাতা পুলিশের সহায়তায় রানী রাসমণি রোড, মেয়ো রোড দ্বিতীয় হুগলি সেতুর সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহ করেছেন তদন্তকারী পুলিশ অফিসাররা। জেলা পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, দুই নম্বর জাতীয় সড়ক ধরে গাড়িটি বর্ধমানের দিকে গেলেও ছিনতাইয়ের পর গাড়িটির কলকাতার দিকে যায়নি। এ ব্যাপারে অনেকটাই নিশ্চিত হওয়া গেছে। গাড়ি নিয়ে দুষ্কৃতীরা ঝাড়খণ্ডের দিকে চম্পট দিয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। কী উদ্দেশ্যে কেন তারা এই গাড়ি ছিনতাই করলো তা জানার চেষ্টা চালানো হচ্ছে।

Saradindu Ghosh

Published by:Shubhagata Dey
First published: